প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাজনীতিতে ফের ট্রাম্পকার্ড এরশাদ

তারেক :  আগামী জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে দেশের রাজনীতিতে আবারও ‘ট্রাম্পকার্ড’ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। কি আওয়ামী লীগ, কি বিএনপি সব দলের কাছেই নতুন করে কদর বাড়ছে সাবেক এই রাষ্ট্রপতির। সর্বত্রই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠছেন তিনি। সম্প্রতি বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘জাতীয় পার্টির সঙ্গে আগামীতে বিএনপির জোট করার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না।’ অন্যদিকে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘এরশাদের শেষ কথা শোনার সময় এখনো আসেনি।’ রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, ভোটের রাজনীতিতে জাতীয় পার্টি বড় ফ্যাক্টর। দুই প্রধান দলের যেটিই ক্ষমতায় যেতে চায়, সেই দলের জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের সমর্থন প্রয়োজন হবে। সব মিলিয়ে এইচ এম এরশাদ আগামীতেও ক্ষমতার রাজনীতির ‘ট্রাম্পকার্ড’ হিসেবেই থাকছেন।

এদিকে এরশাদ বলেন, ‘জাতীয় পার্টি বর্তমানে কতটা শক্তিশালী রংপুর সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে এক লাখ ভোটের ব্যবধানে জয়ী হওয়ার মধ্য দিয়ে তা প্রমাণিত হয়েছে। আগামী দিনের রাজনীতিতে জাতীয় পার্টি যে বড় ফ্যাক্টর তা প্রমাণিত হয়েছে। জাতীয় পার্টিকে উপেক্ষা করার শক্তি কারও নেই।’ তিনি বলেন, ‘ক্ষমতায় যাওয়া আমাদের টার্গেট। রংপুরের জয়ের ধারা আমরা ধরে রাখতে চাই। দুই দলের ব্যর্থতার কারণে মানুষ জাতীয় পার্টির মধ্যেই আশার আলো দেখছে। আগামী নির্বাচনে তা প্রমাণ হবে।’ রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. তারেক শামসুর রেহমান বলেন, ‘রংপুর বা উত্তরবঙ্গই নয়, বাংলাদেশের বেশির ভাগ স্থানেই এরশাদ ও জাতীয় পার্টি সমর্থিতদের ভোটব্যাংক রয়েছে। এই ভোট নির্বাচনী ফলাফল নির্ধারণে একটি বড় ভূমিকা রাখে। বিশেষ করে যেসব আসনে ৫ থেকে ১০ শতাংশ ভোটের ব্যবধানে প্রার্থীর জয়-পরাজয় নির্ধারিত হয় সেসব আসনে জাতীয় পার্টির এই ভোটব্যাংক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। জাতীয় পার্টি বরাবরই বাংলাদেশের সংসদীয় রাজনীতিতে একটা বড় ফ্যাক্টর।’ জাপা নেতা-কর্মীরা বলছেন, ১৯৯৬ সালে জাতীয় পার্টির সমর্থন নিয়ে দীর্ঘ ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে। ২০০১ সালের নির্বাচনের আগে বিএনপি, জাতীয় পার্টি, জামায়াত মিলে জোট গঠিত হয়। ভুল বোঝাবুঝির কারণে নির্বাচনের ঠিক আগমুহূর্তে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ওই জোট ত্যাগ করে এককভাবে নির্বাচনে অংশ নেন।

জোটের রাজনীতির সুফল বুঝতে পেরে ২০০৮ সালের নির্বাচনে জাতীয় পার্টিকে নিয়ে আওয়ামী লীগ মহাজোট গঠন করে এবং সরকার গঠনে সক্ষম হয়। একইভাবে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বিএনপি-জামায়াত বর্জন করলেও জাতীয় পার্টি অংশ নেওয়ার কারণে তা বৈধতা পায়। তারা বলছে, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমরা কত আসন পেলাম তা বড় কথা নয়। আমাদের সমর্থন নিতে হলে সরকারপ্রধান হবেন এইচ এম এরশাদ। এদিকে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়লাভের মধ্য দিয়ে জাতীয় পার্টির সক্ষমতা নিয়ে নতুন করে হিসাব-নিকাশ শুরু হয়েছে। ফলে এরই মধ্যে সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদকে নিয়ে রাজনীতির ভিতরে-বাইরে সর্বত্র আলোচনা শুরু হয়েছে। আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টিকে পাশে পেতে চাচ্ছে। বিএনপি থেকেও নানা টোপ দেওয়া হচ্ছে। নির্বাচন সুষ্ঠু হলে বড় দুই দলের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে থার্ড পার্টি হিসেবে বাজিমাত করতে পারে চলতি সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টি।

জানতে চাইলে জাতীয় পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, ‘আগামীতে পল্লীবন্ধু এরশাদ ও জাতীয় পার্টিকে উপেক্ষা করে কেউ ক্ষমতায় যেতে পারবে না। কারণ জনগণ আমাদের সঙ্গে রয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘৩০০ আসনে নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছি। প্রার্থী বাছাই চলছে। অনেকে জাতীয় পার্টিতে যোগ দিচ্ছেন। আরও অনেকে যোগ দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। যোগ্যতা বিবেচনায় নিয়ে প্রার্থী মনোনীত করব।’ তার মতে আগামী নির্বাচন আওয়ামী লীগের জন্য কঠিন পরীক্ষা। বিএনপির অস্তিত্ব রক্ষার প্রশ্নও বটে। এজন্য অনেক আগে থেকেই জনপ্রিয় ও ক্লিন ইমেজের প্রার্থীর সন্ধান করা হচ্ছে। একাদশ জাতীয় নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে এবং বিএনপি এই নির্বাচনে মরণ কামড় দিয়ে নামবে— এই ধারণায় ১৪-দলীয় জোটের পরিধি বাড়ানোর কাজ শুরু করে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। তাই উভয় দলই জাতীয় পার্টিকে পাশে পেতে চাচ্ছে।

পার্টির ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা বলেন, ‘আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির সমর্থন ছাড়া কোনো দল এককভাবে ক্ষমতায় যেতে পারবে না। বরাবরের মতো এবারও ক্ষমতায় যাওয়ার ট্রাম্পকার্ড এইচ এম এরশাদ।’ এইচ এম এরশাদের উপদেষ্টা কাজী মামুন বলেন, ‘জাতীয় পার্টিকে দিয়ে আওয়ামী লীগ বার বার নির্বাচনী বৈতরণী পার হয়েছে। আর আগাম জোট নয়। আসন যাই পাই না কেন, নির্বাচনের পর এইচ এম এরশাদের নেতৃত্বে সরকার গঠন হবে এমনটা মেনেই জোট হতে পারে। তবে আমাদের লক্ষ্য এককভাবে সরকার গঠন।’ গত সংসদ অধিবেশনে জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদও আওয়ামী লীগের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। আসন বণ্টন নিয়ে কথা বলেছেন। আওয়ামী লীগ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতো এবারও যুগপত্ভাবে নির্বাচন করার প্রস্তাব দিয়েছে এরশাদকে। তবে এ বিষয়ে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, ‘আপাতত মহাজোট নিয়ে ভাবছি না। নির্বাচন সামনে এলে জোট-মহাজোট নিয়ে আলোচনা হবে। এখন আমরা এককভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছি।’ জাপা নেতা-কর্মীরা বলছেন, এমনিতেই হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সরকার গঠনের রাজনীতিতে বড় ফ্যাক্টর। উপরন্তু রংপুরে সিটি মেয়র পদে জয়ের মধ্য দিয়ে এরশাদের রাজনৈতিক দরকষাকষির শক্তি আরও বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ভোটের রাজনীতির নানা সমীকরণ ও বাস্তব কিছু প্রেক্ষাপট বিবেচনায় নিলে এক কথায় বলা যায়, এরশাদ যেদিকে, ক্ষমতাও সেদিকে ঝুঁকবে।

পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মীর আবদুস সবুর আসুদ বলেন, ‘পিরোজপুর-৩ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ডা. রুস্তম আলী ফরাজী জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়েছেন। সাবেক, বর্তমান আরও একাধিক সংসদ সদস্য ও প্রভাবশালী নেতা জাতীয় পার্টিতে যোগ দেওয়ার অপেক্ষায় আছেন।’ আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য তাজ রহমান বলেন, ‘আমরা এককভাবে নির্বাচন করব। আমাদের জনপ্রিয়তা আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। আমরা এককভাবে সরকার গঠনের উদ্দেশ্যে নির্বাচন করব।’ জাতীয় পার্টির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায়, বিএনপি নেতারা প্রকাশ্যে কিছু না বললেও আড়ালে-আবডালে জোটে ভেড়ার নানা টোপ দিচ্ছেন তাদের পার্টিকে। বিএনপির অধিকাংশ নেতা গোয়েন্দা নজরদারিতে থাকায় এ প্রস্তাব সরাসরি এরশাদের কাছে পৌঁছানো যাচ্ছে না। সব মিলিয়ে আগামী নির্বাচনে এইচ এম এরশাদ ফের ক্ষমতার ট্রাম্পকার্ডের ভূমিকা পালন করবেন।

উৎসঃ বিডি-প্রতিদিন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত