প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নির্ধারিত ফরমে করা হয়নি আবেদন
এসকে সিনহার পেনশনের টাকা আটকে আছে

ডেস্ক রিপোর্ট : নির্ধারিত ফরমে আবেদন না করায় আপাতত পেনশনের টাকা পাচ্ছেন না সদ্য পদত্যাগী প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা। পদত্যাগ করার পর অবসরকালীন সুবিধা বা পেনশনের টাকা চেয়ে তিনি যে চিঠি লিখেছেন তা বিধিসম্মত হয়নি। নিজস্ব ছাপানো প্যাডে লেখা আবেদন সুপ্রিমকোর্ট প্রশাসনে পাঠানোয় তা গৃহীত হয়নি। তবে তাকে ১২ মাসের বেতনের (নগদায়ন) অনুমোদন দিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা। সুপ্রিমকোর্টের প্রশাসনিক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, অবসরকালীন সুবিধা (পেনশন) চেয়ে নিজের হাতে লেখা চিঠিটি এসকে সিনহা ১৭ ডিসেম্বর ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা বরাবরে পাঠিয়েছেন। চিঠিতে বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞাকে ‘ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি’ হিসেবে সম্বোধন করে এসকে সিনহা লিখেছেন, ‘আমি প্রধান বিচারপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেছি, যা ১১ নভেম্বর থেকে কার্যকর হয়েছে। আইন অনুযায়ী প্রধান বিচারপতি হিসেবে অবসরকালীন যেসব প্রাপ্য রয়েছে তা পাওয়ার অধিকারী আমি। যেদিন থেকে আমার অবসরকালীন দিন শুরু হয়েছে সেদিন থেকে আমার প্রাপ্য বুঝিয়ে দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ করছি।’ ডাকযোগে চিঠিটি পাঠানো হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সুপ্রিমকোর্টের এক কর্মকর্তা যুগান্তরকে বলেন, প্রধান বিচারপতিকে পেনশনের টাকা পেতে হলে নিয়ম অনুযায়ী নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। সেটি প্রথমে আইন মন্ত্রণালয় হয়ে প্রধানমন্ত্রীর দফতরে যাবে। এরপর সেটি রাষ্ট্রপতি চূড়ান্ত অনুমোদন দেবেন। তিনি বলেন, কোনো বিচারপতি অবসরে যাওয়ার পর ১২ মাসের বেতন (নগদায়ন) পেয়ে থাকেন। সেটি এসকে সিনহাও পাবেন। ৯ জানুয়ারি এসকে সিনহার ১২ মাসের বেতন বাবদ ১৩ লাখ ২০ হাজার টাকা অনুমোদন দিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি।

১৯৯৯ সালের ২৪ অক্টোবর এসকে সিনহা হাইকোর্ট বিভাগে বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পান। নিয়ম অনুযায়ী একজন বিচারপতির চাকরির মেয়াদ আট বছর পূর্ণ হলে অবসরকালীন সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকেন। আপিল বিভাগে বিচারপতি হিসেবে ২০০৯ সালের ১৬ জুলাই এসকে সিনহা নিয়োগ পান। সুপ্রিম কোর্টে তিনি ১৮ বছর চাকরি করেছেন। ছুটি নিয়ে দেশত্যাগের পর সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশের হাইকমিশনের মাধ্যমে ১০ নভেম্বর রাষ্ট্রপতি বরাবর তিনি পদত্যাগপত্র জমা দেন। ১৪ নভেম্বর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেন। যুগান্তর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত