প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাদ ফজর আম বয়ানে শুরু বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব

ওমর  শাহ : শুক্রবার ফজরের নামাজের পর আমবয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব।  তাবলীগ জামাতের তিন দিনব্যাপি এ আয়োজনের দ্বিতীয়পর্বে অংশ নিতে দেশি-বিদেশি মুসল্লিরা ইতোমধ্যে ইজতেমা ময়দানে এসেছেন।

এই পর্বে মুসল্লিদের নিরাপত্তা দিতে সাত স্তরে সাড়ে ছয় হাজারের মতো পুলিশ ইজতেমা ময়দান ও আশপাশ এলাকায় নিয়োজিত থাকবে বলে গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ জানিয়েছেন।

প্রথম পর্বের পর চার দিন বিরতি দিয়ে শুরু হচ্ছে দ্বিতীয় পর্ব। আগামী রোববার জোহরের নামাজের আগে আখেরি মুনাজাতের মধ্য দিয়ে এ বছরের ইজতেমা শেষ হবে। দ্বিতীয় পর্বে ঢাকা জেলার একাংশসহ ১৩টি জেলার মুসল্লিরা আসছেন।

বিশ্ব ইজতেমার মুরুব্বি মো: গিয়াস উদ্দিন জানান, দ্বিতীয় পর্বে ইজতেমা ময়দানকে ২৮টি খিত্তায় ভাগ করা হয়েছে। এ পর্বেও বিদেশী মুসুল্লিরা অংশ নেবেন। আজ শুক্রবার হওয়ায় দেশের সর্ববৃহৎ জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হবে ইজতেমা ময়দানে।
ইজতেমা ময়দান ঘুরে দেখা গেছে, দ্বিতীয় পর্বে যোগ দিতে ইতোমধ্যে কয়েক লাখ মুসল্লি ইজতেমা মাঠে সমবেত হয়েছেন। আখেরি মুনাজাতের আগ পর্যন্ত মুসল্লিদের এ আগমন অব্যাহত থাকবে। তারা নিজ নিজ জেলার খিত্তায় অবস্থান নিচ্ছেন। প্রথম পর্বে অংশ নেয়া বেশ কিছু বিদেশী মুসল্লি দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেয়ার জন্য ময়দানের বিদেশী নিবাসে রয়ে গেছেন।

দ্বিতীয় পর্বে দেশের বিভিন্ন জেলার মুসল্লিরা খিত্তাওয়ারি যেভাবে অবস্থান নেবেন তা হলো -১ নং থেকে ১০ নং, ১৮ নং ও ১৯ নং খিত্তায় ঢাকা জেলা, ১১ নং ও ১২ নং খিত্তায় জামালপুর, ১৩ নং খিত্তায় ফরিদপুর, ১৪ নং খিত্তায় কুড়িগ্রাম, ১৫ নং খিত্তায় ঝিনাইদহ, ১৬ নং খিত্তায় ফেনী, ১৭ নং খিত্তায় সুনামগঞ্জ, ২০ নং খিত্তায় চুয়াডাঙ্গা, ২১ ও ২২ নং খিত্তায় কুমিল্লা, ২৩ ও ২৪ নং খিত্তায় রাজশাহী, ২৫ ও ২৭ নং খিত্তায় খুলনা, ২৬ নং খিত্তায় ঠাকুরগাঁও ও ২৮ নং খিত্তায় পিরোজপুর জেলা।

গাজীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মো: জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, ইজতেমা ময়দানে আগত মুসল্লিদের সুবিধার্থে প্রতিবারের মতো এ বছরও গোসলখানা, ওজুখানাসহ উন্নয়নমূলক কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। প্রথম পর্বের মতো ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বেও আগত মুসল্লিদের সার্বণিক খোঁজখবর রাখব ইনশা আল্লাহ।

গাজীপুরের জেলা প্রশাসক দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ুন কবির জানান, দ্বিতীয় পর্বের জন্যও আমাদের ব্যাপক প্রস্তুতি রয়েছে। নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। মুসল্লিরা যাতে ইজতেমা শেষে ভালোভাবে ফিরে যেতে পারেন সে জন্য সব প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

গাজীপুরের পুলিশ সুপার মো: হারুন-অর-রশীদ জানান, ইজতেমায় দায়িত্ব পালনের জন্য সাত হাজার পুলিশ সদস্য প্রস্তুত রয়েছেন, নেয়া হয়েছে সাত স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা। অর্ধশতাধিক অত্যাধুনিক সিসি ক্যামেরা এবং ওয়াচ টাওয়ার থেকে বাইনোকুলারের মাধ্যমে ইজতেমা ময়দান ও এর আশপাশের এলাকা মনিটরিং করা হচ্ছে। যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে। এর পাশাপাশি তুরাগ নদে নৌ পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে।

গাজীপুরের সিভিল সার্জন জানান, প্রথম পর্বের মতো দ্বিতীয় পর্বেও ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের ল্েয তাদের সব প্রস্তুতি রয়েছে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকসহ মেডিক্যাল অফিসারদের তালিকা ও ডিউটি রোস্টার করা হয়েছে। মুসল্লিদের বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা দিতে মুন্নু গেট, এটলাস গেট, বাটা কারাখানার গেটে অস্থায়ী মেডিক্যাল ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ জেনারেল হাসপাতালে হৃদরোগ, অ্যাজমা, ট্রমা, বার্ন, চু এবং ওআরটি কর্নারসহ বিভিন্ন ইউনিটে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা চিকিৎসা দেবেন। এ ছাড়া হামদর্দ (ওয়াক্ফ) লি:, ইবনে সিনা, র‌্যাব, গাজীপুর সিটি করপোরেশন, টঙ্গী ওষুধ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি, আয়ুর্বেদীয় মেডিক্যাল, জনকল্যাণ মেডিক্যাল ইজতেমা ময়দানের উত্তর পাশে নিউ মুন্নু কটন মিলের অভ্যন্তরে অস্থায়ী চিকিৎসা কেন্দ্র চালু করেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ