প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আবার হুমকি : ফাঁড়া কাটছে না ‘পদ্মাবতী’ ওরফে ‘পদ্মাবত’ সিনেমার

ডেস্ক রিপোর্ট : নাম পাল্টানোর পরেও থামছে না ‘পদ্মাবতী’ ওরফে ‘পদ্মাবত’ সিনেমা নিয়ে সৃষ্ট বিতর্ক। সিবিএফসি’র ছাড়পত্র মেলার পরও কর্ণি সংগঠনের হুমকি, যে সিনেমাহলেই সিনেমা চলবে সেই সিনেমাহলই গুঁড়িয়ে দেওয়া হবে। ফলে ফাঁড়া কাটছে না ‘পদ্মাবতী’ ওরফে ‘পদ্মাবত’-এর। বরং নতুন জটিলতা তৈরি হচ্ছে।
বহুল আলোচিত ছবি ‘পদ্মাবতী’কে শনিবারই মুক্তির ছাড়পত্র দিয়েছে সেন্সর বোর্ড। তবে নাম বদলে তা হয়েছে ‘পদ্মাবত’। এছাড়া বোর্ড নিযুক্ত প্যানেলের সুপারিশ অনুযায়ী, ছবির বেশ কিছু অংশে বদলের নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। পরিচালক তা মেনেও নিয়েছেন। ফলে দীর্ঘ জটিলতার পর মুক্তির আলো দেখতে চলেছে ছবিটি। কিন্তু কর্ণি সেনার অভিযোগ, ডন দাউদ ইব্রাহিমের চাপেই এরকম সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে সেন্সর বোর্ড। এ ছবির মুক্তি দেশের পক্ষে মঙ্গলজনক নয়। দেশের স্বার্থে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। তাই রাজস্থানের যে হলেই ছবি চলবে, তা ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হবে বলে হুমকি দিয়েছেন কর্ণি সেনার প্রেসিডেন্ট সুখদেব সিং গোগামেড়ি।

মূলত এই কর্ণি সেনার চাপেই গোড়ায় ‘পদ্মাবতী’র মুক্তি পিছিয়ে যায়। বিপাকে পড়েন পরিচালক সঞ্জয় লীলা বনশালি। পদ্মাবতী ঐতিহাসিক চরিত্র কিনা তা নিয়ে ইতিহাসবিদদের মধ্যেই দ্ব›দ্ব তৈরি হয়। তাই পুরোপুরি ইতিহাসনির্ভর ছবি বানাননি পরিচালক। বরং সুফি কবি মালিক মহম্মদ জায়সির ‘পদুমাবৎ’ কাব্য অবলম্বনেই সাজিয়েছিলেন তাঁর চিত্রনাট্য। কিন্তু মানতে নারাজ ছিল কর্ণি সেনা। তাদের দাবি ছিল, এ ছবি রাজপুতদের সম্মান নিয়ে ছিনিমিনি খেলেছে। বিকৃত করা হয়েছে ইতিহাসকে। প্রবল বিক্ষোভের মুখে একাধিক রাজ্যের প্রধানরাও ছবিমুক্তি নিয়ে দ্বিধাগ্রস্ত ছিলেন। অন্যদিকে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ছবিকে স্বাগত জানিয়েছিলেন। জল গড়ায় সুপ্রিম কোর্ট থেকে সংসদে। শেষমেশ মুক্তি স্থগিত হয়ে যায় ছবিটির মুক্তি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত