প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নালিতাবাড়ীতে তরুণীর মরদেহ পুঁতে রেখে ধানগাছ রোপণ

সানী ইসলাম, নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে রোকশানা বেগম (২২) নামে এক তরুণীর খণ্ডিত মাথা ও দেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার দুপুরে উপজেলার রাজনগর ইউনিয়নের সুরতখাল সংলগ্ন একটি আবাদি জমিতে পৃথক পৃথকভাবে পুঁতে রাখা অবস্থায় এ লাশ উদ্ধার করা হয়। রোকসানা ঝিনাইগাতী উপজেলার বনগাঁও পূর্বপাড়া গ্রামের সিরাজুল ইসলামের মেয়ে।

পুলিশ ও জনপ্রতিনিধি এবং এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রাজনগর ইউনিয়নের চাঁদগাও গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে মাসুদ নামে এক ব্যক্তি এক সন্তানের জননী রোকসানাকে কাজ দেওয়ার কথা বলে গত ১৭ জানুয়ারি নালিতাবাড়ীতে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসেন।

এর পর গত ১৭ জানুয়ারি মঙ্গলবার থেকে তাকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। হঠাৎ করেই বৃহষ্পতিবার সকালে সুরত খাল সংলগ্ন একটি জমিতে এক তরুণীর লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা ইউপি চেয়ারম্যানকে জানায়। ইউপি চেয়ারম্যান বিষয়টি পুলিশকে জানালে ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃতদেহের কোন সন্ধান পায়নি পুলিশ।

পরে এলাকাবাসী সুরতখালের পানি সেঁচে রাত ভর লাশের সন্ধান করতে থাকে। কিন্তু সেই খালের পাশে মাসুদের জমিদের রাতের মধ্যেই তড়িঘড়ি করে বোরো ধান রোপণ করা দেখে এলাকাবাসীর সন্দেহ হয়। তাই সকালে এলাকাবাসী তল্লাশি চালানোর পর জমির এক জায়গায় পুঁতে রাখা অবস্থায় খণ্ডিত মাথা ও আরেক জায়গায় শরীরের কিছু অংশ পায়। তবে হাত ও পা পাওয়া যায়নি।খবর পেয়ে রোকশানার মা পরিহিত জামা দেখে তার মেয়ের মৃতদেহ সনাক্ত করেন। এ ঘটানার পর থেকে অভিযুক্ত মাসুদ গা ডাকা দিয়েছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে।

রাজনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ বকুল বলেন, চাঁদগাঁও গ্রামের মাসুদ এলাকায় একজন চিহ্নিত অপরাধী। আমার ধারণা মেয়েটিকে কাজ দেওয়ার নাম করে বাড়িতে এনে তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। পরে লোকজন টের পেয়ে গেলে তার লাশ গুম করার জন্য টুকরো টুকরো করে বিভিন্ন জায়গায় পুঁতে রাখা হয়। মাথা ও শরীর উদ্ধার হলেও, হাত ও পা এখনও পাওয়া যায়নি।

এব্যাপারে সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) জাহাঙ্গির আলম জানান, লাশের হাত ও পা উদ্ধারের জন্য তল্লাশি অব্যাহত রয়েছে। এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত