প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রথম দেশ হিসেবে ‘২০১৮’কে স্বাগত জানিয়েছে ‘সামোয়া’

লিহান লিমা: পৃথিবীর প্রতিটি প্রান্তরেই প্রস্তুতি চলছে নতুন বছরের। কিন্তু সামোয়া, টোঙ্গা এবং কিরিবাতি ইতোমধ্যেই বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে (গ্রিনিচ মান সময় দশটায় ) ২০১৭কে বিদায় জানিয়েছে। অনেকে আবার সবার আগে নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে ছুটে গিয়েছেন এই প্যাসিফিক দ্বীপপুঞ্জগুলোতে।
এদিকে এই তিনটি দেশের মাত্র ১ ঘণ্টা পরই নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়েছে নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ড। স্বাভাবিকভাবেই বিশ্ব গণমাধ্যমের চোখ ছিল বিশ্বের অন্যতম এই উন্নত দেশটিতে।
স্থানীয় সময় রাত ১২টা বাজতেই আলোর ঝলকানি ঠিকরে পড়ে অকল্যান্ড স্কাই টাওয়ার থেকে। ছয় মাস আগে থেকেই তিন হাজার আতশবাজির এই বর্ণিল উদযাপনের পরিকল্পনা করা হয়েছিল।
গ্রিনিচ মান সময় ১১টায় অস্ট্রেলিয়া স্বাগত জানাবে নতুন বছরকে। বিশ্বের মূল আর্কষণের কেন্দ্রবিন্দু দেশটির হারবার ব্রিজ ও অপেরা হাউজ ইতোমধ্যেই নতুন বছরের বর্ণিল আয়োজনে সজ্জিত হয়েছে।
এরপর একে একে নতুন বছরকে স্বাগত জানাবে জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া(১৫.০০), উত্তর কোরিয়া( ১৫.৩০), চীন, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর(১৬.০০), ইন্দোনেশিয়া( ১৭.০০), মিয়ানমার, ককাস আইসল্যান্ড(১৭.৩০), বাংলাদেশ (১৮.০০), নেপাল (১৮.১৫), ইন্ডিয়া, শ্রীলংকা(১৮.৩০), পাকিস্তান(১৯.০০), আফগানিস্তান (১৯.৩০), আজারবাইজান(২০.০০), ইরান,(২০.৩০), রাশিয়া (২১.০০), গ্রীস (২২.০০) ও জার্মানি (২৩.০০)।
যুক্তরাজ্য নতুন বছরকে স্বাগত জানাবে ঠিক (০০.০০) টায়।
এরপর গ্রিনিচ মান সময় থেকে পিছিয়ে থাকা ব্রাজিল (২.০০-৩.০০), আর্জেন্টিনা, প্যারাগুয়ে ( ৩.০০), যুক্তরাষ্ট্র,কানাডা ( ৩.৩০-৮.০০), আলাস্কা ( ৯.০০), হাওয়াই ( ১০.০০), আমেরিকান সামোয়া ( ১১.০০) নতুন বছর উদযাপন করবে। তবে সবার পরে ২০১৮ আসবে যুক্তরাষ্ট্রের বেকার দ্বীপ ও হোল্যান্ড দ্বীপে (ভাগ্যিস সেখানে কোন মানুষ বসবাস করে না)। স্কাই নিউজ, মিরর।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত