প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘ঘরে নিয়ে ছিটকিনি আটকে দিয়েছিলো’

দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে ৫ম শ্রেণীতে অধ্যায়নরত এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগের উঠার পাশাপাশি শিশুটি ৪ মাসের অন্তঃসত্ত্বা বলেও জানিয়েছেন চিকিৎসক। পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্ত শিক্ষক রবিউলকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

নির্যাতিত শিক্ষার্থী বলেন, আমাকে টেনে ঘরে নিয়ে ছিটকিনি আটকে দিয়েছিলো। বলতে যেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে মেয়েটি।

স্বজনরা বলেন, গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে প্রাইভেট পড়তে গেলে তাকে ধর্ষণ করে শিক্ষক রবিউল। পরে ধষর্ণের ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে নানা রকম ভয়ভীতি দেখায় সে। পরে ডিসেম্বর মাসে মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়লে বাবা-মাকে খুলে বলে বিষয়টি। কিশোরীকে চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রফেসর ডা. সিবেশ সরকার বলেন, মেয়েটিকে পরীক্ষা করে দেখা গেছে, সে ৪ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

ঘটনাটি জানাজানির পর থেকেই পলাতক রয়েছে শিক্ষক রবিউল।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার এস এম হাফিজুর রহমান বলেন, খুব তাড়াতাড়ি রবিউলকে আমরা ধরতে পারবো এবং তার বিরুদ্ধে আইনি সব ধরণের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ঘটনায় চলতি বছর পহেলা জানুয়ারি নির্যাতিতার বাবা বাদী হয়ে নবাবগঞ্জ থানায় রবিউলকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

সূত্র : সময় টিভি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ