প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারতের আগ্রাসী মনোভাব আঞ্চলিক শান্তির জন্য হুমকি: পাকিস্তান

ওমর শাহ: ভারতের মারমুখী মনোভাব ও ব্যাপক অস্ত্র সমাগম আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি এবং তা কৌশলগত হিসাব ওলটপালট করে দিতে পারে।

বৃহস্পতিবার ইসলামাবাদে সাপ্তাহিক সংবাদ ব্রিফিংয়ে পাকিস্তান পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র ড. মুহাম্মাদ ফয়সাল এ কথা বলেন।

ফয়সাল বলেন, নিজেদের সক্ষমতা সম্পর্কে অতিরঞ্জিত ধারণা ও আধিপত্যবাদী মানসিকতার কারণেই ভারত মিথ্যা দাবি করছে ও আগ্রাসী বক্তব্য দিচ্ছে। মুখপাত্র বলেন, ভারতীয় সেনাপ্রধানের উসকানিমূলক ও দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য তাদের ক্ষতিকর জাতীয়তাবাদী মানসিকতার বহিঃপ্রকাশ, যেটা উত্তপ্ত কৌশলগত আবহাওয়ার আরও অবনতি ঘটাতে পারে।

মুখপাত্র স্পষ্ট করে বলেন, পাকিস্তানের পরিস্থিতির অবনতি চায় না এবং সে কারণেই ধৈর্যের পরিচয় দিয়ে আসছে। কিন্তু ভারতের ভ্রান্ত বিশ্বাস আর দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য বিপদ ডেকে আনতে পারে।

ফয়সাল আরও বলেন, কোন ধরনের অভিযানের অপচেষ্টা করা হলে তার জবাব দেয়ার পুরো সক্ষমতা পাকিস্তানের রয়েছে।

তিনি বলেন, কাশ্মীরে দখলদার ভারতীয় বাহিনীর বর্বরতা থেকে বিশ্ববাসীর দৃষ্টি অন্যদিকে ফেরানোর জন্যেই পাক-ভারত সীমান্ত এলাকার নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর বার বার অস্ত্রবিরতি লঙ্ঘন করছে ভারত।

ফয়সাল ভারতীয় ডেপুটি হাইকমিশনার জে. পি. সিংকে ডেকে সীমান্ত এলাকায় বিনা উসকানিতে অস্ত্র বিরতি লঙ্ঘনের নিন্দা জানিয়েছেন। ১৮ জানুয়ারি শিয়ালকোট এলাকায় ওয়ার্কিং বাউন্ডারি বরাবর অস্ত্রবিরতি লঙ্ঘন করে গুলি চালায় ভারতীয় সেনারা। এতে দুজন নিরপরাধ বেসামরিক নারী নিহত হন। অপর তিন নারীসহ পাঁচজন আহত হয়।

পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ে ফয়সাল জানান, যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাক্টিং অ্যাসিস্টেন্ট সেক্রেটারি অব স্টেট অ্যালিস ওয়েলস পাকিস্তান সফর করেছেন। দ্বিপাক্ষিক ও আঞ্চলিক সহযোগিতার নিয়মিত অংশ হিসেবে এই সফর করেন তিনি। তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পররাষ্ট্র সচিবের সাথে বৈঠক করেন।

পররাষ্ট্র সচিব বলেন, পারস্পরিক আস্থা ও শ্রদ্ধাবোধের ভিত্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক এগিয়ে নেয়া উচিত। মার্কিন প্রতিনিধি দল সন্ত্রাস দমনে পাকিস্তান নিরাপত্তা বাহিনীর দৃশ্যমান সিদ্ধান্তগুলোর প্রশংসা করেন, যেগুলোর কারণে পাকিস্তানের নিরাপত্তা ব্যবস্থার অনেক উন্নতি হয়েছে।

আঞ্চলিক পরিস্থিতির কথা বলতে গিয়ে পাকিস্তান-বিরোধী বিভিন্ন গোষ্ঠীর আফগান ভূমি ব্যবহারের ব্যাপারে উদ্বেগ জানান পররাষ্ট্র সচিব। তিনিএ অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠার জন্য পাকিস্তানের প্রতিশ্রুতির কথাও পুনর্ব্যক্ত করেন ।

ভারতীয় সেনাপ্রধানের সাম্প্রতিক মন্তব্য, সীমান্ত এলাকায় ভারতীয় বাহিনীর অপতৎপরতা, পাকিস্তানী পোস্টে মর্টার হামলায় পাকিস্তানী সেনা নিহতের ঘটনার ব্যাপারে মার্কিন প্রতিনিধি দলের মনোযোগ আকর্ষণ করেন পররাষ্ট্র সচিব। ভারতকে আরও সংযত হতে এবং আগ্রাসী নীতি পরিহার করতে উপদেশ দেয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

দীর্ঘ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু নেই- এমন মন্তব্য করে মার্কিন দূত ওয়েলস সন্ত্রাস দমনে পাকিস্তানের ভূমিকার কথা স্বীকার করেন এবং আফগানিস্তানে স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে উভয়েরই যে একক লক্ষ্য, সে জন্য একসাথে কাজ করার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রহের কথা জানান। সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত