প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইসির তৎপরতায় প্রার্থীদের প্রস্তুতি

মাইকেল : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে (ডিএনসিসি) মেয়র পদে উপনির্বাচনের সংশয় এখনো কাটেনি। কারণ ভোটগ্রহণে বাধা হতে পারে, নতুন যুক্ত কাউন্সিলরদের মেয়াদ ও ভোটারদের প্রার্থী না হতে পারা। এমন শঙ্কার মধ্যেই নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। কমিশনের সাম্প্রতিক তৎপরতায় সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরাও প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন।

দলীয় মনোনয়নে গ্রিন সিগনাল পাওয়ার দাবি করে ইতোমধ্যে প্রচার শুরু করছেন নৌকা প্রতীকপ্রত্যাশী বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম। বিএনপির পক্ষ থেকে রয়েছেন গত সিটি নির্বাচনে অংশ নেওয়া তাবিথ আউয়াল। যদিও দল দুটির পক্ষ থেকে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের নাম ঘোষণা করা হয়নি।

এদিকে ইসিও ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহে নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে শিক্ষা বোর্ডের সঙ্গে বৈঠক করে ওই সময়ে পরীক্ষা পেছানোর অনুরোধ জানিয়েছে। ইসি সূত্র জানিয়েছে, ২৫ ফেব্রুয়ারি ভোট গ্রহণের তারিখ রেখে জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে তফসিল ঘোষণার প্রস্তুতি চলছে।

ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, আগামী ২৪ ও ২৫ ফেব্রুারি এসএসসি ও মাদ্রাসা বোর্ডের শেষ পরীক্ষা রয়েছে। কমিশন ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহে ভোটের তারিখ নির্ধারণ করবে। এ লক্ষ্যে জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহেই তফসিল ঘোষণা করা হবে।

ভোট আয়োজনে কোনো আইনি জটিলতা আছে কিনা এমন প্রশ্নে সচিব বলেন, কোনো আইনি জটিলতা নেই। সব ধরনের জটিলতা পেরিয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এ নির্বাচনের জন্য অনুরোধ করেছে। সেক্ষেত্রে ২৪ ফেব্রুয়ারির পর সুবিধানজনক সময়ে ভোটের তারিখ রেখে নির্বাচন করা হবে।

বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলামকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবুজ সংকেত দিয়েছেন বলে শোনা যাচ্ছে। আতিকুল ইসলামও সবুজ সংকেত পাওয়ার দাবি করে প্রচারে নেমেছেন। আতিকুল ইসলামকে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী হিসেবে দেখতে চেয়ে গুলশান-বনানীসহ ডিএনসিসি এলাকার বিভিন্ন স্থানে পোস্টার-ব্যানারও লাগানো হয়েছে। তবে এখনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়নি ক্ষমতাসীন দল।

অবশ্য এরই মধ্যে জনসংযোগ শুরু করেছেন আতিকুল ইসলাম। গতকাল মঙ্গলবার তিনি সিটি করপোরেশনভুক্ত দক্ষিণখান ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় গণসংযোগ করেছেন। এ সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি নির্বাচনী প্রচার করছি না। আমি আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গসংঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কুশলবিনিময় করছি। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী আমাকে বলেছেন, তুমি গণসংযোগ কর; আমি শুরু করেছি। আমি ডিএনসিসি এলাকার প্রতিটি ওয়ার্ডের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে কথা বলে কাজ করতে চাই।

যদিও নৌকাপ্রত্যাশীদের মধ্যে বিজিএমইএর আরেক সাবেক সভাপতি ও হা-মীম গ্রুপের মালিক একে আজাদ, সালাম মুর্শেদী, অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী ও আওয়ামী লীগ নেতা আলাউদ্দিন নাসিমের নামও আলোচনায় রয়েছে।

অন্যদিকে ডিএনসিসির মেয়র পদে উপনির্বাচন হলে তাতে অংশ নেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। তবে কাকে প্রার্থী করা হবে সে বিষয়টি স্পষ্ট করেনি। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, গতবারের মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালকে এবারও প্রার্থী করার ব্যাপারে বিএনপির নীতিগত সিদ্ধান্ত রয়েছে। এ ছাড়াও বিএনপি নেতা বরকত উল্লাহ বুলু, মেজর (অব) কামরুল ইসলাম ও ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সভাপতি এমএ কাইয়ুমও নির্বাচন করতে আগ্রহী।

তাবিথ আউয়াল বিদেশে আছেন। এ বিষয়ে তার বাবা বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু  বলেন, গত নির্বাচনের প্রেক্ষাপট, প্রাপ্ত ভোট এবং সর্বোপরি তরুণ ও উদীয়মান প্রার্থী হিসেবে জনগণের যে সমর্থন পেয়েছে তাবিথ, তাতে প্রার্থী পরিবর্তনের কোনো কারণ দেখছি না। সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে কিছু প্রাক-প্রস্তুতি তো নিতেই হয়।

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে ১৮টি করে নতুন ৩৬টি ওয়ার্ড যুক্ত হওয়ায় ডিএনসিসির মেয়র পদে উপনির্বাচন নিয়ে আইনি জটিলতার বিষয়টি আলোচিত। মেয়র পদে উপনির্বাচনের সঙ্গে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণে নতুন ৩৬টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদেও নির্বাচন হবে। তবে নতুন ভোটারদের প্রার্থী হতে পারা-না পারা এবং নির্বাচিত হওয়ার পর কাউন্সিলরদের মেয়াদ নিয়ে অস্পষ্টতা দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে আদালতের দ্বারস্ত হলে ঝুলে যেতে পারে এই নির্বাচন। এমন সংশয়ের মধ্যেও ইসি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করতে যাচ্ছে।

গতকাল ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং ঢাকা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের সঙ্গে বৈঠক করেছে ইসি। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এবারের এসএসসি পরীক্ষার যে সূচি ঘোষণা করা হয়েছে, সে অনুসারে ২৪ ও ২৫ ফেব্রুয়ারি পরীক্ষা থাকায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও বোর্ড কর্মকর্তাদের নিয়ে এই বৈঠক করে কমিশন। ২৪ ফেব্রুয়ারি ভূগোল ও পরিবেশ এবং ২৫ ফেব্রুয়ারি সংগীত বিষয়ের ব্যবহারিক পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল, যা পেছাতে সম্মত হয়েছে শিক্ষা বোর্ড।

ইসি কর্মকর্তরা জানান, ঢাকা উত্তর সিটিতে যুক্ত হয়েছে ৮টি ইউনিয়নের ১৮টি ওয়ার্ড এবং দক্ষিণে ৮টি ইউনিয়নে ১৮টি ওয়ার্ড। এনিয়ে দুই সিটি মিলে সর্বমোট নতুন যুক্ত হয়েছে ৩৬টি ওয়ার্ড। এসব ওয়ার্ডে ১০ লাখ ৫৩ হাজার ৯৯৮ ভোটার নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করার সুযোগ পাবেন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ লাখ ৩৬ হাজার ৮৩৩ জন, নারী ভোটার ৫ লাখ ১৭ হাজার ১৬১ জন। ওয়ার্ডগুলোতে সম্ভাব্য ভোটকেন্দ্র ৪৮৭টি, ভোটকক্ষ ২ হাজার ৮৩৯টি।

গত ৩০ নভেম্বর ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক মৃত্যুবরণ করেন। ১ ডিসেম্বর থেকে পদটি শূন্য ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। সেইসঙ্গে ৪ ডিসেম্বর মেয়রের শূন্য পদে নির্বাচন অনুষ্ঠানে ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব মো. মাহমুদুল আলম স্বাক্ষরিত মন্ত্রণালয়ের অনুরোধপত্র ইসি সচিবের কাছে পাঠানো হয়। সেক্ষেত্রে ৯০ দিনের মধ্যে অর্থাৎ ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে কমিশনকে এ উপনির্বাচন করতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত