প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

২০১৭ সালের যত আলোচিত হ্যাশট্যাগ

লিহান লিমা : ২০১৭ সালে সন্ত্রাসী হামলা, খ্যাতনামা ব্যাক্তিদের মৃত্যু, বিভিন্ন সামাজিক ইস্যু নিয়ে অনলাইনে আলোচনা ও প্রতিবাদের বড় একটি মাধ্যম হয়ে উঠেছিল ‘হ্যাশট্যাগ (#)’। তবে এর মধ্যে ‘মি টু, টেক এ নি, কফ ফিফি’র মত নানা হ্যাশট্যাগ আলোড়ন তুলেছিল।

#মি টু
২০০৭ সালে মার্কিন অধিকার কর্মী তারানা বুর্খের মি টু মুভমেন্ট ২০১৭ সালে আবার পুনঃজাগরিত হয়। হার্ভে ওয়েইনস্টেইনের বিরুদ্ধে হলিউড অভিনেত্রী অ্যালিসা মিলানোর অভিযোগের সঙ্গে সঙ্গে বিশ্বজুড়ে নারী এবং পুরুষরা তাদের সঙ্গে ঘটে যাওয়া যৌন হয়রানির বিষয়ে মুখ খোলেন। অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত এই হ্যাশট্যাগটি টুইটার ও ফেসবুকে ৬০ লাখেরও বেশি বার ব্যবহার করা হয়েছে।

#টেক এ নি
সেপ্টেম্বরে মাত্র তিন দিনে ১২ লাখ মানুষ এটি ব্যবহার করে। জাতীয় সঙ্গীতের সময় হাঁটু অবনত না করায় যুক্তরাষ্ট্রের ফুটবল খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে এটি ব্যবহার করা হয়। সমর্থকরা মনে করেন, ফুটবলাররা আমেরিকার সংবিধানকে অসম্মান করেছেন। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও খেলোয়াড়দের নিন্দা জানান।

#কভফিফি
৩১ মে ট্রাম্পের টুইটের এই শব্দটি ভাইরাল হয় এবং এর অর্থ নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়। মধ্যরাতে ট্রাম্প লিখেছিলেন, সংবাদমাধ্যমগুলোর নেতিবাচক খবর সত্ত্বেও কভফিফি (সম্ভবত কফি) । ট্রাম্প শব্দটি ঠিক করার আগেই সামাজিক মাধ্যমে এটি ৭০ হাজার বার রি-টুইট করা হয়। ছয় ঘণ্টা পর টুইটটি মুছে ফেলা হলেও ২৪ ঘণ্টার মধ্যে শব্দটি ১৪ লাখ বার ব্যবহার হয়।

#থার্ড ডিবেট
মে’ তে ইরানের ৬ প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীর মধ্যে প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানিসহ তিন জনকে নিয়ে এই হ্যাশট্যাগটি ব্যবহার করা হয়। দিনের দেশে এটি দেড় লাখ বার ব্যবহৃত হয়। ১৯ মে রুহানি ৫৭ ভাগ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় বারের মত নির্বাচিত হন।

# ইয়ামেন ইনকোয়ারি নাউ
যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়ামেনের মানবিক সংকট নিয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করতে ইয়ামেনের ‘আল মাশিরা’ চ্যানেল দর্শকদের এই হ্যাশট্যাগটি ব্যবহারের আহ্বান জানায়। ২০১৫ সালে সৌদি জোটের নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়ে দেশটি এখন খাদ্য, ঔষধ ও জ্বালানি সংকটে ভুগছে। মাত্র ২৪ ঘণ্টার মধ্যে টুইটারে এই হ্যাশট্যাগটি ১ লাখ ২০ হাজারেরও বেশি বার ব্যবহার হয়। ব্যবহারকারীরা সৌদি আরব ও জাতিসংঘের সমালোচনা করেন এবং আন্তর্জাতিক তদন্তের আহ্বান জানান।

#আই লাভ ইউ চীন
অক্টোবরে পিপলস কংগ্রেস উপলক্ষ্যে চীন সরকার সামাজিক মাধ্যমে এই দেশপ্রেমি হ্যাশট্যাগটি ছড়িয়ে দেয়। ১ অক্টোবরে চীনের সামাজিক মাধ্যম ‘সিনা ওয়েইবো’তে এটি ৩ লাখ ২২ হাজার শেয়ার হয় এবং ৩৫ হাজার কমেন্ট পড়ে। দুই সপ্তাহের মধ্যে এটি ২০ লাখের ও বেশিবার ব্যবহার করা হয়। হ্যাশট্যাগের এই ক্যাম্পেইন প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংকে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করতে ইতিবাচক প্রভাব রেখেছিল।

# ৩০৮ রিমুভড
‘ধর্ষিতাকে বিয়ে করলে ধর্ষণের শাস্তি থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে’, জর্ডান সরকারের এই আইন বাতিল করার প্রশংসা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীরা এই হ্যাশট্যাগটি ব্যবহার করেন। শুধুমাত্র টুইটারেই ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এটি ৩ হাজার ৫০০ বারেরও বেশি পোস্ট করা হয়।

# ইটস এ ব্ল্যাক থিংস
নভেম্বরে ব্রাজিলের জনপ্রিয় টিভি উপস্থাপক উইলিয়াম ওয়াকার লাইভে জনতার তীব্র ধ্বনির একটি ফুটেজকে ‘ইটস এ ব্ল্যাক থিংস’ বলে ব্যাখা দেন। এর পরপরই সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারকারীরা ১ লাখ ৪৫ হাজার বার এর প্রতিবাদে ‘মিস ব্রাজিল’ জেতা কালো বর্ণের ‘ইকোসিয়া দি প্রেতো’র নাম হ্যাশট্যাগ হিসেবে ব্যবহার করেন। অনেকে কালো বর্ণের জুডো খেলোয়াড় রাফেলা সিলভার ছবি শেয়ার করেন, যিনি ২০১৬ রিও অলিম্পিকে ব্রাজিলের হয়ে প্রথম সোনা জিতেছিলেন। অবশেষে এই মন্তব্যের জন্য ওই উপস্থাপক বরখাস্ত হন। বিবিসি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত