প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

হাফিজ সাঈদের সমাবেশে ফিলিস্তিনি দূতের যোগদানে কোনো ভুল নেই: পাকিস্তান

ওমর শাহ : ইসলামাবাদে নিযুক্ত ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহার করে নেয়ার পরেই তার পক্ষে নিজেদের অবস্থান জানিয়েছে পাকিস্তান। স¤প্রতি ওই রাষ্ট্রদূত জামাত-উদ-দাওয়া (জেইউডি) প্রধান হাফিজ সাঈদের সঙ্গে এক সমাবেশে অংশ নেয়ায় এ নিয়ে তীব্র হৈ চৈ শুরু করে ভারত।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, “ফিলিস্তিনি মানুষের সাথে একাত্মতা জানাতে যে সমাবেশের আয়োজন করা হয়, সেখানে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণের জন্য ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রদূত যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তার প্রতি শ্রদ্ধা রয়েছে পাকিস্তান সরকারের।”

রাওয়ালপিন্ডিতে শুক্রবারের (২৯ ডিসেম্বর) ওই সমাবেশে হাফিজ সাঈদের অংশগ্রহণ নিয়েও কথা বলেছে ইসলামাবাদ। তাদের মতে, হাফিজ সাঈদকে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করার মানে এই নয় যে, তার বাক স্বাধীনতার কোনো অধিকার থাকবে না।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়, “জনসমাবেশে সমাজের সমস্ত শ্রেণির হাজার হাজার মানুষ অংশ নিয়েছে। অর্ধশতাধিক বক্তা সমাবেশে বক্তৃতা করেছেন। এদের মধ্যে হাফিজ সাঈদও ছিলেন। তাছাড়া, জাতিসংঘ তার বাক স্বাধীনতার উপর কোন বিধিনিষেধ আরোপ করেনি।”

পাকিস্তান জানায়, শুক্রবারের সমাবেশের মতো আরো অনেক সমাবেশেই অংশ নিয়েছেন ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রদূত। ফিলিস্তিনিদের প্রতি পাকিস্তানীদের প্রবল আবেগের বহিঃপ্রকাশ হিসেবেই এ সব সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে।”

এর আগে, ফিলিস্তিনীদের সাথে একাত্মতা জানাতে রাওয়ালপিন্ডিতে আয়োজিত সমাবেশে জেইউডি প্রধান হাফিজ সাঈদের সাথে একই মঞ্চে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রদূত উপস্থিত থাকায় এটা নিয়ে ফিলিস্তিন সরকারের কাছে তীব্র আপত্তি জানায় ভারত। এর পরপরই ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ রাষ্ট্রদূতের এই সমাবেশে অংশগ্রহণ সঠিক হয়নি, এমন মন্তব্য করে ইসলামাবাদ থেকে তাকে প্রত্যাহার করে নেয়।

ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের এক বিবৃতিতে বলা হয়, “ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মনে করে, রাওয়ালপিন্ডিতে শুক্রবার জেরুজালেমের প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করে যে সমাবেশের আয়োজন করা হয়, সেখানে সন্ত্রাসবাদকে সমর্থন দেয়ার দায়ে জাতিসংঘ কর্তৃক চিহ্নিত ব্যক্তির সাথে ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রদূতের অংশগ্রহণ করাটা ছিল অনিচ্ছাকৃত, যদিও এটা গ্রহণযোগ্য নয়।” এতে বলা হয়, “তাই ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের সরাসরি নির্দেশে পররাষ্ট্র ও প্রবাস মন্ত্রণালয় পাকিস্তান থেকে রাষ্ট্রদূতকে অবিলম্বে প্রত্যাহার করে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে।” সূত্র : সাউথ এশিয়ান মনিটর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত