প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘আমেরিকা সর্বাগ্রে’ নীতিতে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন শুল্ক আরোপ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ‘আমেরিকা সর্বাগ্রে’ বাণিজ্য নীতির আলোকে দেশীয় পণ্যের বাজার সুরক্ষায় ওয়াশিং মেশিন ও সোলার প্যানেল আমদানির ওপর নতুন করে  শুল্ক আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

এ শুল্ক নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। চীন ও দক্ষিণ কোরিয়া এর তীব্র সমালোচনা করেছে। এ পদক্ষেপে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হবে চীন ও দক্ষিণ কোরিয়া।

ট্রাম্প সোমবার শুল্কারোপের প্রস্তাব অনুমোদন করেন। বিদেশি পণ্যের প্রতিযোগিতার মুখে ওই দুই পণ্যের মার্কিন নির্মাতাদের জন্য বাজার উন্মুক্ত রাখতে ট্রাম্প প্রশাসন এ বিতর্কিত পদক্ষেপ নিয়েছে।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার শুরু থেকেই এ ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে কথা বলে আসছিলেন। এক বছর আগে প্রেসিডেন্সির উদ্বোধনী বক্তব্যেও ট্রাম্প মার্কিন কোম্পানিগুলোকে বিদেশি প্রতিযোগিতা থেকে রক্ষার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন।

হোয়াইট হাউজের এক মুখপাত্র বলেছেন, ট্রাম্প প্রশাসন ‘সবসময়ই আমেরিকার শ্রমিক, কৃষক, খামারি ও ব্যবসায়ীদের সুরক্ষা দেবে’।

‘অপেক্ষাকৃত সস্তায় আমদানি পণ্য পাওয়া যাওয়ায় স্থানীয় উৎপাদকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন’- যুক্তরাষ্ট্রের ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড কমিশনের (আইটিসি)- এমন প্রতিবেদনের পর ট্রাম্প বিদেশি পণ্যে অধিক শুল্ক বসানোর ওই প্রস্তাব অনুমোদন করেন।

আইটিসি’র প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশেষ করে চীন ‘কৃত্রিমভাবে কম দামে’ যুক্তরাষ্ট্রে সোলার প্যানেল ও যন্ত্রাংশ বিক্রি করে এবং এজন্য চীনা সরকার থেকে ভর্তুকি দেওয়া হয়।

রয়টার্স জানায়, যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক কোম্পানি ওয়ার্লপুল এবং সোলার ফার্ম সানিভা ও সোলার ওয়ার্ল্ড আমেরিকা আইটিসি’র কাছে অভিযোগ করার পর প্রতিষ্ঠানটি ওই প্রতিবেদন দেয়।

সোলার প্যানেল আমদানির ক্ষেত্রে যে শুল্ক আরোপ করা হয়েছে, তা যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরীন উৎপাদকদের প্রত্যাশার চেয়ে কম হলেও ওয়াশিং মেশিন ও এর যন্ত্রাংশের ক্ষেত্রে তা অনেক বেশি, ক্ষেত্রবিশেষে তা ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

নতুন শুল্ক হারঃ

নতুন নিয়মে এবছর আবাসিক ভবনগুলোতে ব্যবহৃত ওয়াশিংমেশিনের ক্ষেত্রে প্রথম ১২ লাখ পিসের জন্য ২০ শতাংশ হারে শুল্ক দিতে হবে। তারপর এর চেয়ে বেশিসংখ্যক মেশিন আমদানির ক্ষেত্রে শুল্কের পরিমাণ ৫০ শতাংশ হয়ে যাবে।

তিন বছর পর শুল্কের হার যথাক্রমে ১৬ শতাংশ এবং ৪০ শতাংশে নেমে আসবে।

২০১০ সালের একটি জরিপ অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্র প্রতিবছর ১৬ লাখ পিস ওয়াশিংমেশিন আমদানি করে।

অন্যদিকে, সোলার প্যানেল আমদানিতে প্রথম বছর ৩০ শতাংশ হারে শুল্ক দিতে হবে। চার বছর পর যা কমে ১৫ শতাংশ হবে।

সূত্র :  বিডি নিউজ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত