প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নিউইয়র্কে ইমিগ্রেশন আইন ও ট্যাক্স বিষয়ক সেমিনারে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ

সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, যুক্তরাজ্য থেকে: নিউইয়র্কে ইমিগ্রেশন আইন ও ট্যাক্স বিষয়ক এক সেমিনারে বাংলাদেশি এবং মার্কিন আইনজীবী ও ইমিগ্রেশন বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, অভিবাসনের এজেন্টরা দরজায় নক করলেও তা খোলা যাবে না। ভেতর থেকেই কথা বলতে হবে এবং নিযুক্ত এটর্নীর পরামর্শ ব্যতিত দরজা খোলা হবে না বলে এজেন্টদের জানিয়ে দিতে হবে।

অবৈধ অভিবাসী বিতাড়নে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসনের নানাবিধ অভিযানে ভীত-সন্ত্রস্ত প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে তারা বলেন, ইমিগ্রেশন আইনে বিশেষভাবে অভিজ্ঞ এটর্নীর পরামর্শ মত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে সংশ্লিষ্টদের।

ল’ অফিস অব ব্যারী সিলভার ও সিপিএ ইয়াকুব খানের তত্ত্বাবধানে গত ১৯শে জানুয়ারী শুক্রবার সন্ধ্যায় সিটির জ্যাকসন হাইটসের জুইশ সেন্টারে ইমিগ্রেশন আইন ও ইনকাম ট্যাক্স বিষয়ক এ গুরুত্বপূর্ণ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

সেমিনারে পরিবর্তিত ইমিগ্রেশন আইন, পরিবর্তিত ট্যাক্স ও জব অ্যাক্ট, এসাইলাম, চেইন ইমিগ্রেশন, ফ্যামিলি ভিসা, ‘ডাকা’ কর্মসূচির ভবিষ্যৎ, ব্যাংক্রাপসি আইন, রিয়েল এষ্টেট ও ক্লোজিং, ইনস্যুরেন্স ইত্যাদির ওপর গুরুত্বপূর্ণ ও তথ্যবহুল আলোচনা করেন বিষয়গুলো সম্পর্কে অভিজ্ঞ ও বিশেষজ্ঞ প্যানেলিস্টগণ। তারা অবৈধ অভিবাসীদের আইনগত পরামর্শ ছাড়াও নতুন ট্যাক্স আইনের পরিপ্রেক্ষিতে করণীয় সম্পর্কেও তুলে ধরেন সেমিনারে। এটি ছিল আয়োজকদের অষ্টম বার্ষিক ফ্রি সেমিনার।

সেমিনারে কীনোট স্পীকার ছিলেন প্রাক্তন জজ রুথ ক্রাফ্ট। মডারেটরের দায়িত্ব পালন করেন বিশিষ্ট আইনজীবী মোহাম্মদ এন মজুমদার মাস্টার অব ল। প্যানেলিস্টদের মধ্যে ছিলেন সিপিএ ইয়াকুব এ খান, ইনস্যুরেন্স এক্সপার্ট মো. শাহ নেওয়াজ, এটর্নী ফেরদৌসী চৌধুরী, এটর্নী কেন সিলভারম্যান, এটর্নি মার্ক লিভিংটন এবং অ্যাটর্নি এলেন কাস।

সেমিনারে ইমিগ্রেশন বিশেষজ্ঞরা সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে বলেন, আইন মেনে চললে এবং কোন অপরাধের সঙ্গে জড়িত না হলে ভয়ের কিছু নেই। তবে ধর-পাকড় এড়াতে অভিজ্ঞ এটর্নীর পরামর্শক্রমে চলাফেরা করা, কোন ঝগড়াঝাঁটি কিংবা হাঙ্গামায় লিপ্ত না হওয়া, গাড়ি চালানোর সময় ট্রাফিক আইন মেনে চলা, পুলিশ গ্রেপ্তার করতে পারে, চলতি পথে থামাতে পারে এমন কোন কাজ থেকে বিরত থাকতে হবে। এমনকি স্বামী/স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়াঝাঁটি পরিহার করতে হবে।

সেমিনারে ইমিগ্রান্টদের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার কথা তুলে ধরে সংশ্লিষ্টদের ইমিগ্রেশন সংক্রান্ত তথ্য হাল নাগাদ করার পরামর্শ দেন তারা। যুক্তরাষ্ট্রে ব্যবসা করে কীভাবে গ্রিন কার্ড পাওয়া যায়, পুরোনো মামলা কীভাবে পুনরুজ্জীবিত করে গ্রিন কার্ড পাওয়া যায়, গৃহবিবাদ, বিবাহ বিচ্ছেদসহ নানা বিষয়ে আলোচনা করেন প্যানেলিস্টগণ। ইমিগ্রেশন বিশেষজ্ঞরা পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে আতঙ্কিত হয়ে যুক্তরাষ্ট্র ছেড়ে না যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে আইনি লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত থাকারও পরামর্শ দেন।

প্রবাসী আইনজীবী মোহাম্মদ এন মজুমদার সেমিনারে আগত সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশি কমিউনিটিকে আইনগত সহায়তা দিতে প্রতিবছরই এ ধরনের সেমিনারের আয়োজন করা হবে।

মোহাম্মদ এন মজুমদার বলেন, এ সেমিনারের প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে বাংলাদেশী অভিবাসীদের বিভিন্ন বিষয়ে আইনি জটিলতা সমাধানের কিছু বিষয় তুলে ধরা। যাতে কমিউনিটির মানুষ প্রচলিত আইন এবং বিধানের আওতায় সর্বোচ্চ নাগরিক সুবিধা ভোগ করতে পারেন। উপকৃত হতে পারেন। সেমিনার ছাড়াও যে কোন সময় ইমিগ্রেশনসহ বিভিন্ন আইনি পরামর্শ নেওয়ার জন্য তার সঙ্গে সবাইকে যোগাযোগের পরামর্শ দেন তিনি।

সেমিনারে বাংলাদেশী আমেরিকান সিপিএ ইয়াকুব এ খান পরিবর্তিত ট্যাক্স ও জব অ্যাক্ট, ট্যাক্স ফাইল, ব্যক্তিগত ও বিজনেস ট্যাক্স প্রসঙ্গ, ব্যবসা শুরুর আগে কি কি বিষয়ে জানা প্রয়োজন, ব্যবসায় সফলতা-ব্যর্থতার বিভিন্ন দিক নিয়েও বিস্তারিত আলোকপাত করেন। নতুন ট্যাক্স আইনের পরিপ্রেক্ষিতে কী করতে হবে সে ব্যাপারেও তিনি নানা পরামর্শ প্রদান করেন।

ইয়াকুব এ খান, সিপিএ বলেন, ফ্যাটকা এর আওতায় বাংলাদেশী প্রবাসীদের বাংলাদেশে কিংবা বিশ্বেও যে কোন স্থানে বিনিয়োগকৃত নির্ধারিত অর্থ বা এই ধরনের বিনিয়োগ এবং তার আয় আমেরিকার ট্যাক্স ফাইলে রিপোর্ট করতে হবে। তিনি ট্যাক্স সিস্টেমে তথ্য গোপন করার কোন সুযোগ নেই উল্লেখ করে বলেন, সংশ্লিষ্টরা সঠিকভাবে আয়-ব্যয়ের হিসাবসহ নির্ভূল তথ্য প্রদান করছেন কিনা সেটা নিশ্চিত করার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে বিশেষ অডিটের ব্যবস্থা রয়েছে। এক্ষেত্রে কোন অনিয়ম ধরা পড়লে পেনাল্টিসহ অন্যান্য কঠোর ব্যবস্থা রয়েছে। আইআরএস এর অডিট থেকে রেহাই পেতে সকলেরই সঠিক ও নির্ভুল তথ্য পরিবেশনের মাধ্যমে ট্যাক্স রিটার্ন করা উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এনওআই ইন্স্যুরেন্সের প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ নেওয়াজ ইন্স্যুরেন্স বিষয়ে অজানা অনেক তথ্য উপস্থাপন করেন । তিনি অটো ও জেনারেল ইনস্যুরেন্সের বিভিন্ন দিক নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।

এটর্নী ফেরদৌসী চৌধুরী ডমেস্টিক ভায়োলেন্স, ডিভোর্স, কাস্টডি ইত্যাদি স্পর্শকাতর অনেক বিষয় তুলে ধরেন। পরে আইনজীবী ও ইমিগ্রেশন বিশেষজ্ঞরা দর্শকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

সাংবাদিক আশরাফুল হাসান বুলবুলের সঞ্চালনায় সেমিনারে অন্যদের মধ্যে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ল’ সোসাইটির সভাপতি এডভোকেট কাজী শামসুদ্দোহা, বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী প্রমুখ। সকলের জন্য উম্মুক্ত এ সেমিনারে অভিজ্ঞ ট্যাক্স ও ইমিগ্রেশন বিষয়ক আইনজীবী, কমিউনিটি এক্টিভিস্টসহ বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি অংশগ্রহণ করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত