প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কুলভূষণের স্ত্রীর জুতা নিয়ে বিতর্ক
বৃহস্পতিবার সংসদে বিবৃতি দেবে ভারত সরকার

আবু সাইদ: গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে পাকিস্তানে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ভারতীয় নাগরিক কুলভূষণ যাদবের (৪৭) স্ত্রীর জুতা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে। গত সোমবার কুলভূষণের স্ত্রী ও মা পাকিস্তানে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করেন। ভারত বলছে, কুলভূষণের পরিবারের সঙ্গে অসদাচরণ করেছে পাকিস্তান; তাঁর স্ত্রীর জুতা কেড়ে নিয়ে আর ফেরত দেয়নি। অন্যদিকে পাকিস্তান বলছে, কুলভূষণের স্ত্রীর জুতায় ধাতব কিছু একটা থাকায় পরীক্ষা করার জন্য তা বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, পাকিস্তানের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র মোহাম্মদ ফয়সালের উদ্ধৃতি দিয়ে পাকিস্তানি গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, জুতায় থাকা ধাতব বস্তুটি কোনো ক্যামেরা নাকি রেকর্ডিং চিপ, তা নিশ্চিত হতে চাইছে কর্তৃপক্ষ। কুলভূষণের স্ত্রীকে পৃথক জুতা দেওয়া হয়েছে। তাঁর সব গয়নাও ফেরত দেওয়া হয়েছে। মূলত ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য সেই জুতা বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।

তবে ভারতের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, স্পষ্ট কোনো কারণ ছাড়াই কুলভূষণের স্ত্রী চেতনকুলের জুতা নিয়ে নেয়। বারবার অনুরোধের পরেও তা ফেরত দেয়নি। কুলভূষণের পরিবারের সাক্ষাতের সময় পাকিস্তান চুক্তি লঙ্ঘন করেছে। সাক্ষাতের সময় কাচের আড়ালে বসে ইন্টারকম দিয়ে কথা বলতে হয়েছে। ৪০ মিনিট সাক্ষাতের সুযোগ দেওয়া হয়।

ভারতের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পাকিস্তান বলেছে, অর্থহীন কথার লড়াইয়ে জড়ানোর কোনো ইচ্ছা তাদের নেই। কোনো উদ্বেগ থাকলে তা সাক্ষাতের সময়ই প্রশ্ন তোলা উচিত ছিল।

২১ মাস ধরে পাকিস্তানের হেফাজতে আছেন কুলভূষণ। এই দিনগুলোতে ভারতের কনস্যুলার অফিসের কোনো কর্মকর্তাকে কুলভূষণের কাছে যেতে দেওয়া হয়নি। চলতি বছরের মে মাসে ভারতের আপিলের পরিপ্রেক্ষিতে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে কুলভূষণের মৃত্যুদণ্ডের রায় স্থগিত করা হয়। পাকিস্তানের হাতে আটক হওয়ার পর এই প্রথম তাঁর সঙ্গে স্বজনদের সাক্ষাৎ করার সুযোগ দেওয়া হয়।

এদিকে, পাকিস্তানে কুলভূষণ যাদবের পরিবারের সঙ্গে যে আচরণ করা হয়েছে, সে বিষয়ে বৃহস্পতিবার লোকসভায় ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার বিবৃতি দেবে বলে জানালেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। বুধবার লোকসভায় জিরো আওয়ারে বিরোধীদের বিক্ষোভের মুখে এই মন্তব্য করেন সুষমা।

বুধবার লোকসভায় তৃণমূল কংগ্রেস, কংগ্রেস, শিবসেনা, এআইএডিএমকে সহ বিভিন্ন দলের সাংসদরা পাকিস্তানে কুলভূষণের মা ও স্ত্রীকে হেনস্থার প্রতিবাদে সরব হন। তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় পাকিস্তানের আচরণকে দ্বিচারিতা বলে উল্লেখ করেছেন। তিনি এ বিষয়ে সুষমার বিবৃতি দাবি করেন। লোকসভার কংগ্রেস নেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে কুলভূষণকে দেশে ফেরানোর দাবি জানান। শিবসেনা সাংসদ অরবিন্দ সাবন্ত বলেন, ভারতের এ বিষয়ে নীরব থাকলে চলবে না। এআইএডিএমকে সাংসদ এম থাম্বিদুরাই বলেন, একজন মহিলাকে মঙ্গলসূত্র খুলতে বলা দেশের অপমান। সুষমা সেই সময় লোকসভায় ছিলেন। তিনি বৃহস্পতিবার বিবৃতি দেওয়ার কথা জানান।

গত ১০ এপ্রিল গুপ্তচরবৃত্তি ও অন্তর্ঘাতমূলক কর্মকাণ্ডের অভিযোগে কুলভূষণকে মৃত্যুদণ্ড দেয় পাকিস্তানের সামরিক আদালত। পাকিস্তানের আন্তবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) বিবৃতিতে ওই সময় উল্লেখ করা হয়েছিল, বেলুচিস্তানের মাশকেল এলাকা থেকে গত বছরের ৩ মার্চ কুলভূষণ যাদবকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তি ও অন্তর্ঘাতমূলক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত ছিলেন বলে অভিযোগ ছিল। সূত্র: ইকনোমিক টাইমস, এনডিটিভি ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত