প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রশিকার কাজী ফারুকের কারাদণ্ড

এস এম নূর মোহাম্মদ : আদালতের আদেশ অমান্য করায় প্রশিকা মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্রের সাবেক চেয়ারম্যান ড. কাজী ফারুক আহমদকে একমাসের দেওয়ানি কারাদণ্ড দিয়েছেন হাইকোর্ট। সেইসঙ্গে সংস্থাটির বর্তমান চেয়ারম্যানকে কার্যালয় বুঝিয়ে দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া আদালতের আদেশ বাস্তবায়নের বিষয়ে ১৫ দিনের মধ্যে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করতে বলেছেন আদালত। এমএ ওয়াদুদ ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলামের করা আবেদনের ওপর শুনানি শেষে মঙ্গলবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়ার একক বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এর আগে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ২০০৯ সালের ২৪ মে সংস্থাটির গভর্নিং বডি চেয়ারম্যান পদ থেকে কাজী ফারুককে অপসারণ করে এমএ ওয়াদুদকে চেয়ারম্যান করা হয়। এ সিদ্ধান্তের পরদিনই অপসারণের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সহকারি জজ আদালতে মামলা করেন কাজী ফারুক। সেইসঙ্গে ওয়াদুদের কমিটির ওপর নিষেধাজ্ঞা চাওয়া হয়। তবে ওই আবেদন খারিজ করে দেন আদালত। এরপর জজ আদালতে আবেদন করেন তিনি। সেখানেও খারিজ হলে হাইকোর্টে আবেদন করেন কাজী ফারুক। হাইকোর্ট নিম্ন আদালতে বিচারাধীন মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত উভয়পক্ষকে স্থিতাবস্থা বজায় রাখার আদেশ দেন। এছাড়া প্রশিকা ভবনে কোনো সমাবেশ বা র‌্যালী না করতে কাজী ফারুকের প্রতি নির্দেশ দেওয়া হয়।

এদিকে হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে কাজী ফারুক আপিল বিভাগে আবেদন করলে তা খারিজ হয়। এরপর ২০১২ সালে আবার প্রশিকা ভবনে অবস্থান নেন কাজী ফারুক। পরবর্তীতে কাজী ফারুকের বিরুদ্ধে ২০১৬ সালের ১০ জানুয়ারি আদালত অবমাননার মামলা করেন এমএ ওয়াদুদ। আবেদনে কাজী ফারুকের বিরুদ্ধে প্রশিকা ভবনে প্রবেশ করে চেয়ারম্যানের কার্যালয় দখল করে নেওয়ার অভিযোগ করা হয়। শুনানি করে আদালত কাজী ফারুকের বিরুদ্ধে রুল জারি করেন। রুলে কাজী ফারুককে কেন দেওয়ানি কারাগারে আটক রাখা হবে না এবং কেন তার স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চাওয়া হয়।
রুলের শুনানি শেষে ওই বছরের ২৮ সেপ্টেম্বর রায় দেন হাইকোর্ট। রায়ে ৭ দিনের মধ্যে এমএ ওয়াদুদকে কার্যালয় বুঝিয়ে দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

একইসঙ্গে কাজী ফারুককে ৭ দিনের দেওয়ানি কারাদণ্ড ও ৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। পাশাপাশি এ আদেশ কার্যকর করে ১৫ দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট আদালতে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়। এ আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে যান কাজী ফারুক। আপিল বিভাগ মামলাটি পুনরায় হাইকোর্টে শুনানির নির্দেশ দেন। এ নির্দেশে হাইকোর্টে শুনানি শেষে গতকাল রায় দেন। রায়ে কাজী ফারুককে একমাসের দেওয়ানি কারাদ- দেন হাইকোর্ট।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত