প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রস্ততির সঙ্গে চলছে বাংলাদেশের কূটনৈতিক তৎপরতা

তরিকুল ইসলাম : এমন এক সময়ে ওআইসি’র সহকারী মহাসচিব পদে প্রার্থিতা ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ, যখন ঢাকায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন (ওআইসি)’র পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের ৪৫তম সম্মেলনের প্রস্ততি। এর আগে ১৯৮৩ সালে ঢাকায় প্রথম ওআইসি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এ সুযোগে মুসলিম উম্মাহর সব চেয়ে বড় জোটের সহকারী মহাসচিব পদে লড়তে ইতমধ্যে কূটনৈতিক তৎপরতা শুরু করেছে বাংলাদেশ।
চলতি বছরের মে মাসের প্রথম সপ্তাহে ওআইসি’র পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হবে। প্রায় সাড়ে তিন দশক পর এ নিয়ে দ্বিতীয় বারের মত ওআইসি’র নীতিনির্ধারনী পর্যায়ের কোনো সম্মেলনের আয়োজন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। সেই বিবেচনায় হোস্ট কান্ট্রি হিসেবে বাংলাদেশ বাড়তি সুবিধা পেতে পারে বলে আশা ঢাকার। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও জেদ্দাস্থ ওআইসি’র সদর দপ্তরের জেষ্ঠ্য কর্মকর্তারা এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।
ঢাকার পররাষ্ট্র কর্মকর্তাদের মতে, অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন (ওআইসি)’র ৫টি সহকারী মহাসচিব পদ রয়েছে। মহাসচিবের পর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ কর্মকর্তার অন্যতম ওই পদে এবারে বাংলাদেশের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব কামরুল আহসান। তিনি এর আগে কানাডা ও সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশের হাইকমিশনার হিসেবে কাজ করেছেন। একই পদে বাংলাদেশের প্রতিদ্বন্দ্বী করছে এশিয়ার দেশ কাজাখস্তান।
কূটনীতিকরা বলছেন, প্রায় দেড় যুগ পর ওআইসির গুরুত্বপূর্ণ কোনো পদে বাংলাদেশ লড়ছে। সর্বশেষ ২০০৩ সালে  সংস্থাটির সর্বোচ্চ কর্মকর্তা ‘মহাসচিব’ পদে বাংলাদেশ প্রার্থী দিয়েছিল। সে সময় মনোনয়ন পাওয়া সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে নিয়ে বিরোধিতা থাকায় বশিরভাগ সদস্য রাষ্ট্র মুখ ফিরিয়ে নেয়। ৫৭ মুসলিম রাষ্ট্রের জোট ওআইসির অনেক সদস্যের সমর্থন পাওয়ার বিষয়ে ইতিবাচক ইঙ্গিত পেয়েছে বাংলাদেশ। অনিশ্চয়তা কাটাতে কূটনৈতিক চেস্টা অব্যাহত রাখবে ঢাকা।
সম্মেলনের প্রস্ততি নিয়ে আলাপকালে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল এক জেষ্ঠ্য কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সম্মেলনের জন্য সম্ভাব্য দুটি স্থান নির্বাচন করা হয়েছে। তবে, রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। প্রটোকল সেবা এবং অতিথিদেও থাকার জন্য হোটেল কতৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে রেখেছে মন্ত্রণালয়। সম্মেলনের এখনও তিন মাসের বেশি সময় হাতে থাকায় প্রাথমিক অগ্রগতি সম্পন্ন করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
গত বছরের শেষঅর্ধে আইভরি কোস্টের আবিদজানে ৪৪তম সম্মেলনে ওআইসিভুক্ত সদস্য দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সর্বসম্মতি ক্রমে বাংলাদেশে ৪৫তম সম্মেলন হওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। বিপুলসংখ্যক সদস্য রাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীগণ ও পর্যবেক্ষক রাষ্ট্র, ওআইসি’র বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহের প্রতিনিধিরা সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত