প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ট্রাম্পকে ইরানের উত্তেজিত না হওয়ার পরামর্শ

রাশিদ রিয়াজ : ইরান সংসদের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক প্রধান হোসেইন আমির-আব্দোল্লাহিয়ান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে তার দেশে বিক্ষোভ সমাবেশকে কেন্দ্র করে উত্তেজিত না হওয়র পরামর্শ দিয়ে বলেছেন, মানুষের জীবিকা নির্বাহের জন্যে সমাবেশ এবং এধরনের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ বিদ্রোহ, অস্থিরতা ও বিশৃঙ্খলা থেকে ভিন্ন। কারণ ইরানের নাগরিকরা হোয়াইট হাউসের কপট ও সন্ত্রাসী নীতির আধিপত্যের চেয়ে ইসলামী ব্যবস্থায় জাতীয় নিরাপত্তা ও ধর্মীয় গণতন্ত্রকে অগ্রাধিকার দেয়।
গত রোববার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার এক টুইট বার্তায় বলেন, ইরানের সরকারের উচিত তার দেশের নাগরিকদের অধিকার ও বাক স্বাধীনতার দিকে নজর দেওয়া। বিশ্ব ইরানকে দেখছে।

এদিকে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বাহরাম কাসেমি বলেছেন, ইরানি জনগণ কখনো সুযোগসন্ধানী ও সুবিধাবাদী মার্কিন কর্মকর্তাদের কথায় কান দেবে না। ইরানের অভ্যন্তরীণ ঘটনাবলীতেও আমেরিকাকে হস্তক্ষেপ করার সুযোগ দেয়া হবে না। তিনি বলেন, দেশের নিরাপত্তা ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে ইরানের জনগণই বড় সমর্থক এবং বিভিন্ন নির্বাচনে তাদের বিশাল উপস্থিতি একথাই প্রমাণ করে নিজেদের ভবিষ্যত নির্ধারণে তারা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে কু-মতলব নিয়ে কথা বলছেন ইরানের জনগণের সতর্ক উপস্থিতি ও প্রতিরোধ তা নস্যাৎ করে দেবে।

বাহরাম কাসেমি বলেন, ইরানের জনগণ কখনো তাদের ভিত্তিহীন অভিযোগের প্রতি কান দেবে না। তারা খুব ঘনিষ্ঠভাবে ফিলিস্তিন , ইয়েমেন এবং বাহরাইনের জনগণের মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা পর্যবেক্ষণ করছে। পাশাপাশি সভ্য ইরানি জাতিকে আমেরিকার মাটিতে প্রবেশে বাধা দেয়ার বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টের পদক্ষেপ ও আমেরিকায় বসবাসরত বহুসংখ্যক ইরানি নাগরিককে ভিত্তিহীন অভিযোগ আটক করার ঘটনার ওপর নজর রাখছে তারা।

তিনি বলেন, ইরানের সংবিধান অনুযায়ী সমস্ত গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান জনগণের অধিকারের প্রতি সমর্থন দেয় এবং সবকিছুই আইনের কাঠামোর ভেতরে থেকে হতে হবে।

বাহরাম কাসেমি বলেন, ইরানের জাতীয় ও বৈধ সরকারের বিরুদ্ধে সামরিক অভ্যুত্থানসহ গত ৭০ বছর ধরে ইরানের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে আমেরিকার বিভিন্ন সরকার হস্তক্ষেপ করে এসেছে এবং স্বাধীনতাকামীদের বিরুদ্ধে তাদের বিরামহীন নির্যাতনমূলক সমর্থন ছিল। এছাড়া, আট বছরের পবিত্র প্রতিরোধ যুদ্ধে ইরাকের সাবেক স্বৈরতান্ত্রিক সাদ্দামের অপরাধমূলক সরকারের প্রতি আমেরিকা সমর্থন দিয়েছিল। এসব কারণে মার্কিন সরকার এমন অবস্থানে নেই যে, তারা ইরানের মহান ও চিন্তাশীল জনগণের প্রতি সমবেদনা দেখাবে। মেহর নিউজ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত