প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বলিউডের তিন ‘খান’ এর নেতানিয়াহুর সঙ্গে সাক্ষাতে অস্বীকৃতি!

ডেস্ক রিপোট : শ্যালম বলিউড’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে অংশ নেন অমিতাভ বচ্চন, করন জোহর, ঐশ্বরিয়া রায়, বিবেক অবেরয়সহ খ্যাতিমান চলচ্চিত্র শিল্পি-কুশলীরা। ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বলিউড তারকাদের সম্মানে বিরাট এই আয়োজন করেন। গত বৃহস্পতিবার মুম্বাইয়ে কিন্তু তাতে হাজির ছিলেন না তিন ‘খান’ এর কেউই। এ নিয়ে চলছে নানা আলোচনা।

টুইটারে অনেকে দাবি করছেন, বলিউড রাজা শাহরুখ খান, মিস্টার পারফেকশনিস্ট আমির খান ও সালমান খানকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রীর অনুষ্ঠানে থাকতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।ভারত-পাকিস্তান ভিত্তিক কয়েকটি অনলাইন পোর্টালেও এই খবর প্রকাশ করা হয়েছে। যদিও অনুষ্ঠানে যোগ দিতে তিন ‘খান’ এর অস্বীকৃতির তথ্য নির্ভরযোগ্য কোনো সংবাদমাধ্যমে পাওয়া যায়নি।

ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু বর্তমানে ৬দিনের সফরে ভারতে অবস্থান করছেন। রাজনৈতিক, ব্যবসায়ী, কূটনৈতিক ব্যক্তিবর্গের পাশাপাশি বিশিষ্টজনের সাথেও সাক্ষাৎ করছেন তিনি। গত সপ্তাহে নেতানিয়াহু ভারতে পৌঁছার পর অনেকে তাকে সাদরে গ্রহণ করলেও মানবাধিকার লঙ্ঘনের দায়ে দিল্লিসহ বিভিন্ন শহরে তাকে বিক্ষোভের মুখেও পড়তে হয়েছে।

বলিউড তারকাদের কেউ কেউ ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে অংশ নিয়েছেন। চলচ্চিত্র পরিচালক আনন্দ বর্ধন বৃহস্পতিবার মুম্বাইয়ে ‘গো ব্যাক নেতানিয়াহু’ বিক্ষোভে অংশ নিয়েছিলেন। তিনি আল জাজিরাকে বলেন, ‘সত্যিকারের ভারত মুসলিম, খ্রিষ্টান, ইহুদী নির্বিশেষে ফিলিস্তিনবাসীর সত্যিকারের বন্ধু হয়ে থাকবে।’

বিগত বছরগুলোতে ফিলিস্তিনি ভূমি দখল করে একের পর এক বসতি তৈরি করার অনুমতি দেয়াসহ ইসরাইলি সরকারের নানা নিপীড়নমূলক পদক্ষেপে নেতৃত্ব দিচ্ছেন নেতানিয়াহু। এ সব বিষয়ে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো নিয়মিত ইসরাইলের নিন্দা করে আসছে।

এদিকে নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে ভারতে বামপন্থীদের ব্যাপক বিক্ষোভ হয়েছে। ইসরাইলের এই প্রধানমন্ত্রী ভারত সফরের বিরুদ্ধে দিল্লিতে বাম ফ্রন্টের পক্ষে থেকে এই বিক্ষোভ মিছিল করা হয়।

গত সোমবার সিপিআই, সিপিআই(এম), সিপিআই(এমএল), এসইউসিআইসহ বিভিন্ন বামপন্থী দলের পক্ষ থেকে ইসরাইলবিরোধী বিক্ষোভ প্রদর্শন করা হয়।

এ সময় বিক্ষোভকারীরা বিভিন্ন দাবিসংবলিত প্ল্যাকার্ড বহনসহ স্লোগান দেন। বিক্ষোভকারীরা সাম্রাজ্যবাদ ধ্বংস হোক, ফ্রি, ফ্রি প্যালেস্টাইন, নেতানিয়াহুকে স্বাগত জানানো বন্ধ কর, ফিলিস্তিনি জনতার আন্দোলনকে ‘লাল সালাম’ ইত্যাদি স্লোগানে সোচ্চার হন।

তারা ইসরাইলি হামলাকারী- মুর্দাবাদ, ফিলিস্তিনি মুক্তি আন্দোলন জিন্দাবাদ, হত্যাকারী নেতানিয়াহু গো ব্যাক, ফ্যাসিস্ট নেতানিয়াহু গো ব্যাক, ফিলিস্তিনিনের রাজধানী জেরুজালেম ইত্যাদি লেখাসংবলিত প্ল্যাকার্ড বহন করেন।

দিল্লির ইন্ডিয়া গেটের কাছে ওই বিক্ষোভ মিছিলে বাম ফ্রন্ট নেতা ডি রাজা, প্রকাশ কারাত, অতুল কুমার আনজান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। বাম ফ্রন্ট নেতা ডি রাজা বলেন, আরব দেশ নয়- এমন দেশের মধ্যে ভারত প্রথম ফিলিস্তিনিদের স্বাধীনতাকে সমর্থন জানিয়েছিল। কিন্তু নরেন্দ্র মোদি সরকার সেখানকার মানুষদের ওপর জুলুম চালানো ইসরাইল দেশকে নিজেদের বন্ধু করছে। সেখানকার প্রধানমন্ত্রীকে এখানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে কিন্তু আমরা এটা বলতে চাই যে, ভারতীয় জনতা তাকে স্বাগত জানাচ্ছে না।

বাম ফ্রন্ট নেতা অতুল কুমার আনজান বলেন, ভারত ইসরাইলের অস্ত্রের সবচেয়ে বড় রফতানিকারক দেশে পরিণত হয়েছে। ৪০ হাজার কোটি টাকার প্রতিরক্ষা চুক্তির অর্থ ফিলিস্তিনি জনগণের নির্যাতনের কাজে ব্যবহার হচ্ছে।

সিপিআই(এম) নেতা প্রকাশ কারাতের অভিযোগ, ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইসরাইলি ঔপনিবেশিক নীতি সমর্থন করছেন। প্রধানমন্ত্রী যখন ইসরাইল সফরে গিয়েছিলেন তখন তিনি ফিলিস্তিনি নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেননি বলেও শ্রী কারাত বলেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত