প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সিলেট থেকে শিগগিরই বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী ট্রেন চালু

সোহেল রানা, মৌলভীবাজার : বাংলাদেশ-ভারত রেলওয়ে রুটের কুলাউড়া-শাহবাজপুর ডুয়েলগেজ রেললাইন পুনর্বাসনের কাজ আগামী ফেব্রুয়ারি মাসেই শুরু হচ্ছে। প্রায় আড়াই বছর সময় লাগবে এই রেললাইনের কাজ শেষ হতে।

কাজ সম্পন্ন হলে কুলাউড়া-শাহবাজপুর পর্যন্ত যাত্রীবাহী ট্রেনসহ এই রুটে ভারত-বাংলাদেশের পণ্যবাহী ট্রেন ছাড়াও মৈত্রী ট্রেন চালু হবে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আব্দুল হাই।

এতে প্রথমবারের মত সিলেট বিভাগ থেকে ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী ট্রেন চালু হবে। ট্রেন চালু হলে এরুট দিয়ে ভারতের আসামসহ অন্যান্য রাজ্যের সাথে বাংলাদেশের যোগাযোগ সহজ হবে। দীর্ঘদিন পর আবার নতুন রূপে ফিরবে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেল সেকশন।

মো. আব্দুল হাই বলেন, কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেল সেকশন পুনর্বাসন সংক্রান্ত চুক্তি, দরপত্রসহ সকল কাজ সম্পাদন হয়েছে।বনবিভাগকে রেললাইনের দু’পাশে লাগানো গাছ অপসারণের চিঠি দেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে সেগুলো অপসারণের কাজ শুরু করে দিয়েছে বনবিভাগ। তাছাড়া এই রুটে রেলওয়ের জমি জবর দখল করে গড়ে তোলা সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের লক্ষ্যে রেলওয়ের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে নোটিশ দেয়া হয়েছে। নিজ উদ্যোগে অবৈধ স্থাপনা সরানো না হলে অভিযান চালিয়ে একযোগে সব স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে। এখন শুধু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এবং শ্রমিক স্বশরীরে এসে কাজ শুরু করবে।

তিনি বলেন, এই রেললাইনের প্রকৃতি হবে ডুয়েল গেজ। তাই এটা ব্রডগেজ লাইনে রূপান্তরিত করা যাবে। তাছাড়া এই রুটে ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটার বেগে ট্রেন চলাচল করবে।

আরো জানান, ৫টি যাত্রীবাহী ট্রেন কুলাউড়া-শাহবাজপুর স্টেশন পর্যন্ত চলাচল করবে। এবং কুলাউড়া-শাহবাজপুর পর্যন্ত পৌঁছাতে সময় লাগবে ৪৫ মিনিট। এছাড়া এই রুট দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের মালবাহী ট্রেন চলাচলের পাশাপাশি ভারতের আসাম রাজ্যের সাথে বাংলাদেশের মৈত্রী ট্রেন চালু হবে। এর ফলে দীর্ঘদিন যাবৎ সাধারণ রেলওয়ে স্টেশন হিসেবে চালু থাকা কুলাউড়া স্টেশন পুনরায় আবার রেলওয়ে জংশন হিসেবে নতুন উদ্যোমে চালু হবে।

কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলসেকশন পুনর্বাসন প্রকল্পের পিডি (প্রকল্প পরিচালক) তানভিরুল ইসলাম বলেন, কুলাউড়া-শাহবাজপুর লাইন চালুর জন্য ভারতীয় প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বাংলাদেশ রেলওয়ে এবং ভারতের কালিন্দী রেল নির্মাণ লিমিটেড (টেক্সমাকো রেল অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিডেটের একটি বিভাগ)-এর সঙ্গে পুনর্বাসন চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। চুক্তি অনুযায়ী, ৫২ দশমিক ৫৪ কিলোমিটার রেলপথ পুনর্বাসন করা হবে।

তিনি আরও বলেন ,বাংলাদেশ রেলওয়ের কুলাউড়া-শাহবাজপুর সেকশন পুনর্বাসন প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৭৮ কোটি ৫০ লাখ ৭৯ হাজার টাকা। এর মধ্যে বাংলাদেশ সরকার দেবে ১২২ কোটি ৫২ লাখ ৩ হাজার টাকা এবং ভারতীয় লাইন অব ক্রেডিটের (এলওসি) মাধ্যমে সংস্থান হবে ৫৫৫ কোটি ৯৮ লাখ ৭৯ হাজার টাকা।

জানা যায়, এই রুটে রেলওয়ের ৪৪ দশমিক ৭৭ কিলোমিটার মেইনলাইন ও ৭ দশমিক ৭৭ কিলোমিটার লুপ লাইন পুনর্বাসন করা হবে। ছয়টি স্টেশন (চারটির ক্লাস-বি, দুটির ক্লাস-ডি) জুড়ী, দক্ষিণভাগ, কাঁঠালতলী, বড়লেখা, মুড়াউল ও শাহবাজপুর নতুন করে চালু হচ্ছে। ১৭টি বড় সেতু ও ৪২টি ছোট সেতু বা বক্স কালভার্ট নির্মাণ করা হবে।

প্রসঙ্গত, ১৮৯৬ সালের ৪ ডিসেম্বর রেলওয়ের কুলাউড়া-শাহবাজপুর সেকশন চালু করা হয়। ভারত-বাংলাদেশের যোগাযোগের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল এই পথটি। ১৯৫৮-৬০ সালে এই রেলপথটি পুনর্বাসন করা হয়। ২০০২ সালে ৭ জুলাই তৎকালীন বিএনপি সরকারে আমলে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথ বন্ধ হয়ে যায়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত