প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সেতু আছে সংযোগ সড়ক নেই!

ফারমিনা তাসলিম: কুষ্টিয়া, ঠাকুরগাঁও ও হবিগঞ্জের তিনটি সেতুর সংস্কারের জন্য কর্তৃপক্ষ কোন ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। স্থানীয়দের অভিযোগ, একটি সেতু নির্মিত হলেও সংযোগ সড়ক না থাকায়, জনগণ খুব দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।

কুষ্টিয়া, ঠাকুরগাঁও ও হবিগঞ্জের তিনটি গুরুত্বপূর্ণ সেতু দিয়ে প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে পার হচ্ছে হাজারো মানুষ। দীর্ঘদিন বেহাল অবস্থায় থাকলেও সেতু সংস্কারে নেই উদ্যোগ। স্থানীয়দের অভিযোগ, টেকসই কাজের অভাবে সংস্কারের কিছুদিনের মধ্যে আবারও অকেজো হয়ে যায় সেতুগুলো।

কালী নদীর এক পারে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার চাপড়া ও অন্য পারে কুমারখালীর বাগুলাট এলাকা। দুপারের ৩০টি গ্রামের প্রায় ৫০ হাজার বাসিন্দার দাবিতে, একটি সেতু নির্মিত হলেও সংযোগ সড়ক না থাকায়, পোহাতে হচ্ছে দুর্ভোগ। বাঁশের সাঁকো দিয়ে চলছে ঝুঁকিপূর্ণ পারাপার।

স্থানীয়রা বলেন, মাঝখান দিয়ে ব্রিজ, এদিকে এবং ওদিকেও রাস্তা নাই। আমাদের ছেলে-মেয়ে নিয়ে চলতে অনেক কষ্ট হয়। বাচ্চারা স্কুলে ঠিকমতো যেতে পারে না।

কুমারখালী বাগুলাট ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন খান বলেন, যদি ব্রিজটি দিয়ে লোক চলাচল করতে হয় তাহলে বাধাগ্রস্ত হবে। ছোট ব্রিজ যেটা আছে সেটাতে তাদের হবে না।

সেতুটি চলাচলের উপযোগী করতে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানালেন জেলা প্রশাসক।

কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক জহির রায়হান বলেন, ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে ব্রিজ হয়েছে। এপ্রোচ করার চেষ্টা করব।

এদিকে, ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার সেনুয়া বেইলি ব্রিজটি সংস্কারে, দীর্ঘদিন দাবি জানানোর পরও ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। সম্প্রতি কয়লা বোঝাই একটি ট্রাক উল্টে ব্রিজসহ পড়ে যায় নদীতে। স্থানীয় প্রশাসন বাঁশের সাঁকো তৈরি করলেও অভিযোগ উঠেছে, পারাপারের নামে টাকা নিচ্ছে একটি চক্র।

স্থানীয় শিক্ষার্থীরা বলেন, পরীক্ষার সময় শুরু হয়ে গেল কিন্তু এখনো স্কুলে পৌঁছাতে পারিনি। এ সেতু পারাপারে অনেক সময় লাগে। দ্রুত এ ব্রিজটির সংস্কার করা হোক।

অন্যদিকে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ পৌর এলাকায় বরাকের শাখা নদীর ওপর বাঁশের সাঁকোতে ঝুঁকি নিয়ে চলছে অন্তত ২০ গ্রামের বাসিন্দা। একটি সেতু নির্মাণের জন্য দুই যুগ ধরে এলাকাবাসী দাবি জানালেও কোনো উদ্যোগ নেয়নি কর্তৃপক্ষ।

সূত্র – ইনডিপেনডেন্ট টিভি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত