প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘ইন্সপেক্টর নটি কে’ প্রত্যাখ্যান করছে দর্শক!

বিনোদন প্রতিবেদক : ভারতের ‘আনন্দবাজার পত্রিকা’র কথাই যেন সত্যি হলো। ‘বিনোদন নয়, শুধুই বিরক্তি’ শিরোনাম নিয়ে পত্রিকাটি লিখেছে, ‘পুলিশ ইন্সপেক্টরদের নিয়ে টালিউডে অনেক ছবি তৈরি হয়েছে। সেই তালিকায় একেবারে নিচের সারিতে থাকবে এই ছবি। কাহিনি দুর্বল তো বটেই, রোমান্টিক-কমেডি ছবির মজা কিংবা রোমান্স কোনোটাই প্রত্যাশা পূরণ করে না। বরং কমেডি তো কখনো কখনো বুমেরাং হয়ে দাঁড়ায়। ভাঁড়ামি দিয়ে কি দর্শকের মন জয় করা যায়?’

ওপার বাংলার মতো এপার বাংলাতেও দর্শক-খরায় পড়লো ইন্দো-বাংলার যৌথ প্রযোজনার সিনেমা ‘ইন্সপেক্টর নটি কে’। জিৎ এবং ফারিয়া জুটির তৃতীয় এই সিনেমাটি এটি। এর আগে এই জুটির ‘বাদশা’ ও ‘বস টু’ প্রত্যাশার চেয়ে বেশি ব্যবসা করলেও তাদের তৃতীয় সিনেমার ব্যবসায়িক ফলাফল যেন প্রত্যাশার চেয়েও অনেক বেশি নিচে অবস্থান করছে। সাধারনত যেকোনো সিনেমাই মুক্তির প্রথমদিন এবং দ্বিতীয় দিন ভাল ব্যবসা করে। দর্শকের উপচেপড়া উপস্থিতি লক্ষ করা যায়। কিন্তু ব্যতিক্রম দেখা গেল ‘ইন্সপেক্টর নটি কে’র ক্ষেত্রে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শুক্রবার প্রমুক্তি পেলেও দেশের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে ছবির প্রথম শোতে দর্শকের আগ্রহ মোটামুটি দেখা গেলেও দ্বিতীয় শো থেকে চিত্রটা পাল্টে যায়। মুখ ফিরিয়ে নেন দর্শক। কমেডির নামে অতিরিক্ত ভাঁড়ামিই এই ভরাডুবির কারণ বলে জানিয়েছেন অনেক দর্শক। তাছাড়া সিনেমার গল্প ও পোস্টার নকলের কারণে অনেক দর্শকই সিনেমাটি দেখার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে বলেও মন্তব্য করেছেন দর্শক। মধুমিতা প্রেক্ষাগৃহের কর্ণধার ও বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, ‘আমার প্রেক্ষাগৃহে প্রতিদিন পাঁচটি শো চলে। এর মধ্যে দুটি মোটেও ভালো যায়নি, বাকি তিনটি ভালোই গেছে।’

শ্যামলী প্রেক্ষাগৃহের ব্যবস্থাপক আহসানউল্লাহ বলেন, ‘একদিনের নোটিশে ছবিটি মুক্তি দেওয়া হয়েছে। কোনো প্রচার-প্রচারণা নাই, এভাবে তো ছবি চলবে না। তা ছাড়া ছবিটিও খুব আহামরি কিছু না।’ যশোরের মনিহার প্রেক্ষাগৃহের ব্যবস্থাপক তোফাজ্জল হোসেন বলেন, ‘ছবিটি নিয়ে আমাদের ব্যবসা আহামরি না। দর্শকের কোনো আগ্রহ দেখছি না। শুনেছি, কলকাতায় নাকি ছবিটি দর্শক পছন্দ করেনি।’

উল্লেখ্য, অশোক পতি পরিচালিত এই ছবিতে নুসরাত ফারিয়া, জিৎ ছাড়া আরও অভিনয় করেছেন চম্পা, শহিদুল আলম সাচ্চু, চিকন আলী, অনির্বাণ ভট্টাচার্য (কলকাতা) প্রমুখ। ছবিতে গান লিখেছেন প্রিয় চট্টোপাধ্যায় ও প্রাঞ্জল। সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন স্যাভি ও শুদ্ধ রায় আর গেয়েছেন রাজ রহমান, দেব নেগি, স্বীতা পণ্ডিত প্রমুখ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত