প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সংসদীয় সীমানা পুনর্নির্ধারণ
পরিবর্তন আসছে অর্ধশতাধিক আসনে

আসাদুর রহমান : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কেন্দ্র করে সীমানা পুনর্নির্ধারণের কাজ করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নতুন প্রশাসনিক ইউনিট ও বিলুপ্ত ছিটমহল যুক্ত করে এবারের সীমানা নির্ধারণে উপজেলার অখ-তা ঠিক রাখার চেষ্টা চলছে। তবে ভোটার সংখ্যা ও অবস্থান বিবেচনায় সব উপজেলার অখ-তা রাখা সম্ভব হচ্ছে না। এ অবস্থায় সংসদের ৫৫ আসনের সীমানা পরিবর্তন করে খসড়া প্রস্তুত করেছে ইসি। সীমানা পুনর্নির্ধারণ কমিটির প্রধান নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে গতকাল শনিবার নির্বাচন ভবনে এ নিয়ে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
বৈঠকে একাধিক বিকল্প (অপশন) রেখে খসড়া চূড়ান্ত করেছে সীমানা পুনর্নির্ধারণ কমিটি। খসড়া মোতাবেক অর্ধশতাধিক আসনে পরিবর্তন আসতে পারে। এমন সুপারিশ সংবলিত খসড়া শিগগিরই কমিশন সভায় উপস্থাপন করা হবে। কমিশন সীমানা পুনর্নির্ধারণের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে।

গতকাল বৈঠক শেষে নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম আমাদের সময়কে বলেন, আমরা বিভিন্ন অপশন রেখে কাজ করেছিলাম। সেটা ডেভেলপ করা হচ্ছে, ফিজিক্যাললি কেমন হয়। এ নিয়ে আলোচনা হয়েছে।
উপজেলার অখ-তার বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা একাধিক অপশন রাখছি। প্রশাসনিক ও যোগাযোগের বিষয় মাথায় রেখে ঠিক করতে হচ্ছে। একটা জেলায় নদীর কারণে তিনটি উপজলো একদিকে। এখন দুটি নিয়ে একটি আসন করলে অন্য একটি ছোট হয়ে যায়। আবার তিনটি নিয়ে করলে অনেক বড় হয়ে যায়। সে ক্ষেত্রে সব উপজেলা অখ- রাখা কঠিন। একাধিক অপশন রেখে খসড়া করা হয়েছে। এ বিষয়ে কমিশন চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন কেন্দ্র ইসি প্রকাশিত রোডম্যাপ অনুসারে গত ডিসেম্বরেই সীমানা পুনর্নির্ধারণ করে তা প্রকাশের কথা ছিল। এ জন্য পৃথক কমিটি করে দেওয়া হয়। সেই কমিটির অধীনে সাব-কমিটিও করা হয়। কিন্তু যথাসময়ে তারা কাজ সমাপ্ত করতে পারেনি। এখনো সীমানা পুনর্নির্ধারণ কমিটি কাজ করছে। গতকাল তারই ধারাবাহিকতায় বৈঠক করেছে সেই কমিটি।

ইসি সূত্র জানায়, কমিটি উপজেলার অখ-তা রেখে একটি খসড়া তৈরি করেছে। এর মধ্যেও কয়েকটি উপজেলা বিভক্ত করতেই হচ্ছে। সেগুলো নিয়ে কমিশন বৈঠকে আলোচনা করেছে। বৈঠক সূত্র জানায়, অর্ধশতাধিক আসনে পরিবর্তন আসতে পারে। কমিটির প্রস্তাব শিগগিরই কমিশন সভায় উপস্থাপন করা হবে। কমিশন চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে। ২০১৯ সালের ২৮ জানুয়ারির আগে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, খসড়া অনুযায়ী যেসব সংসদীয় আসনের সীমানা পরিবর্তন আসতে পারে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে ঠাকুরগাঁও-২ ও ৩, নীলফামারী ৩ ও ৪, রংপুর- ৩ ও ৪, কুড়িগ্রাম- ৩ ও ৪, সিরাজগঞ্জ- ১ ও ২, পাবনা-১ ও ২, চুয়াডাঙ্গা-১ ও ২, ঝিনাইদহ-২ ও ৪, মাগুরা-১ ও ২, এবং খুলনা-৩ ও ৫। একই অবস্থা সাতক্ষীরা- ৩ ও ৪, জামালপুর- ৪ ও ৫, মানিকগঞ্জ-২ ও ৩, ঢাকা-২, ৩, ১৪ ও ১৯, গাজীপুর-১, ৩ ও ৫, নরসিংদী-১ ও ২, ফরিদপুর-২ ও ৪, গোপালগঞ্জ-১ ও ২, মাদারীপুর-২ ও ৩, সিলেট-২ ও ৩, মৌলভীবাজার- ২ ও ৪, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ ও ৬, নোয়াখালী-১, ২, ৪ ও ৫ এবং চট্টগ্রাম-৭, ৮, ১৪ ও ১৫ আসন।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত