প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

উত্তরায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে আহত ২

নুরুল আমিন হাসান : রাজধানীর উত্তরায় চোরাই তেল দোকানের টাকা পয়সা ভাগাভাগিকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় শাহ আলম (৪৫) ও বাপ্পি (৩০) নামের দুই জন আহত হয়েছেন। অপরদিকে আব্দুল মান্নান মোল্লা নামের আরটিভির পরিচয়দানকারী কথিত এক সাংবাদিককে স্থানীয় জনতা আটক করে পুলিশের সোপর্দ করেছে।

তুরাগ থানাধীন উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টরস্থ গণ-কবরস্থান সংলগ্ন একটি চোরাই তেলের দোকানে মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় আহত চোরাই তেল ব্যবসায়ী শাহ আলম গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ও বাপ্পি উত্তরা আধুনিক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

স্থানীয়রা বলেন, ‘প্রায় দেড় বছর ধরে চোরাই তেলের দোকানটি সাংবাদিক মান্নান ও শাহ আলম পার্টনারশিপ ব্যবসা করে আসছিল। চোরাইল তেল দোকানের ব্যবসার লাভের শতকরা ৫৫ টাকা সাংবাদিক মান্নান ও শতকরা ৪৫ টাকা শাহ আলম পেত। মান্নান স্থানীয় থানা প্রশাসনকে ম্যানেজ করার নামে লভ্যাংশের বেশী অংশ নিত।’

তেল দোকানের সামনের দোকানদাররা আমাদের সময় ডটকমকে আরো বলেন, ‘শাহ আলম ও সাংবাদিক মান্নানের তেল দোকানের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই তিন মাস যাবত দ্বন্দ্ব চলছিল। প্রায় এক মাস পূর্বে মান্নানের লোকজন শাহ আলমকে মারধরও করেছিল। এরই জের ধরে আবার আজ (মঙ্গলবার) সকাল ১১টার দিকে তর্ক-বিতর্কের এক পর্যায়ে মান্নান গ্রুপ ও শাহ আলম গ্রুপের মধ্যে মারামারি শুরু হয়। এমতাবস্থায় সাংবাদিক মান্নান শাহ আলমকে চুরিকাঘাত করলে তিনি গুরুতর আহত হন। আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে উত্তরা আধুনিক হাসপাতালে ও পরবর্তীতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে উত্তরা জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) তাপস কুমার দাস আমাদের সময় ডটকমকে বলেন, ‘আর টিভির বিজ্ঞাপন প্রতিনিধি ও শাহ আলমের মধ্যে ব্যবসায়ীক পারপাসে কোন্দল চলছিল। একে কেন্দ্র করে আজ সকালে মান্নান ৮/১০ জন নিয়ে শাহ আলমের উপর হামলা করলে শাহ আলম ও বাপ্পি আহত হয়। অপরদিকে মান্নানকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে স্থানীয় জনতা। বাকিরা পালিয়ে যায়।’

তিনি আরো বলেন, ‘এ ঘটনায় একটি মামলা প্রকৃয়াধীন রয়েছে। অপরদিকে মান্নানকে আটক করেছে পুলিশ।’

অপরদিকে তুরাগ থানার পরদর্শক (অপারেশন) দুলাল হোসেন আমাদের সময় ডটকমকে বলেন, ‘অভ্যন্তরীণ কারণে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে গুরুতর আহত অবস্থায় শাহ আলম ঢামেক হাসপাতালে ও বাপ্পি স্থানীয় একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। অপরদিকে দিকে আটক সাংবাদিক মান্নানসহ অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা প্রকৃয়াধীন রয়েছেন। শাহ আলমের স্বজনরা থানায় মামলা দায়েরের জন্য এসেছেন। মামলাটি লেখা হচ্ছে।’

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ীর উপ-পরিদর্শক (এসআই) বাচ্চু মিয়া জানান, ‘আহত শাহ আলম ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার অবস্থা গুরুতর।’

অপরদিকে আরটিভি’তে যোগাযোগ করা হলে, আরটিভি’র কর্তৃপক্ষ আমাদের সময় ডটকমকে জানান, আরিটিভিতে মান্নান নামের কোন সাংবাদিক নেই। আরটিভিতে একজন ছিল তাকে একাধিকবার শোকজ করা হয়েছিল। পরবর্তীতে সে সংশোধন না হওয়ায় তাকে বাদ দিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত