প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কুলভূষণকে চাপ দিয়ে শেখানো কথা বলানো হয়েছে : সুষমাকে মা-স্ত্রী

আবু সাইদ: কুলভূষণ যাদবের সঙ্গে ইসলামাবাদে দেখা করে দেশে ফেরার পরদিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে তাঁর বাসভবনে গিয়ে দেখা করলেন তাঁর মা ও স্ত্রী। সূত্রের খবর, সেখানে ছিলেন ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারাও। সোমবার পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের কার্য্যালয়ে রীতিমতো বজ্রআঁটুনির মধ্যে কাচের পার্টিশন দেওয়া ঘরে পাকিস্তানে নাশকতা, চরবৃত্তিতে দোষী সাব্যস্ত, মৃত্যুদণ্ড পাওয়া প্রাক্তন ভারতীয় নৌ কমান্ডার কুলভূষণের সঙ্গে তাঁদের দেখা করিয়ে দেওয়া হয়। কথা হয় ইন্টারকমে। মাত্র ৪০ মিনিটের সাক্ষাত্কারের পর পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাংবাদিক সম্মেলন করে কুলভূষণকে ‘ভারতীয় সন্ত্রাসবাদের মুখ’ বলে জানিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা আগের অভিযাগেরই পুনরাবৃত্তি করেন।

ভারত বলেছে, ওই বৈঠকের ফিডব্যাক আমরা পেয়েছি, তাতে মনে হচ্ছে, যাদব প্রচণ্ড চাপের মধ্যে ছিলেন, কথা বলছিলেন ভীতি-আতঙ্ক, খবরদারির আবহাওয়ায়। যাদবের কথাগুলি পরিষ্কার শিখিয়ে পড়িয়ে নেওয়া, ওসব তাঁকে বলতে বলা হয়েছিল। পাকিস্তানে তাঁর কার্যকলাপ সম্পর্কে যে মিথ্যা ভাষ্য ছড়ানো হয়েছে, সেটা ঠিক বলে দেখানোই উদ্দেশ্য এর। কুলভূষণকে যে চেহারায় দেখা গিয়েছে, তাতে তাঁর শরীর-স্বাস্থ্য ঠিক আছে কিনা, তিনি আদৌ ভাল, সুস্থ আছেন কিনা, সেই প্রশ্নও উঠছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের বক্তব্য, ওই বৈঠকের আগে তার পদ্ধতি স্থির করতে দু দেশের সরকার কূটনৈতিক চ্যানেলে যোগাযোগ রেখে চলছিল। এ নিয়ে উভয় তরফের মধ্যে স্পষ্ট বোঝাপড়া হয়েছিল, ভারত তার যাবতীয় প্রতিশ্রুতিও পালন করে। কিন্তু আমরা দুঃখের সঙ্গে দেখলাম, পাকিস্তান এমনভাবে বৈঠকটা করাল যা আমাদের বোঝাপড়ার মূল মর্মবস্তুকেই নাকচ করেছে। আগাম নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থার নামে কুলভূষণের পরিবারের সদস্যদের ধর্মীয়, সাংস্কৃতিক অনুভূতিকে অপমান করা হয়েছে। তাঁদের মঙ্গলসূত্র, চুড়ি, টিপ খুলে ফেলতে হয়, এমনকী পোশাকও বদলাতে হয়। নিরাপত্তার স্বার্থে এর দরকারই ছিল না। কুলভূষণের মাকে তাঁদের মাতৃভাষায় কথা বলতে দেওয়া হয়নি, এমনকী বারবার কথার মাঝেই তাঁকে বাধাও দেওয়া হয়। যেভাবে এই বৈঠক করানো হয়েছে এবং তার যা পরিণতি হল, তার উদ্দেশ্যই ছিল যাদবের বিরুদ্ধে তোলা মিথ্যা, অপ্রমাণিত অভিযোগকে জোরদার করে দেখানো। এই গোটা প্রক্রিয়ার কোনও বিশ্বাসযোগ্যতাই নেই।

গত মে মাসে আন্তর্জাতিক ন্যয় আদালত ৪৭ বছর বয়সি ভারতীয় নাগরিক কুলভূষণের ফাঁসির সাজা কার্যকর করার ওপর স্থগিতাদেশ দেয়। – ইন্ডিয়া টুডে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত