প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

উত্তরায় চাকরি দেওয়ার নামে নারীকে রুমে আটকে নির্যাতন

নুরুল আমিন হাসান: রাজধানীর উত্তরায় এক নারীকে চাকুরী দেওয়ার কথা বলে রুমের ভেতর আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরবর্তীতে খবর পেয়ে ১৫ ঘন্টা পর ওই নারীকে উদ্ধার করে উত্তরা পশ্চিম থানা পুলিশ।

উত্তরা ৭ নম্বর সেক্টরের লেক ড্রাইভ রোডের ৬৮ নম্বর বাসার চতুর্থ তলা থেকে শুক্রবার ভোর রাত ৪টায় বাসার তালা ভেঙ্গে ওই নারীকে উদ্ধার করে পুলিশ।

ভিকটিম ওই নারী আমাদের সময় ডটকমকে বলেন, ‘একটি জাতীয় পত্রিকায় ইপিজেডে লোক নেওয়ার বিজ্ঞপ্তি দেখি। পরবর্তীতে বিজ্ঞপ্তিতে দেওয়া মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করা হলে সাগর নামের একজন লোক ২ কপি ছবি ও শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র নিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে হাউজবিল্ডিংয়ে আসতে বলে। কথা মত ছবি ও সনদপত্র নিয়ে সকাল ১১ টায় হাউজবিল্ডিংয়ের নর্থ টাওয়ারের সামনে এসে ওই নম্বরে ফোন দিলে প্রথমে একটি বাড়ির ঠিকানা দেয়। পরবর্তীতে ৭ নম্বর সেক্টরের ঘটনাস্থলের বাড়িতে আসতে বলে’।

বাড়িতে এসে দারোয়ানকে সাগরে অফিসের কথা জিজ্ঞাসা করলে সে লিফটের ৩ (চতুর্থ) এ যেতে বলে। এমন সময় ওই বাড়িতে নাটকের সুটিং চলছিল। পরে চতুর্থ তলায় গিয়ে দেখি, এটি কোন অফিস নয়, একটি বাসা বাড়ি। অপরদিকে রুমে প্রবেশকালে অপর এক মেয়েকেও বেরিয়ে যেতে দেখতে পাই। তখন সাগর ও তার সহযোগী বশির, নাছির ও অপূর্ব আমাকে বসতে বলে। বাড়ির আনার কারণ জানতে চাইলে তারা বলে, নিচে শুটিং চলতেছে তাই এখানে নিয়ে আসা হয়েছে।

তখন পানি পিপাসা লাগলে তাদের কাছে পানি চাওয়া হয়। পরে পানি পান করার পর থেকে মাথায়া জিম জিম করে উঠে ও আস্তে আস্তে খারাপ লাগলে থাকে। এমতাবস্থায় বেরিয়ে যেতে চাইলে, তারা জোরপূর্বক মোবাইল ছিনিয়ে নেন। অতঃপর তারা আমার উপর পাশবিক নির্যাতন করে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারধর করে। পরে আমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলি বলে তিনি জানান।

তিনি বলেন, জ্ঞান ফিরে দেখি ওরা চারজন অন্য রুমে আলাপ করছে। পরে রুমের দরজা ভেতর থেকে লক করে দেই। অনেকক্ষণ খোঁজাখুঁজি করে আলমারির তালা ভেঙ্গে আমার স্বামীকে ঘটনাটি বলি। তারপর তিনি পুলিশের সহযোগীতায় আমাকে উদ্ধার করেন।

ভিকটিমের স্বামী মামুন হাওলাদার আমাদের সময় ডটকমকে বলেন, এমন ঘটনার খবর পেয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় এসে পুলিশকে খবর দেই। পরে ওই এলাকায় কর্তব্যরত পুলিশ অফিসারের সহযোগীতায় স্ত্রীকে রুমের ভেতর থেকে তালাবন্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে উত্তরা পশ্চিম থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবু তাহের আমাদের সময় ডটকমকে বলেন, ‘নারীকে রুমের ভেতর আটক রেখে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়ার পর সিনিয়র অফিসারদের অবগত করি। পরবর্তীতে ওই বাড়ির মালিককে বিষয়টি জানিয়ে রুমের তালা ভেঙ্গে ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়’।

তিনি আরো বলেন, ‘অভিযুক্ত সাগর ও তার সহযোগীদের কাজই হল চাকরীর নাম করে মেয়েদের ঢেকে নিয়ে এসে ধর্ষণ করা। এছাড়াও তাদের সাথে প্রতারণা করা। ইতিপূর্বেও উত্তরা পশ্চিম থানায় সাগরের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলাসহ একাধিক মামলা দায়ের হয়েছে’।

তাহের বলেন, ‘ঘটনাস্থলের ওই বাড়ীতে পুলিশ যাওয়ার আধা ঘন্টা আগে সে বাড়ি থেকে চলে যায়। এ ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভভ হয় নি। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে’।

রুমের ভেতর আটকে রেখে নারী নির্যাতনের ঘটনায় উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও তিনি জানান।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত