প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জয়ের জন্যই মাঠে নামছে বিএনপি

রাহাত : আসন্ন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের উপ নির্বাচনকে বিভিন্ন কারণে গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট। রংপুর সিটি নির্বাচনে দলটির পরাজয় হলেও এবার ঢাকায় জয়ের টার্গেট নিয়েই শক্তভাবে মাঠে নামার পরিকল্পনা নিচ্ছে বিএনপি। এরই অংশ হিসেবে জোটের পক্ষ থেকে একক প্রার্থী দেয়া ও সমন্বিতভাবেই প্রচারে নামাসহ নির্বাচনী সব কার্যক্রম চালানোর প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এদিকে ২০ দলীয় জোটের পক্ষ থেকে মেয়র প্রার্থী কে হবেনÑ তা আজ বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে চূড়ান্ত হবে। রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

সূত্র জানায়, ডিএনসিসি নির্বাচনের কৌশল নির্ধারণ নিয়ে সোমবার ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সেখানে আসন্ন নির্বাচনের গুরুত্ব তুলে ধরেন বিএনপি চেয়ারপারসন। এ সময় তিনি বলেন, ঢাকা সিটির এ নির্বাচনে সরকারের পক্ষে কারচুপি করা কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণ। আর এতে শক্তি প্রয়োগ করলেও তা প্রশ্নবিদ্ধ হবে এবং আন্তর্জাতিক মহল এটাকে ভালোভাবে নেবে না। এ নির্বাচন নিরপেক্ষ হলে বিএনপি জোটের প্রার্থীর জয়ের ব্যাপারেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, জাতীয় নির্বাচনের আগে আসন্ন ঢাকা উত্তর সিটির নির্বাচনকে আমরা অনেক গুরুত্বপূর্ণ মনে করছি। রাজধানী ঢাকা মহানগরের এ নির্বাচনে জয়ের টার্গেট নিয়েই যোগ্য প্রার্থী দিয়ে মাঠে নামবে বিএনপি। তিনি বলেন, আগের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে শেষ মুহূর্তে নির্বাচন বর্জন করেন বিএনপি প্রার্থী তাবিথ আউয়াল। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে সেবারই তিনি জয়লাভ করতে পারতেন। তাই এবারের নির্বাচনেও তাকেই প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করার যথেষ্ট সম্ভাবনা আছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

২০ দলীয় জোটের শরিক বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, ডিএনসিসি নির্বাচনকে জোটের শরিকরাসহ বিএনপি চেয়ারপারসন খুব গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছেন। এজন্য সোমবার শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে জোটের পক্ষ থেকে এককভাবে প্রার্থী দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রার্থী চূড়ান্ত করার জন্য খালেদা জিয়াকে ক্ষমতা দিয়েছেন জোট নেতারা। তিনি যার নাম ঘোষণা করবেন তার পক্ষেই সবাই কাজ করবে বলে সবাই সম্মতি প্রকাশ করেছেন। জোটের পক্ষ থেকে আলাদা কমিটি করে প্রচারসহ নির্বাচনী কাজ চালানো হবে বলেও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এমনকি নির্বাচনী গণসংযোগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াও মাঠে নামবেন বলে আভাস দেয়া হয়েছে।

মোস্তফা ভুইয়া আরও বলেন, জোটের বৈঠকে ডিএনসিসি নির্বাচনের প্রার্থী হিসেবে তাবিথ আউয়ালের নামই প্রস্তাব করেছেন অনেকে। তাই তাকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দেয়ার সম্ভাবনাই বেশি।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান জানান, শনিবার রাত সাড়ে ৮টায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। এতে ডিএনসিসি নির্বাচনের মেয়র প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে। এ বিষয়ে আগেই ২০ দলীয় জোট নেতাদের মতামত নেয়া হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
মঙ্গলবার এক অনুষ্ঠানে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের উপ-নির্বাচনে একক প্রার্থী ঘোষণা করা হবে। সোমবার ২০ দলীয় জোটের বৈঠকে জোটের শীর্ষ নেতারা ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রার্থী বাছাইয়ের দায়িত্ব বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দিয়েছেন। তারা বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন যাকে মনোনয়ন দিবেন, জোট তাকেই সমর্থন দেবে। ডিএনসিসি নির্বাচনের ৭ দিন আগে থেকে সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানান তিনি।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি অনুষ্ঠিত রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থীকেই ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। তবে ওই নির্বাচনে জোটগতভাবে কোনো প্রচার কাজ চালানো হয়নি। এমনকি জামায়াতসহ জোটের গুরুত্বপূর্ণ শরিক দলগুলো প্রায় নিষ্ক্রিয় ছিল। বিষয়টি নিয়ে জোট নেতাদের মধ্যে চাপা ক্ষোভেরও সৃষ্টি হয়। নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর পরাজয়ের পেছনে জোটকে কাজে লাগাতে না পারাও অন্যতম কারণ বলে সংশ্লিষ্টরা মন্তব্য করেন।

রংপুর সিটি নির্বাচনের এ অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে এবার আগেভাগেই ডিএনসিসিতে মেয়র প্রার্থী ঘোষণা দিয়েছে জামায়াতে ইসলামী। এ নিয়ে বিএনপি জোটের মধ্যে নতুন করে বিতর্ক দেখা দেয়। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সোমবার ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সেখানে উপস্থিত জামায়াত নেতা মাওলানা আবদুল হালিম জানান, দলের পক্ষ থেকে প্রার্থী ঘোষণা করা হয়েছে। তবে জোটের সিদ্ধান্তকেই আমরা মেনে নেব। নির্বাচনে জামায়াতের প্রার্থী ঘোষণার বিষয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, এটা নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না। আমরা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে একটা সমাধান করব। নির্বাচনে ২০ দলীয় জোটের একক প্রার্থী থাকবে।

তবে জোটের ওই বৈঠকের পরও জামায়াতের প্রার্থী মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। শুক্রবারও তিনি রামপুরা এলাকায় একটি ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান এবং প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় মিলিত হন বলে দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। সূত্র মতে, শেষ পর্যন্ত মেয়র পদে না থাকলেও জোটগতভাবে কাউন্সিলর পদে দলটির চাহিদা অনুযায়ী প্রার্থী দেয়ার জন্য জোর চেষ্টা চালাবে জামায়াত। আর মেয়র পদে খালেদা জিয়া ঘোষিত প্রার্থীকেই মেনে নেবে দলটি। উল্লেখ্য, ডিএনসিসিতে বিএনপি জোটের মেয়র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপ্রত্যাশী হিসেবে দলের কেন্দ্রীয় নেতা তাবিথ আউয়াল ছাড়াও বিএনপির সহ-প্রকাশনা সম্পাদক শাকিল ওয়াহেদ, সাবেক প্রতিমন্ত্রী মেজর (অব.) কামরুল ইসলাম ও জোটের শরিক বিজেপি চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থের নামও আলোচনায় রয়েছে। আলোকিত বাংলাদেশ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত