প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিএনপি মহাসচিবের প্রশ্ন
খালেদা জিয়ার মামলার রায় কি পূর্বেই নির্ধারিত ?

মাঈন উদ্দিন আরিফ: বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রশ্ন রেখে বলেছেন, বিগত কয়েক দিনে সরকারের মন্ত্রী, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এই অবৈধ সরকারের বিশেষ দূত হোসেইন মোহাম্মদ এরশাদ বলেছেন-অল্প কিছুদিনের মধ্যেই বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে যেতে হবে। তাহলে আমাদের প্রশ্ন বেগম খালেদা জিয়ার মামলার রায় কি পূর্বেই নির্ধারিত?

তিনি বলেন, এই অবৈধ সরকার পূর্বেই রায় লিখে রেখেছেন। তবে এই বিচারের প্রহসনের কোনও প্রয়োজন ছিল না। দেশে যে আইনের শাসন নেই, ন্যায় বিচার সুদূর পরাহত সেটাই প্রমাণিত হলো। বিচার হবে প্রধানমন্ত্রী যা চাইবেন তাই। এখন পর্যন্ত এই বক্তব্যের জন্য যা আদালত অবমাননার সামিল তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

দেশে সামরিক শাসনের অধীনে সামরিক আদালতে খালেদা জিয়ার বিচারকার্য চলছে বলে  মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, সর্ববৃহৎ রাজনৈতিক দলের প্রধান ও তিনবার নির্বাচিত সাবেক প্রধানমন্ত্রী, দুইবারের বিরোধী দলের নেতাকে নির্বাচন থেকে দুরে রাখার জন্য ২৪টি মিথ্যা মামলা দিয়েছে। তার মধ্যে দু’টো মিথ্যা মামলার বিচার প্রক্রিয়া প্রায় শেষ পর্যায়ে নিয়ে এসেছে-সপ্তাহে তিন দিন দেশনেত্রীকে আদালতের হাজির হওয়ার নজীরবিহীন নির্যাতন, তারিখে তারিখে জামিন দেওয়ার নজীরবিহীন আদেশ সমগ্র বিচার প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। এটা স্পষ্ট যে এই সরকার বেগম জিয়াকে ভয় করে তাই তাকে রাজনীতি থেকে দুরে রাখতে চায়।

ফখরুল বলেন, গত কয়েক সপ্তাহ যাবৎ সারাদেশে নতুন করে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের ব্যাপকহারে গ্রেফতার করা হচ্ছে এবং মিথ্যা মামলা দিয়ে নির্যাতন শুরু করেছে। একই সাথে ক্রসফায়ার এবং গুমের ঘটনা বেড়ে চলেছে। এই বৎসর নির্বাচনের বৎসর। সুষ্ঠু এবং অবাধ নির্বাচনের জন্য যখন সব রাজনৈতিক দলকে সমান সুযোগ সমান্তরাল মাঠ তৈরী করার প্রয়োজন বেড়ে চলেছে, তখন এই ধরণের ক্রসফায়ার, গুম, খুন, গ্রেফতার মিথ্যা মামলা, দমন, নির্যাতন অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের সকল সম্ভাবনাকে নস্যাৎ করে দিচ্ছে। এই অনৈতিক সরকার পরিকল্পিতভাবে এই মিথ্যা মামলা ও গ্রেফতার, ক্রসফায়ার ও গুমের মধ্য দিয়ে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে নির্বাচন থেকে দুরে সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে।

তিনি বলেন, ভোটারবিহীন নির্বাচনে স্বঘোষিত সরকার আবারও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার লক্ষ্যে নির্বাচনের পূর্বেই বিরোধী দলকে মাঠ থেকে দুরে সরিয়ে দেওয়ার হীন চক্রান্ত করছে।

ফখরুল আরো বলেন, অবৈধ সরকার মিথ্যা মামলা দায়ের, গ্রেফতার, গুম, খুনকে ক্ষমতায় টিকে থাকার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই এবং অবিলম্বে দেশনেত্রীর মামলা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানাচ্ছি। একই সঙ্গে সকল বিরোধী দলের সকল নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানাচ্ছি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাড. রুহুল কবির রিজভী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুল হাই, সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, মুনির হোসেন প্রমুখ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত