প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সঙ্গীত ভ্রমণ চুকিয়ে দেবেন এলটন জন

কামরুল আহসান : জীবনের সর্বশেষ বিশ্বভ্রমণের ঘোষণা দিলেন বিশ্ববিখ্যাত ব্রিটিশ সংগীতশিল্পী স্যার এলটন জন। আগামী ৩ বছরে তিনি এ সফর শেষ করবেন। পরিবার, বয়স ও সন্তানদের কথা ভেবেই তিনি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।
সংবাদ মাধ্যমকে এলটন জন বলেন, এ সিদ্ধান্ত আমি ২০১৫ সালেই নিয়েছি। ১৭ বছর বয়স থেকে সংগীত নিয়ে আমি পৃথিবী ভ্রমণ শুরু করেছিলাম। এখন তার ইতি টানতে চাচ্ছি। তা নিয়ে তেমন দুঃখও নেই। যথেষ্ট হয়েছে। আমি এখন ক্লান্ত। আমার ভক্তদের বিদায় জানানোর সময় হয়েছে। ‘গুডবাই ইয়োলো ব্রিক রোড’ দিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলাম, ‘ফেয়ারওয়েল ইয়োলো ব্রিক রোড’ দিয়ে আমার ভ্রমণ শেষ করবো। এ ট্যুরের নাম দেয়া হয়েছে ‘ফেয়ারওয়েল ইয়োলো ব্রিক রোড’।
এলটন জনের এ খবর শুনে ভক্তদের মধ্যে সাড়া পড়ে গেছে। ভক্তরা সমানে টুইট করছেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজেদের ভালোবাসা প্রকাশ করছেন প্রিয় এ শিল্পীর প্রতি। কেউ-বা জানাচ্ছেন, এ-ই শেষ সুযোগ, সামনে থেকে তার গান শোনার। যেভাবেই হোক টিকিট যোগাড় করতে হবে। কোনোভাবেই তা মিস করা যাবে না।
ধারণা করা হচ্ছে তার এবারের সব কনসার্ট অনিবার্যভাবেই ইতোপূর্বের সমস্ত রেকর্ড ছাপিয়ে যাবে। টিকিটের দাম হবে আকাশছোঁয়া আর তা নিশ্চিতভাবেই খুব ব্যবসাসফল হবে।
স্যার এলটন জন, সর্বকালের সর্বাধিক বিক্রিত এল্যাবামের একজন সংগীতশিল্পী। গত পাঁচ দশকে তার রেকর্ড বিক্রি হয়েছে ৩০০ মিলিয়নের ওপর। পাঁচবার পেয়েছেন গ্র্যামি এওয়ার্ড। প্রিন্সেস ডায়নার শেষকৃত্যে গান গেয়েছিলেন, ক্যানডেল ইন দ্যা উইন্ড ১৯৯৭ সালে। সংগীতে অবদান রাখার জন্য ১৯৯৫ সাল অর্জন করেন ব্রিটেনের সর্বোচ্চ রাজকীয় খেতাব ‘কমান্ডার অব দ্য অর্ডার অব দ্য ব্রিটিশ এম্পেয়ার (সিবিই)।
সেক্রেফাইস গানের জন্যই তিনি সবচেয়ে বেশি পরিচিত। বর্তমানে তার বয়স ৭০। তিনি একজন উভকামী। ২১০৪ সালে তিনি বিয়ে করেন চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজন ডেভিড ফার্নিশকে। সংবাদ সম্মেলনে এলটন জন জানালেন, স্বামীর সঙ্গে পরামর্শ করেই তিনি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তার স্বামী চান না তিনি আর পৃথিবী ঘুরে বেড়ান। সন্তানদের দিকে মনোযোগ দিতে হবে। তা ছাড়া বয়সও হয়ে গেছে। গত বছরই অসুস্থতার জন্য তাকে কয়েকটি অনুষ্ঠান বাতিল করতে হয়। বিবিসি, সিএনএন, উইকিপিডিয়া

সর্বাধিক পঠিত