প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নারীরা নারীদের সাথেই থার্টিফার্স্ট উদযাপন করুক

মোহাম্মদ আবু নোমান : বর্তমানে বর্ষবরণের নামে যে অশ্লীলতা, বেহায়াপনা, ফায়ার প্লে, ডিজে এবং নগ্নতার প্রদর্শন হয় তা ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে বোধসম্পন্ন ও সভ্য মানুষের উৎসব হতে পারে না। তরুণ-তরুণীদের ধ্বংস করার জন্য যা চাই তার সবটার রসদ এ সকল অনুষ্ঠানে মজুদ থাকে। এদিনে তরুণ-তরুণীরা নৈতিকতার সব বাঁধ ভেঙ্গে অশ্লীল কর্মকা-ে লিপ্ত হয়, আর এই কর্মকা-ের অবধারিত রূপ হছে মদ্যপান ও ব্যভিচার।
থার্টিফার্স্ট নাইটের অনুষ্ঠানের নামে রাজধানী ঢাকায় প্রতি বছর যে চিত্র দেখা যায় তা সত্যিই লজ্জা ও বেদনাদায়ক। বিশেষ করে ধানম-ি, গুলশান, বনানী, বারিধারা, ডিওএইচ এবং টিএসসিতে যে হইহুল্লোড় মার্কা অনুষ্ঠান, মাদকের হাতে খড়ি, যুবক-যুবতীর ফ্রি স্টাইলে উল্লাস, ওপেন এয়ার কনসার্ট, লাইভ ড্যান্স আর লাল-নীল, পানীয় পানের যে সমারোহ চলে তাতে করে নতুন বছরের সু-কামনা, বাসনা আর প্রত্যাশার মূলেই কুঠারাঘাত করা হয়।

আনন্দের আড়ালে থার্টিফার্স্ট নাইট উদযাপন চরিত্র হননের একটি মাধ্যম। অশ্লীলতা, বেহায়পনা, নগ্নতাই যার ভিত্তি। কিন্তু সব থেকে বেশি উদ্বেগের কারণ মহিলাদের বিবেকবোধ নিয়ে। কোনো পুরুষ কোনো মেয়েকে যেখানে সেখানে যেতে বললেই কি যেতে হবে? অসময়ে, অপ্রয়োজনে বৈধ সম্পর্কের অভিভাবক ব্যতীত বিতর্কিত পরিবেশে ও পুরুষের অন্যায় আবদার মেয়েরা রক্ষা করতে যাবে কেন? তাদের কি আত্মসম্মান, ব্যক্তিত্ব বা সতিত্ববোধ বলতে কিছু নেই? মেয়েদের যদি এতই নববর্ষ উদযাপনের সখ হয়, তবে তারা মেয়েদের সাথেই উদযাপন করুক, তারা পুরুষদের মাঝে যাবে কেন? এতো হবে কাঁটা নিয়ে খেলতে গিয়ে স্বেচ্ছায় কাঁটার আঘাত খাওয়ার মত ঘটনা। কোনো ইঁদুর নিজের চোখ বন্ধ করে যদি মনে করে যে, সে সমস্ত বিড়াল থেকে নিরাপদ তবে এটা তার বোকামি নয় কি? দিবস ও উৎসবের নামে বিভিন্ন উপায়ে, ছলনায় নারীকে প্রলুব্ধ করা হয় পুরুষের ভোগের চিতায় আত্মাহুতি দেওয়ার জন্য।

ছোট্ট অঙ্গার থেকেই সূত্রপাত হয় সর্বগ্রাসী বড় অগ্নিকা-ের মহাবিপদ। বারুদের নিকট আগুন রাখা হলে বিস্ফোরণ তো হতেই পারে। চন্দ্র, সূর্য্য, রাত, দিনের নিয়মকে যেমন একত্র করতে গেলে বিশৃঙ্খলা দেখা দিবে তেমনই নর-নারীর চলার পথকে এক করতে গেলেও দেখা দিবে মহাবিশৃঙ্খলা। নর-নারী একে অপরের পরিপুরক। তবে তাদের সেই সঙ্গ দেয়ার মাপকাঠি, নিয়ম ও বিধান রয়েছে।
অনেক মা-বাবাই সকাল থেকে রাত পর্যন্ত নিজ কর্ম, প্রভাববলয় বিস্তার ও ক্যারিয়ার ডেভেলপমেন্টে ব্রতী হন এবং সন্তানদের সঙ্গ দিতে না পারায় সন্তানরাও বাবা-মার শাসন থেকে মুক্ত হয়ে একদিন নানা অপরাধকর্মে যুক্ত হবে সেটি আর বিচিত্র কী! এসব বিষয়ে সম্মানিত অভিভাবকদের আরো সচেতন হতে হবে।

লেখক : প্রাবন্ধিক ও কলাম লেখক
সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত