প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মিরসরাই ইকোনমিক জোনে ৫৫০ একর জমি বরাদ্দ পেল এসবিজি কনসোর্টিয়াম

ইলিয়াছ রিপন, মিরসরাই (চট্টগ্রাম) : তিনটি শিল্প গ্রুপের সমন্বয়ে গঠিত কনসোর্টিয়াম ‘এসবিজি ইকনোমিক জোনকে’ মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে ৫৫০ একর ভূমি বরাদ্দ দিয়েছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ- বেজা। গতকাল বেজা কার্যালয়ে কনসোর্টিয়ামের এমডি ও মিরসরাইয়ের সাংসদ, গনপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের পুত্র মাহবুবুর রহমান ও বেজার নির্বাহী সদস্য এমদাদুল হক এ সংক্রান্ত চূড়ান্ত চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। সিকদার গ্রুপ, বসুন্ধরা গ্রুপ ও গ্যাসমিন লিমিটেড এই কনসোর্টিয়াম গঠন করেছে।

বেজার পক্ষ থেকে জানানো হয়, এককালীন ৪০ কোটি টাকার বিনিময়ে (৫০ বছরের জন্য) মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চল-১ এ ৫৫০ একর ভূমি পেয়েছে এসবিজি কনসোর্টিয়াম। এর বাইরে রয়েছে সাড়ে চার শতাংশ রেভিনিউ শেয়ারিং এবং সার্ভিস চার্জ।

কনসোর্টিয়ামের এমডি মাহবুব রহমান বলেন, জানুয়ারি থেকে এই অর্থনৈতিক অঞ্চলের মাটি ভরাট শুরু হবে। সিঙ্গাপুরভিত্তিক কোম্পানি সেমকপের অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে তারা এই অর্থনৈতিক অঞ্চলটি প্রতিষ্ঠা করবেন। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার অভিজ্ঞতা রয়েছে সেমকপের।

এক একর থেকে ২০ একর জমি নিয়ে যারা শিল্প প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠায় আগ্রহী হবে তাদেরকে এখানে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।
বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী জানান, একটি প্রতিযোগিতামূলক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ২০১৬ সালের ১৩ অগাস্ট এসবিজি কনসোর্টিয়ামকে প্রাথমিক সম্মতিপত্র দেওয়া হয়েছিল। এরপর বিভিন্ন ধাপ পার হয়ে তারা চূড়ান্ত বরাদ্দ পেল।

প্রতিযোগিতার কারণে বেজার প্রত্যাশার চেয়েও বেশি ভূমি মূল্য পাওয়ার কথা তুলে ধরে পবন চৌধুরী বলেন, ৫০ বছরের জন্য প্রতি স্কয়ারমিটার ৩০ সেন্ট করে জমি দেওয়ার টার্গেট ছিল বেজার। কিন্তু এখানে প্রতি স্কয়ার মিটার ৪৫ সেন্ট হারে ভূমি বরাদ্দা দেওয়া হয়েছে। তারা আমাদের প্রত্যাশার চেয়েও বেশি মূল্যে জমি নিয়েছে।

পবন চৌধুরী বলেন, মংলা অর্থনৈতিক অঞ্চলকে পিপিপির ভিত্তিতে কাজ দেওয়ার ক্ষেত্রে নানা বাধার কারণে কাক্সিক্ষত অগ্রগতি আসেনি। তবে সেই কাজের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে মিরসরাইয়ে ভালো ফলাফল আসবে বলে আশা করা যাচ্ছে।মিরসরাইতে বেজা অনেক কাজ এগিয়ে দিয়েছে বলেও জানান পবন চৌধুরী।

তিনি আরও বলেন, এখানে ৪২ কোটি টাকা ব্যয়ে দুটি রাস্তা করে দেওয়া হয়েছে। একটা পাওয়ার সাব স্টেশন করে দেওয়া হয়েছে। ১৪টি টিউবওয়েল, পরিকল্পনা মতো ওয়াটার রিজার্ভার করা হয়েছে। ব্রাক ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক এবং ইসলামী ব্যাংক ইতোমধ্যেই মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে এগিয়ে এসেছে।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতিনিধি নাঈম চৌধুরী, শিকদার গ্রুপের এমডি রন হক সিকদার ও গ্যাসমিন গ্রুপের এমডি মাহবুব রহমান উপস্থিত ছিলেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত