প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘তিন বাহিনীতে আধুনিক যুদ্ধ সরঞ্জাম যুক্ত করা হচ্ছে’

আসাদুজ্জামান সম্রাট : আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমানবাহিনীতে যুক্ত করা হচ্ছে আধুনিক যুদ্ধ সরঞ্জাম। মঙ্গলবার সংসদে প্রশ্নোত্তরে এ তথ্য জানান সংসদ কার্যে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী আনিসুল হক।

সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি নুরজাহান বেগমের প্রশ্নে তিনি বাহিনীগুলো নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথাও তুলে ধরেন। পাশাপাশি তিন বাহিনীতে এরইমধ্যে যেসব আধুনিক সরঞ্জাম দেয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

সেনাবাহিনী নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার তথ্য তুলে ধরে মন্ত্রী জানান, আগামী ২ অর্থবছরে সিলেট সেনানিবাসে ১১টি ইউনিট/সদর দপ্তর গঠন করা হবে। পরবর্তী তিন অর্থ বছরে রামু সেনানিবাসে গঠন করা হবে ১৪টি ইউনিট/সদা দপ্তর। ২০২৫ সাল নাগাদ মোট ৫৬টি ইউনিট/সদর দফতর গঠন করার কথা উল্লেখ করেন মন্ত্রী।

তিনি জানান, কিশোরগঞ্জ জেলার মিঠামাইন উপজেলায় সেনানিবাস গঠনের লক্ষ্যে প্রাথমিকভাবে একটি আরই ব্যাটালিয়ন গঠনের প্রস্তাবনা প্রক্রিয়াধীন। এছাড়া সেনাবাহিনীতে স্বতন্ত্র আর্মস হিসেবে স্পেশাল ফোর্স গঠনের লক্ষ্যে ১টি সদর দপ্তর প্যারা কমান্ডো ব্রিগেড এবং ১টি প্যারা কমান্ডো ব্যাটালিয়ন গঠনের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

প্রশ্নোত্তরে নৌবাহিনীর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরে মন্ত্রী জানান, ইতিমধ্যে নৌবাহিনী পরিচালিত চট্রগ্রাম ড্রাইডক লিমিটেড (সিডিডিএল) এ বৈদেশিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে ফ্রিগেট নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বিশাল সমুদ্র এলাকা টহলের জন্য ৬টি ফ্রিগেট নির্মাণের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

মন্ত্রী জানান, নৌবাহিনীর ভবিষ্যৎ সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য আরও ২টি ফ্রিগেট,এমসিএমভি,সাবমেরিন রেসকিউ ভেসেল,লজিস্টিক শিপ, প্যাট্রোল ক্রাফট, ওশান টাগ, ফ্লোটিং ডক ইত্যাদি কেনা পরিকল্পনাধীন রয়েছে।

বিমানবাহিনীর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা প্রসঙ্গে মন্ত্রী জানান, নিরাপদ ও ঝুঁকিমুক্ত বিমান উড্ডয়ন ও অবতরনের জন্য বিমান বাহিনী ঘাঁটি বাশার,জহুরুল হক,বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান এবং অগ্রবর্তী ঘাঁটি কক্সবাজারে ৪টি এটিএস র‌্যাডার স্কোয়াড্রন স্থাপন করার পরিকল্পনা গ্রহন করা হয়েছে। এসব র‌্যাডার স্কোয়াড্রনের সংস্থাপন প্রস্তাবগুলো ২০১৫ সালের ১২ এপ্রিল অনুমোদিত হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত