প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নি:সঙ্গতায় পার্বত্য মুষিক বাঁচে দীর্ঘদিন : গবেষণা

মরিয়ম চম্পা: বন্ধুছাড়া বা নি:সঙ্গতায় পার্বত্য মুষিক দীর্ঘদিন বাঁচে বলে দাবি গবেষকদের। নতুন এক গবেষণায় বলা হয়েছে, অনেক স্তন্যপায়ী প্রানী আছে যারা সঙ্ঘবদ্ধ হয়ে সামাজিক জীবন যাপন করার মধ্যে দিয়ে অনেক দিন বেঁচে থাকে। আবার কিছু প্রানী আছে যারা বেঁচে থাকার জন্য যখন একা থাকার পরিবেশ না পায় তখনই তারা বিপন্ন হয় বা মরে যায়। আর এই নি:সঙ্গ বা একা থাকা প্রানীদের মধ্যে মুষিক একটি আদর্শ প্রানী।

গত বুধবার এক প্রতিবেদনে বলা হয়, লস এঞ্জেলস-এর দ্য ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার জীববিজ্ঞানি ড্যানিয়েল টি ব্লুমসস্টেইন ও তার সহকর্মী হলুদ শ্বেত বামনাকৃতির পার্বত্য মুষিকের উপর কলোরাডোয় দীর্ঘ ১৩ বছর গবেষণা করেন। গবেষণায় বলা হয়, যে সকল হলুদ শ্বেত মুষিক সামাজিক জীবনে ঝুঁকছে তারা খুব কম বয়সেই মারা যায়। আর যারা পারস্পারিক সংঘবদ্ধতা এড়িয়ে একা থাকতে পছন্দ করে তারাই বেশি দিন বাঁচে। ড. ব্লুমসস্টেইন বলেন, একা থাকা শ্বেত মুষিক দুই বছর বেশি আয়ু লাভ করে।

প্রসঙ্গত, শ্বেত মুষিক অন্য মুষিক-এর তুলনায় বৃহদাকার হয়ে থাকে। অনেকটা কাঠবিড়ালির মতো দেখতে। ধারালো দাঁত, ধারালো নখ ও লোমযুক্ত কান। এরা সামাজিক ভাবে নমনীয় স্বভাবের একটি প্রানী। শ্বেত মুষিক একাকী জীবন কাটাতে পছন্দ করেন। তবে হ্যাঁ আবাসস্থলের উপর নির্ভর করে দুটি শ্বেত মুষিক শান্তিপূর্ণভাবে একে অপরের সাথে থাকতে পারে। নিউ ইয়র্ক টাইমস

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত