প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মেম্বারকে মারপিটের অভিযোগ

আশরাফুল নয়ন,নওগাঁ: নওগাঁর মান্দা উপজেলার প্রসাদপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বেলাল হোসেনের বিরুদ্ধে মহিলা মেম্বারকে মারপিটের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মারপিটের শিকার মহিলা মেম্বারের নাম জুলেখা বিবি। তিনি একই ইউনিয়নের ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য।

মহিলা মেম্বার মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আছেন। বোরবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে প্রসাদপুর ইউনিয়নের চকরাজাপুর কলেজ মোড় এলাকায় চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটে।

এব্যাপারে মেম্বারের স্বামী রফিকুল ইসলাম ওইদিন সন্ধ্যায় বাদি হয়ে মান্দা থানায় লিখিত অভিযোগ করলেও অজ্ঞাত কারণে কোন পদক্ষেপ নেয়নি পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পূর্ব ঘোষিত সময় অনুযায়ী গোবিন্দপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে চেয়ারম্যান বেলাল হোসেন মোটরসাইকেল যোগে বিধবা, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধীদের জন্য বরাদ্দ ভাতার কার্ড বিতরণের জন্য যাচ্ছিলেন। তবে ইউনিয়ন পরিষদের যে ৯ জন মেম্বার আছেন তিনি তাদেরকে এ বিষয়ে কোন কিছু বলেননি।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চকরাজাপুর কলেজ মোড় দিয়ে চেয়ারম্যান যাওয়ার সময় মহিলা মেম্বার জুলেখা বিবির সাথে দেখা হয়। জুলেখা চেয়ারম্যানকে সালাম দিয়ে থামতে বলে তার এলাকায় কার্ড বিতরণ করা হচ্ছে অথচ তাকে জানানো হয়নি। এতে চেয়ারম্যান রাগাম্বিত হয়ে মটরসাইলেলের সামনের চাকা দিয়ে সজোরে ধাক্কা দিলে জুলেখা ও চেয়ারম্যান মোটরসাইকেল নিয়ে রাস্তায় পড়ে যান।

সূত্রে আরো জানা যায়, চেয়ারম্যান বেলাল হোসেনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে ইউনিয়ন পরিষদের ৯ জন মেম্বারের সমন্বয়হীনতা চলে আসছিল। অনাস্থা আনার কারণে বেলাল হোসেন মহিলা মেম্বারকে বিভিন্ন ভাবে লাঞ্ছিত ও কারণে অকারণে গালিগালাজ করতো। মেম্বার উজ্জল কুমারকে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বের করে দেয়ার অভিযোগ আছে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বারদের কোন প্রকার মতামত ও রেজুলেশন ছাড়াই বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ একক সিদ্ধান্তে একের পর এক বাস্তবায়ন করে যাচ্ছিলেন। বিভিন্ন রেজুলেশনে মেম্বারদের মতের বিরুদ্ধে তাদের কাছ থেকে জোর পূর্বক স্বাক্ষর করে নেন।এসব স্বেচ্ছাচারিতা, অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়ে তার বিরুদ্ধে মেম্বাররা অনাস্থা নিয়ে আসে। সেই সাথে বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করা হয়।

ভুক্তভোগী মেম্বার জুলেখা বিবি বলেন, চেয়ারম্যান আমার ৫নং এলাকায় বয়স্ক ও বিধবা ভাতার কার্ড বিতরণ করবেন অথচ আমাকে জানানো হয়নি। চেয়ারম্যান মোটরসাইকেল নিয়ে যাবার সময় চকরাজাপুর কলেজ মোড় এলাকায় সালাম দিয়ে থামতে বলা হয়। এসময় সে রাগাম্বিত হয়ে মটরসাইলেলের সামনের চাকা দিয়ে আমাকে সজোরে ধাক্কা দিলে আমি রাস্তার পার্শ্বে পরে যাই এবং চেয়ারম্যান মোটরসাইকেল নিয়ে পড়ে যায়।

তিনি মটরসাইকেল ছেড়ে দিয়ে উঠে এসে আমাকে লাথি মারেন এবং পাশে চায়ের দোকান থেকে একটি কাঠের চলটা নিয়ে এসে মারপিট করে। এতে আমি অজ্ঞান হয়ে পড়ি। পরে দেখি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। আমি এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি। এলাকায় রাতে কোথায় বিচার ও মিটিংয়ে নিরাপত্তার জন্য স্বামীকে সাথে নিয়ে গেলে চেয়ারম্যান কটাক্ষ ও গালিগালাজ করেন তাকে।

জুলেখার স্বামী রফিকুল ইসলাম জানান, আমার স্ত্রীকে নির্মমভাবে নির্যাতন করায় রোববার সন্ধ্যায় থানায় লিখিত অভিযোগ করেছি। এখন পর্যন্ত পুলিশ কোন রকম পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি। আমি এর সুষ্ঠ বিচার দাবি করছি।

প্রসাদপুর ইউপি চেয়ারম্যান বেলাল হোসেন তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কিছু মহল আমার বিরুদ্ধে গুজব রটাচ্ছেন। যা সম্পন্ন মিথ্যা ও বানোয়াট ভিত্তিহীন। মেম্বারদের মধ্যেই দ্বন্দ্ব। আর সেটার রোষানলে পড়তে হচ্ছে আমাকে।

তিনি আরও বলেন, প্রতিবন্ধী, বয়স্ক ও বিধবা ভাতাসহ বিভিন্ন কার্যক্রমের ভাগ মেম্বারদের না দেয়ার কারণে আমার সাথে বৈরীভাব আচরণ শুরু হয়। ইতোপূর্বে মেম্বাররা আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের অনিয়মের অভিযোগ নিয়ে আসছিলেন। কিন্তু পরবর্তিতে সেগুলো মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে।

মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিছুর রহমান বলেন, ঘটনার দিন রবিবার সন্ধ্যায় মহিলা মেম্বারের পক্ষে তার স্বামী রফিকুল ইসলাম থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম বলেন, বিষয়টি শুনছেন। তবে কে কাকে মারপিট করেছে তা এখনো সুস্পষ্ট নয়। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সম্পাদনা: উমর ফারুক রকি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত