Skip to main content

আগামী নির্বাচনে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে

শাহরিয়ার কবির : পাবনা মেডিকেল কলেজসহ বিভিন্ন ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের ভেতরগত যে কোন্দল, তা খুবই উদ্বেগজনক। কারণ, ছাত্রলীগ বা আওয়ামী লীগ নয়। এটি বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। মহাজোট সরকারের যে বিশাল অর্জন রয়েছে, সেগুলোকে ম্লান করে দিচ্ছে আওয়ামী লীগ এবং ছাত্রলীগের মধ্যে বিভিন্ন সংঘাত। যার ফলে সাধারণ মানুষ ও সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। বিপদগ্রস্থ হচ্ছে। এটি কোনোভাবে কাম্য হতে পারে না। আওয়ামী লীগকে মনে রাখতে হবে এবং আওয়ামী লীগের হাইকমান্ডকে মনে রাখতে হবে, এটি নির্বচনের বছর। আওয়ামী লীগের দলীয় কোন্দল, বিশেষ করে ছাত্রলীগের যে অন্তর্কলহ, যার শিকার হচ্ছে সাধারণ ছাত্র-ছাত্রী। এভাবে চলতে থাকলে স্বাভাবিকভাবে নির্বাচনে এটির নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। আমরা কিছু দিন আগে দেখেছি, এক ছাত্রী ছাত্রলীগের মিছিলে যায়নি বলে, তাকে হল থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। এই ধরনের ঘটনা কোনোভাবে কাম্য নয়। যেভাবে জোড় করে ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণে বাধ্য করা হয়, তা ঠিক নয়। কোনো কোনো ক্যাম্পাসে নাকি মিছিল মিটিংয়ে অংশগ্রহণ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এটি যদি দলীয় হাইকমান্ড বিশেষ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়েদুল কাদের নিয়ন্ত্রণ করতে না পারেন, তাহলে এগুলো বন্ধ হবে না। জঙ্গি, মৌলবাদী দমনের জন্য সরকার আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত হয়েছে। কিন্তু দলের ভেতরে যদি সেই রকম সন্ত্রাসী থাকে, তাহলে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে, সরকারের অর্জনগুলো প্রশ্নবিদ্ধ হবে। আমরা আশা করি, ওবায়দুল কাদের সাহেবকে এটি ভালোভাবে দেখতে হবে। যদিও তিনি এই নিয়ে আগে অনেকবার কথা বলেছেন। কিন্তু শুধু কথা বললেই হবে না। অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। শুধু তাদের দল থেকে বহিষ্কার করলে সমাধান হবে না। তাদের অপরাধ যদি দেশের আইনের লঙ্ঘন হয়, তাহলে তাদেরকে আইনের হাতে তুলে দিতে হবে। পরিচিতি : সভাপতি, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি মতামত গ্রহণ : গাজী খায়রুল আলম সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

অন্যান্য সংবাদ