প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আরও বেশি যুক্ত করতে হবে’

আশিক রহমান : রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কিছুটা অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। যে অনিশ্চয়তাটা এখন রয়েছে তা দীর্ঘায়িত বা একেবারে ভেস্তে যাবে কিনা এখনো বলা যাচ্ছে না। কারণ কতগুলো অগ্রগতি তো হয়েছিল। ফিজিক্যাল অ্যারেঞ্জমেন্ট বা প্রত্যাবাসনে একটা টাইম লাইন দেওয়া তো অগ্রগতির অংশই। তবে রোহিঙ্গা ইস্যুটা যে কতটা চ্যালেঞ্জিং, কতটা জটিল তা আমরা জানি। ফলে সমস্যা সমাধানে মিয়ানমারের সহযোগিতা ভীষণ দরকার। আমাদের অর্থনীতির সঙ্গে আলাপকালে এমন মন্তব্য করেছেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক অধ্যাপক ড. দোলোয়ার হোসেন।

তিনি বলেন, আগে থেকে নির্ধারিত সময়ে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু না হওয়ার ফলে যে দেরিটা হচ্ছে তা দীর্ঘায়িত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু সংকটা যদি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ভালোভাবে যুক্ত করা যেত তাহলে অনেক বেশি ইফেক্টিভ হতো। যেমন বাংলাদেশ এখন বলছে, জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর-এর সঙ্গে একটা চুক্তি করবে। এটা ভালো উদ্যোগ। এরকম আরও কিছু ব্যবস্থা নিয়ে যদি আবারও শুরু করা যায় সেটা অনেক বেশি কার্যকর হবে।

তিনি আরও বলেন, সমস্যা সমাধানে মিয়ানমার সহযোগিতার মনোভাব দেখাবে, তা পুরোপুরি আস্থায় আনতে পারি না। আনার কোনো সুযোগই নেই। কারণ তারা অতীতেও এরকম আচরণ (অসহযোগিতা) করেছে। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে মিয়ানমারের সহযোগিতা ছাড়া কোনোকিছু শুরুও করা যাবে না। আবার কূটনৈতিক প্রক্রিয়াতে আগে থেকে নেতিবাচক ভাবনা বাস্তবসম্মতও নয়। ফলে বাংলাদেশকে কূটনৈতিক তৎপরতা আরও বৃদ্ধি করতে হবে। মিয়ানমারের উপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়াতে হবে, যাতে তারা বাধ্য হয় নিজেদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নিতে। ভেরিফিকেশনের ব্যাপারটা যেন তারা কোনো সুযোগ হিসেবে না নিতে পারে কিংবা এটা ইস্যু করে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় দীর্ঘসূত্রিতা করতে না পারে।

এক প্রশ্নের জবাবে ড. দোলোয়ার হোসেন বলেন, দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে যে অগ্রগতি হয়েছে তা ধরে রেখে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আরও বেশি যুক্ত করা। মনে রাখতে হবে যে, সমস্যাটা বাংলাদেশ তৈরি করেনি, তাদের হাতেও তা নেই। বাংলাদেশ এখানে স্টেকহোল্ডার। সব সমস্যা তো বাংলাদেশ একা সমাধান করতে পারবে না। কিন্তু এটা তো একটা আন্তর্জাতিক ইস্যু। তাই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আরও বেশি যুক্ত করে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা অনেক বেশি ফলপ্রসূ হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত