প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আমতলীতে ১৭২ কোটি টাকার উন্নয়ন মূলক কাজ সম্পন্ন

মোঃ জয়নুল আবেদীন, আমতলী (বরগুনা): বরগুনার আমতলী উপজেলা উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় ভাসছে। ৯ বছরে পল্লী সড়ক উন্নয়ন,রক্ষনাবেক্ষণ, সেতু, উপকূলীয় অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সাইক্লোন সেল্টার, বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ ও ক্ষুদ্রাকার পানিসম্পদ উন্নয়ন মূলক প্রকল্পে ১৭২.০৯ কোটি টাকার কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

ফলে কৃষি উৎপাদন, শিক্ষা-স্বাস্থ্য, দারিদ্র মুক্তি ও গ্রামীণ অর্থনীতি আমূল পরিবর্তন হয়েছে। সচ্ছলতা এসেছে হত দরিদ্রদের মাঝে। উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পন্ন হওয়ায় সুফল পাচ্ছে আমতলী উপজেলার সাড়ে তিন লক্ষ মানুষ।

আমতলী স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অফিস সূত্রে জানাগেছে, ২০০৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকার গঠণের পরে আমতলীর উন্নয়নের চিত্র পাল্টে যেতে শুরু করে। ধীরে ধীরে উন্নয়নের গতি বৃদ্ধি পায়। ২০০৯ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ৯ বছরে আমতলীতে ১৭২.০৯ কোটি টাকা ব্যয়ে বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

এর মধ্যে ৭২.৬২ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৪৮.২০ কিলোমিটার পল্লী উন্নয়ন সড়ক পাকা করণ কাজ সম্পন্ন হয়। চলমান রয়েছে ২১ কিলোমিটার সড়কের কাজ। ১৪.১০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭১.৩০ কিলোমিটার পল্লি সড়ক রক্ষনাবেক্ষণের কাজ শেষ। ৬.৫০ কিলোমিটার সড়কের রক্ষনাবেক্ষণের কাজ চলমান রয়েছে। ২৬.৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৮৫০ মিটার দৈর্ঘ্যরে ১৭ টি সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। ৭১ মিটার সেতুর কাজ চলমান রয়েছে ।

৮.৯০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৯ টি ইউনিয়ন কমপ্লেক্স ও ১৪ টি বাজারের ঘাটলা নির্মাণ করা হয়েছে। ২ টির কাজ চলমান রয়েছে। ২৮.৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ১১ টি সাইক্লোন সেল্টার, ২৫ টি নতুন প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন, ১৪ টি বিদ্যালয়ে কক্ষ সম্প্রসারণ ও ১ টি রিসোর্স সেন্টার নির্মাণ করা হয়েছে। ৩ টি বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। খাদ্যে স্বনির্ভর অর্জনে ৫.৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়নে ৭টি উপ-প্রকল্পে ৩২.২৫ কিলোমিটার খাল খনন করা হয়েছে।

.২৬ কোটি টাকা ব্যয়ে দু’জন অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধার জন্য ২টি গৃহ নির্মাণ করা হয়েছে। ২.৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। ৬.৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫টি বিশেষ প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হয়। এছাড়া পল্লী সড়ক উন্নয়নে ৩০ কিলোমিটার, ২০০ মিটার সেতু, ৫ টি বাজারে ঘাটলা ,১৫ টি বিদ্যালয় নির্মাণ করা ও ক্ষুদ্রাকার পানি উন্নয়নে ৩টি উপ-প্রকল্পের প্রকল্প দেয়া হয়েছে।

গত ৯ বছরে আমতলী উপজেলায় এ উন্নয়ন হওয়ায় বদলে গেছে মানুষের জীবন যাত্রার মান। দারিদ্রমুক্তির পাশাপাশি নারী ক্ষমতায়নে এলজিইডির ৬টি প্রকল্প কাজ করছে। পল্লী সড়ক উন্নয়ন,রক্ষনাবেক্ষণ, সেতু, উপকূলীয় অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সাইক্লোন সেল্টার,বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ ও ক্ষুদ্রাকার পানিসম্পদ উন্নয়নের ফলে কৃষি উৎপাদন, শিক্ষা-স্বাস্থ্য, দারিদ্রমুক্তি ও গ্রামীণ অর্থনীতি চাঙ্গা রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।

আঠারোগাছিয়া ইউনিয়নের উত্তর সোনাখালী গ্রামের সোহেল রানা জানান, গত ৯ বছরে সরকার সড়ক, সেতু, সাইক্লোন সেল্টার নির্মাণ করে গ্রামীণ জন মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করে দিয়েছেন। মানুষ আরাম আয়েশে জীবন যাপন করছে।

আমতলী উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন, ২০০৯ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত এ ৯ বছরে আমতলী উপজেলায় ১৭২.০৯ কোটির টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। আরো অনেক প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে।

আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সরোয়ার হোসেন বলেন, বর্তমান সরকারের গত ৯ বছরের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা তুলে ধরার জন্য তিন দিন ব্যাপী উন্নয়ন মেলার আয়োজন করেছি। এ উন্নয়ন মেলাই বলে দেয় বর্তমান সরকারের উন্নয়নের চিত্র।সম্পাদনা: উমর ফারুক রকি

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত