প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দুর্নীতি বিরোধী অভিযানে সৌদি আরব পূত পবিত্র হয়ে উঠবে: প্রিন্স বিন তালাল

ওমর শাহ: সৌদি আরবে দুর্নীতি বিরোধী অভিযানে আটক ধনকুবের প্রিন্স আল ওয়ালিদ বিন তালাল বলেছেন, ‘সৌদি আরবে গত দশকে প্রচুর অর্থের অপচয় হয়েছে। সরকারের কোন কোন ব্যক্তি দুর্নীতির সাথেও জড়িত ছিলেন। আমার মনে হয় এসব আগাছা উপড়ে ফেলা ভালো। এর মধ্য দিয়ে সৌদি আরব আরো পূত পবিত্র হয়ে উঠবে। আমি বাদশাহ এবং যুবরাজ যে নতুন সৌদি আরব তৈরির জন্যে কাজ করছেন আমি তাতে পূর্ণ সমর্থন দিচ্ছি।’

শনিবার মুক্তির আগে বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে প্রিন্স বিন তালাল এমন মন্তব্য করেন। প্রিন্স বিন তালাল ৩০ মিনিটের এ সাক্ষাৎকারে তার ওপর নির্যাতন ও সম্পত্তি বাজেয়াপ্তকে গুজব সংবাদ বলেও উড়িয়ে দিয়েছেন। আটক থাকার বিষয়টিকে তিনি সৌদি সরকারের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি বলেও দাবি করেছেন।

বিন তালাল বলেন, আমার মনে হয় তারা পক্ষপাতহীন ও সৎ ভাবেই কাজ করেছেন। সৌদি আরবে যে দুর্নীতি আছে সেটা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। এটা দুর্ভাগ্যজনক যে দুর্নীতিবিরোধী এক ব্যক্তিও এই পাকের মধ্যে পড়ে গেছে। বহু লোক এখানে এসেছেন। প্রায় তিনশোর মতো। আমার মনে হয় এদের বেশিরভাগই এখন মুক্ত। এবং সত্যি কথা বলতে বেশিরভাগই নির্দোষ। বাকিদের জন্যে সমঝোতা হয়েছে। তবে সেটা শুধু তাদের ও সরকারের মধ্যে।

তিনি বলেন, এখানে আরো বেশ কয়েকজন আছেন। আমরা সরকারকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করছি কারণ আমিও সরকারের একটি অংশ। আমি সৌদি শাসক পরিবারেরও অংশ। আমাদের আলোচনা চলছে। আমার বিশ্বাস আর অল্প ক’দিনের মধ্যেই আমরা সবকিছু শেষ করে আনতে পারবো। আমার বিরুদ্ধেও কোন অভিযোগ নেই। সরকার ও আমার মধ্যে কিছু বিষয়ে শুধু আলোচনা হচ্ছে। অনেক বিষয় আছে যা আমি এখনই প্রকাশ করতে পারবো না।

এ সময় তিনি আরও বলেন, আমার বিরুদ্ধে প্রকাশিত অনেক সংবাদই গুজব। যা বিশেষ করে বিবিসিতে এসেছে। এতে আমি খুব হতাশ হয়েছি। খোলামেলা-ভাবে বলতে গেলে এর সবই মিথ্যা। এই হোটেলে আমি সবসময়ই ছিলাম এবং এখানে সবকিছুই ঠিক আছে। আমি ব্যায়াম করছি, সাঁতার কাটছি, হাঁটাচলা করছি। আমার আমার ডায়েট খাবারও পাচ্ছি। বিবিসি এবং অন্য জায়গাতেও দেখেছি। সেখানে বলা হয়েছে যে আলওয়ালিদকে অন্য জায়গায় আসল কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এবং তাকে নির্যাতন করা হয়েছে। এসব খবর খুবই দুর্ভাগ্যজনক। এখানে অনেকেই আছেন যাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগই আনা হয়নি। কারণ আমি জাতীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিকভাবে এতো সব প্রকল্পের সাথে জড়িত আছি, এতো সব স্বার্থ, আমি তাদের বলেছি, আপনারা আপনাদের সময় নিন। সবকিছু খতিয়ে দেখুন। তারপরেই সব ঠিক হয়ে যাবে। আমার সম্পর্কে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে সরকার আমার কাছ থেকে ছ’শো কোটি ডলার এবং কিংডম হোল্ডিং এর বড় একটা অংশ নিতে চাইছে। কিন্তু এসব মিথ্যা। আসলে আমি এসব নিয়ে কোন কথা বলতে চাইনি। কিন্তু আমাকে নির্যাতন করার কথা যখন বলা হয়েছে তখনই আমি এই সাক্ষাৎকারটি দিতে রাজি হই। সূত্র: রয়টার্স ও বিবিসি বাংলা

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত