প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অতীতেও দুই কোরিয়াকে এক করেছিল অলিম্পিক

বাঁধন : দক্ষিণ কোরিয়ায় আগামী মাসে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া শীতকালীন অলিম্পিকের উদ্বোধনীতে দুই কোরিয়া একটি পতাকা নিয়ে মার্চ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ বুধবার এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়৷

এছাড়া দুই কোরিয়ার খেলোয়াড়দের সমন্বয়ে মেয়েদের আইস হকি দল গঠনের কথাও জানিয়েছে তারা৷ অবশ্য এক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি বা আইওসির অনুমোদন নিতে হবে। রবিবার এ ব্যাপারে আইওসির সঙ্গে কথা বলবেন দুই কোরিয়ার কর্মকর্তারা।

উত্তর কোরিয়ার পরমাণু কর্মসূচির কারণে গত কয়েক বছর ধরে কোরীয় উপত্যকায় উত্তেজনা বিরাজ করছিল। উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন নতুন বছরে দেয়া তাঁর বক্তব্যে অলিম্পিকে উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধি দল পাঠানোর আগ্রহের কথা জানান৷ এরপর দক্ষিণ কোরিয়ার উদ্যোগে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। সেই থেকে দুই কোরিয়ার মধ্যে উষ্ণ সম্পর্ক দেখা যাচ্ছে।

অবশ্য অলিম্পিকে এক পতাকা নিয়ে দুই কোরিয়ার অংশ নেয়ার ঘটনা এটিই প্রথম হবে না। ২০০০ সালে সিডনিতে অনুষ্ঠিত অলিম্পিকে প্রথমবারের মতো দুই কোরিয়ার অ্যাথলেটরা একটি পতাকা নিয়ে মার্চ করেছিলেন। সেই সময় দর্শকরা দাঁড়িয়ে তাঁদের সংবর্ধনা জানিয়েছিলেন। এরপর ২০০৪ সালের এথেন্স অলিম্পিক ও ২০০৬ সালে ইটালিতে অনুষ্ঠিত শীতকালীন অলিম্পিকেও এক পতাকা নিয়ে মার্চ করেন দুই কোরিয়ার অ্যাথলেটরা। তবে ইভেন্টগুলো নিজ নিজ পতাকা নিয়েই প্রতিযোগিতা করেছেন তাঁরা৷ পদক জেতার পর অ্যাথলেটদের তাঁদের নিজ দেশের জাতীয় সংগীত বাজানো হয়।

তবে এর ব্যতিক্রমও ঘটেছে। ১৯৯১ সালে জাপানে অনুষ্ঠিত বিশ্ব টেবিল টেনিস প্রতিযোগিতায় সৌল ও পিয়ংইয়ং একটি যৌথ দল পাঠিয়েছিল৷ মেয়েদের বিভাগে ঐ যৌথ দল স্বর্ণপদক জয় করেছিল৷ সেই সময় উত্তর বা দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় সংগীত না বাজিয়ে ‘আরিরাং’ নামে এক ঐতিহ্যবাহী কোরীয় লোক সংগীত বাজানো হয়।

উল্লেখ্য, ১৯৯০ সালের এশিয়ান গেমসের সময় প্রথম দুই কোরিয়ার সমন্বয়ে যৌথ দল পাঠানোর চিন্তা শুরু হয়েছিল। সেজন্য একটি ‘কোরীয় একত্রীকরণ পতাকা’ও ঠিক করা হয়েছিল৷ কিন্তু পরে সেটি সম্ভব হয়নি।

উত্তর কোরিয়ার সামরিক মহড়া?

এদিকে, দক্ষিণ কোরিয়ার এক সরকারি কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে দেশটির এক বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, শীতকালীন অলিম্পিক শুরুর আগের দিন নিজেদের সামরিক শক্তি দেখানোর পরিকল্পনা করছে উত্তর কোরিয়া। দেশটির সামরিক বাহিনীর ৭০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে এই আয়োজন করা হচ্ছে বলে মনে করছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঐ দক্ষিণ কোরীয় কর্মকর্তা। সূত্র : ডয়চে ভেল

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত