প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘রোহিঙ্গা ফেরত যাওয়ার পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি, বলে প্রভাবিত করছে বিভিন্ন সংস্থা, এনজিও, মানবধিকার গোষ্ঠী’(ভিডিও)

কেএম হোসাইন : সাবেক রাষ্ট্রদূত অনুপ কুমার চাকমা বলেন, প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার ব্যাপারে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর উদ্বেগ আশঙ্কার প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আমরা বলছি। এ সমস্যা সমাধান যদি করতে চাই। তাহলে তাদের রাখাইন রাজ্যে ফেরত যেতে হবে। সেখঅনে গিয়ে তাদের দাবি আদায় করতে হবে। ফেরত গেলে সমস্যাটি দ্রুত সমাধান হবে।

ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের নিয়মিত অনুষ্ঠান এডিটরস পিকে তিনি একথা বলেন।

রোহিঙ্গ প্রত্যাবাসন প্রসঙ্গে অনুপ কুমার চাকমা বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে আমরা ক’দিন ধরে পর্যবেক্ষণ করছি। রোহিঙ্গা সঙ্কট সামাধানে আমরা মিয়ানমার সরকারের সাথে আলোচনা করে চুক্তি করেছি। তাদেরকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো যায় কিভাবে। তারা যাতে কোন রকম নির্যাতনের শিকার না হয়। সেইভাবে চুক্তি সম্পন্ন করেছি। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু চেষ্টা করছি। রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর আগে আমরা বিভিন্ন সংস্থা ও মানবধিকার সংগঠন, এজিও থেকে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা প্রকাশ করছে। এখানো মিয়ানমারে রোঙ্গিদের ফেরত যাওয়ার পরিবেশ ঠিক হয়নি, তাদের যাওয়া ঠিক হবে না। এসব সংস্থা ও মানবধিকার সংগঠনগুলো তাদের বুঝাতে চাচ্ছে । তারা যেনো সেচ্ছায় না যায়। তাদের প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে। রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন শুরুর আগে আবার আকসা হামলা চালালো। মিয়ানমার সীমানায় আবার গুলির শব্দ। এটা যে একটা চক্রান্তের মাধ্যমে হচ্ছে বুঝায় যাচ্ছে। কে বা কারা করছে সেটা বের করতে হবে। যাতে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বিলম্বিত হয় সেজন্য এমনটি করা হচ্ছে।

প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার ব্যাপারে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর উদ্বেগ আশঙ্কার প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আমরা বলছি। এ সমস্যা সমাধান যদি করতে চাই। তাহলে তাদের রাখাইন রাজ্যে ফেরত যেতে হবে। সেখঅনে গিয়ে তাদের দাবি আদায় করতে হবে। ফেরত গেলে সমস্যাটি দ্রুত সমাধান হবে। আর যদি না যায়। এখানে থেকে তারা তাদের দাবি আদায় করতে চাই সমস্যা সমাধান প্রক্রিয়া দীর্ঘ হবে। রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে শুধু আন্তর্জাতিক বিশ্ব উদ্বেগ প্রকাশ করছে। কার্যত কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না। এটা আমাদের বিবেচনায় রাখতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত