প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পোশাক কারখানার ক্ষতিকর হাইড্রোজেন দিয়ে তৈরি হচ্ছে গুড় (ভিডিও)

জুয়াইরিয়া ফৌজিয়া: বাণিজ্যিকভাবে তৈরি খেজুরের রসের গুড়ের প্রতি রসনাবিলাসী বাঙালির আগ্রহ ঐতিহাসিক কাল থেকেই। কিন্তু অনুসন্ধান বলছে, এই গুঁড়ের চেহারা আকর্ষণীয় করতে এর সাথে মেশানো হচ্ছে প্রচুর পরিমাণ সাদা চিনি আর ক্ষতিকর হাইড্রোজেন পাউডার। যেটা মূলত ব্যবহার করা হয় পোশাক কারখানায়।

আসল গুড়ের রঙ কালচে হওয়ায় এর প্রতি মানুষের আগ্রহ কম। আর ভালো দামও পাওয়া যায় না। তাই রাজশাহীতে ব্যবসায়ীরা কোনো বাধা ছাড়াই গুড়ের রঙ উজ্জ্বল করতে রসের সাথে ব্যবহার করছে চিনি ও হাইড্রোজ পাউডার।
আকর্ষণীয় গুড় তৈরির এমন দৃশ্য রাজশাহীতে একেবারে খোলামেলা। আর এখানে উৎপাদিত গুড় চলে যাচ্ছে রাজধানীসহ সারা দেশে।

গুড় প্রস্তুতকারীরা বলেন, চিনি ও হাইড্রোজ পাউডার ছাড়া এখন গুড় তৈরি করা অসম্ভব।

গড় হিসেবে দেখা যায়, ৫ কেজি গুড়ের জন্য খেজুরের নলেন গুড়ের সাথে মেশানো হয় দেড় কেজি চিনি। আর হাইড্রোজেন মেশানো হয় অন্তত ৫০ গ্রাম। চিনির বাজার মূল্য প্রতি কেজি ৫০ থেকে ৫২ টাকা।

ব্যবসায়ীরা বলেন, চিনি আর হাইড্রোজ মেশানো গুড় নির্দ্বিধায় ভেজাল। ক্রেতারাও এই ভেজালের খবর জেনে গেছে। তাই বাজারে কমেছে খেজুর গুড়ের চাহিদা।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. এবিএম হামিদুল হক বলেন, উজ্জ্বল রঙের গুড় খেতে গিয়ে ক্ষতিকর হাইড্রোজ খাচ্ছে সাধারণ মানুষ। এক কেজি কোনো খাবারের মধ্যে ৫ গ্রামের বেশি হাইড্রোজ মেশালে সেটা মৃত্যু ডেকে আনবে।

বামেক মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও বিভাগীয় প্রধান ডা. মো. খলিলুর রহমান বলেন, লিভারের সমস্যা, কিডনির সমস্যা অনেক প্রকট আকারে দেখা দিতে পারে। তাছাড়া হাইড্রোজ পাউডার গুড়ের সাথে মেশানোয় তা মানবদেহের জন্য তৈরি করছে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিও। পরে এটা ক্যান্সারেও পরিণত হতে পারে।

স্থানীয়রা বলেন, রাজশাহীর বানেশ্বর, দুর্গাপুর, চারঘাট ও বাঘা উপজেলার গ্রামগুলোতে প্রায় সারা বছরই তৈরি হয় আখ ও খেজুরের গুড়। যার অধিকাংশতেই ব্যবহার করা হয় ক্ষতিকর হাইড্রোজ পাউডার।

সূত্র : চ্যানেল টোয়েন্টিফোর
যঃঃঢ়ং://িি.িুড়ঁঃঁনব.পড়স/ধিঃপয?া=তপতখচঈপঢ৭বশ্ভবধঃঁৎব=ুড়ঁঃঁ.নব

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত