প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারতের অধিকাংশ মুসলিমের পূর্বপুরুষ ছিলেন হিন্দু : ইরফান

মাছুম বিল্লাহ : ভারতে যে যেখানেই থাকে সবাই হিন্দু, রীতি-রেওয়াজ, সংস্কৃতি বা উপসনার পদ্ধতিতে ভিন্নতা থাকলেও প্রতিটি মানুষই আসলে হিন্দু। দেশটির রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ-আরএসএসের প্রধান মোহন ভাগবতের এই যুক্তিকে পূর্ণ সমর্থন করেন বিজেপির সংখ্যালঘু মোর্চার উপ-সভাপতি মুহাম্মাদ ইরফান আহমেদ। তিনি বলেন, ভারতে অধিকাংশ মুসলিমই ধর্মান্তরিত। অধিকাংশ মুসলিমের পূর্বপুরুষ হিন্দুই ছিলেন। মুসলিম ধর্ম প্রচারকদের প্রতি আকৃষ্ট হয়েই ধর্মান্তরিত হয়েছেন তারা।

বুধবার ভারতের একটি দৈনিকে প্রকাশিত এক সাক্ষাতকারে তিনি এ দাবি করেন।

ইরফান আহমেদ বলেন, ‘আমার পূর্বপুরুষ হিন্দুই ছিলেন। এই সত্যটা মানতে কোনও আপত্তি নেই। থাকারও কথা নয়। আরএসএস প্রধানের মন্তব্যে গর্ববোধ করি। কেননা তার কথায় সত্যতা রয়েছে। তাই দেশের অধিকাংশ মুসলিম যে আসলে হিন্দু, এই কথা বলতে দ্বিধা নেই। হিন্দু-মুসলমান বলে কিছুই নেই, বর্তমানে হিন্দুস্থানি হওয়াটাই হল আসল কথা।’

বিজেপির আমলে ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে গরুর মাংস, লাভ জেহাদের সূত্র ধরে বেশ কয়েকজন নিরীহের নৃশংস হত্যা নিয়ে হিন্দুত্ব ভাবধারায় বিশ্বাসী আহমেদ বলেন, এসব ঘটনায় প্রকৃত হিন্দু ভাবধারায় বিশ্বাসী কোনও সংগঠনের হাত নেই। হিন্দুদের স্বার্থে কাজ করে যাওয়া প্রকৃত সংগঠনগুলিকে বদনাম করার লক্ষ্যেই কিছু নকল হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের নিকৃষ্ট ষড়যন্ত্র চলছে। তবে এসব ঘটনার পর চুপচাপ বসে নেই কেন্দ্রীয় সরকার। যাদের বিরুদ্ধে প্রধান পাওয়া গেছে যাদের বা সেসব সংগঠনের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার এবং ভবিষ্যতেও একই পথে চলবে। কেননা এমন ঘটনা নিয়ে রাজনীতিতে বিশ্বাসী নয় বিজেপি বা মোদি সরকার। কারণ বিজেপির চোখে হিন্দু-মুসলমান সবাই সমান। ঠিক উল্টোটাই হল কংগ্রেসের ক্ষেত্রে। মুসলমান তোষণই হল কংগ্রেসের একমাত্র উদ্দেশ্য।

মোদি সরকারের আমলে মুসলিমরা ভীত, সন্ত্রস্ত বা আদৌ সুরক্ষিত নয়, এ ধরণের বিতর্ক বা প্রচার ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে আহমদ বলেন, ধর্মীয় সংখ্যালঘু জনগণ আগের চেয়ে এখন অনেকটাই সুরক্ষিত। কারণ মুসলমানদের নিয়ে বিজেপির কোনও গোপন এজেন্ডা নেই। ঠিক উল্টোই কয়েক দশক শাসনকালে যা করে গেছে কংগ্রেস। মুসলিমদের আবেগ-অনুভূতি নিয়ে নোংরা রাজনীতি করেছে তারা। সেঙ্গ ভোট ব্যাঙ্কের রাজনীতি তো আছেই তাদের। যার জন্য গত কয়েক দশকে মুসলমানদের কোনও উন্নতি হয়নি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত