প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তালতলীতে স্কুল ভবন পরিত্যক্ত, এনজিও ঘরে পাঠদান

ইমরান হোসাইন (বরগুনা) : বরগুনার তালতলী উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের মেনিপাড়া গ্রামের ৬৩ নং মেনিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মূল পাকা ভবনটি ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস নেয়ার অনুপযোগী হওয়ায় ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। পরে এ বিদ্যালয়ের পাসের এনজিও (এসডিএফ) এর একটি রুমে এক সাথে তিন শ্রেণির পাঠদান চলছে। এতে ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান।

জানা গেছে, ১৯৯১ সালে স্কুলটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। তখন ক্লাস হতো গোলপাতার ছাউনীতে কাঠের তৈরি ঘরে। পরে ২০০৩-০৪ অর্থবছরে পুরাতন ঘর ভেঙ্গে নির্মাণ করা হয় নতুন ভবন। কিন্তু পাকা স্কুল ভবনটির বয়স ১২ বছর পার হতে না হতেই দেয়াল, ছাদসহ বিভিন্ন অংশ ফেটে যায়, দরজা-জানালা নষ্ট হয়ে যায়। ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস করার অনুপযোগী হয়ে পড়লে ২০১৭ সালে ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। ফলে ছাত্র-ছাত্রীরা খোলা আকাশের নিচে ক্লাস করতে হয়। পরে বর্ষার সময় বিদ্যালয়ের পাসে এনজিওর একটি রুমে পাঠদান করানো হয়। ব্যাহত হয় শিক্ষার্থীদের পাঠদান। এভাবে কোনোমতে চলছে অত্র বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীর পড়াশোনা।

বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ সেলিম হোসেন বলেন, বিদ্যালয়ের একমাত্র পাকা ভবনটি গত বছরে পরিত্যক্ত করা হয়। যার ফলে প্রথমে শিক্ষার্থীদের নিয়ে খোলা আকাশের নিচে পাঠদান করাতে হতো। পরে বর্ষার সময় বিদ্যালয়ের পাশে এনজিওর একটি রুমে পাঠদান করানো হয়। এর ফলে ছাত্র-ছাত্রীদের সঠিকভাবে পাঠদান করা যাচ্ছে না।

এ বিদ্যালয়ের রিমা আক্তার, তানিয়া, মিতু, রাকিবুল, মারুফাসহ একাধিক শিক্ষার্থী জানায়, স্কুলের মূল ভবনটি নষ্ট হয়ে যাওয়া এবং একরুমে একত্রে তিন শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীর পাঠদান করায় ভালোভাবে ক্লাসে শিখতে পারছি না। আমাদের স্কুলের জন্য নতুন ভবন খুব প্রয়োজন।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ এনামুল হক জানান, স্কুলের যে একমাত্র পাকা ভবন রয়েছে তা শিক্ষার্থীদের পাঠদানের রুম হিসেবে অনুপযোগী। এজন্য ভবনটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে বিদ্যালয়টির নতুন ভবন নির্মাণের প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। আশাকরি খুব তাড়াতাড়ি নুতন ভবন নির্মাণের বরাদ্দ আসবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত