প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চীনকে মোকাবেলায় আসিয়ান দেশগুলোর সঙ্গে সামুদ্রিক সম্পর্ক চায় ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চীনের প্রভাব রয়েছে এমন একটি অঞ্চলে সামুদ্রিক নিরাপত্তা জোরদার করতে দক্ষিণ এশিয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা (আসিয়ান)’র নেতাদের নিয়ে দিল্লিতে শীর্ষ সম্মেলনের আয়োজন করেছে ভারত।

কর্মকর্তা ও কূটনীতিকরা জানান, বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি)-এর এই সম্মেলনের মাধ্যমে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর সঙ্গে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করতে ভারত তার ‘এ্যাক্ট ইস্ট’ নীতি এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছে। কিন্তু দক্ষিণ এশিয়ার দেশটির এই প্রচেষ্টা কতদূর এগুবে তা নিয়ে অনেকেই সন্দিহান। কারণ, আসিয়ানের সঙ্গে চীনের বাণিজ্য ভারতের চেয়ে অন্তত ছয় গুণ বেশি। ২০১৬-১৭ সালে ভারতের বাণিজ্যের পরিমাণ ছিলো মাত্র ৪৭০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

দক্ষিণ এশিয়াতেও উপস্থিতি বাড়াচ্ছে চীন। ভারতের বলয়ে থাকা দেশগুলোতে গড়ে তুলছে বন্দর, বিদ্যুৎকেন্দ্র। ফলে নতুন মিত্রের খোঁজে যেতে ভারত বাধ্য হয়েছে।

শুক্রবার (২৬ জানুয়ারি) ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবস। এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আসিয়ানের ১০ দেশের নেতাদের প্রধান অতিথি করে নিয়ে এসেছেন। এটাই ভারতে বিদেশী নেতাদের এ যাবতকালের সবচেয়ে বড় সমাবেশ। তাদেরকে দেখানো হবে দেশটির সামরিক শক্তি ও সংস্কৃতির বৈচিত্র।

ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয় যে, নেতৃবৃন্দের মধ্যে মিয়ানমারের অং সাং সু চি, ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো এবং ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রোদ্রিগো দুতার্তের সঙ্গে মোদির সামুদ্রিক সহযোগিতা ও নিরাপত্তা নিয়ে কথা হবে।

ভারত ও দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলো নৌচলাচলের স্বাধীনতা ও উন্মুক্ত সমুদ্রপথের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে। ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সচিব প্রীতি শরন জানান যে সিঙ্গাপুর, ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ার সঙ্গে ভারতের জোরদার নৌসহযোগিতা রয়েছে।

শরন বলেন, বর্তমানে দ্বিপক্ষীয় ভিত্তিতে যুদ্ধজাহাজের সফর বিনিময়, যৌথ টহল ও যৌথ মহড়ায় অংশগ্রহণ ভালোভাবেই চলছে।

কিন্তু দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার বেশির ভাগ দেশের ভূখণ্ডগত বিরোধ রয়েছে চীনের সঙ্গে। তারা এই অঞ্চলে ভারতের বেশি অংশগ্রহণ চায় বলে বিশেষজ্ঞরা জানান।

মোদি সরকারের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত দিল্লির প্রভাবশালী বিবেকানন্দ ইন্টারন্যাশনাল ফাউন্ডেশনের প্রধান অরবিন্দ গুপ্ত বলেন, গত কয়েক বছর ধরে দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের প্রচ্ছন্ন আধিপত্যবাদি মনোভাব এবং ক্রমশ জেদপূর্ণ আচরণ আসিয়ানকে ভারসাম্য প্রতিষ্ঠার জন্য ভারতের দিকে তাকাতে বাধ্য করেছে।

কিন্তু দক্ষিণ চীন সাগরের বিরোধে জড়িয়ে পড়লে চীনের কাছ থেকে পাল্টা আঘাতের আশংকা করছে ভারত।

বৃহস্পতিবারের রুদ্ধদ্বার বৈঠকে ভারত ও আসিয়ান নেতারা যেসব বিষয় আলোচনা করবেন তার একটি হলো, মালয়েশিয়া ও সিঙ্গাপুরের মধ্যে মালাক্কা প্রণালীতে তাদের নৌবাহিনীগুলোর তৎপরতা বাড়ানো। বিশ্বের সবচেয়ে ব্যস্ত আন্তর্জাতিক শিপিং লাইন হিসেবে বিবেচনা করা হয় এই প্রণালীকে।-রয়টার্স।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত