প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভূতের মুখে রাম নাম

সুভাষ সিংহ রায় : বাংলাদেশের মানুষ কিছুই ভুলে যায়নি। গোটা দেশের মানুষ সাক্ষী হয়ে আছে- জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে যারা ক্ষমতায় এসেছিল, তারাই পাকিস্তানি কায়দায় দেশ চালিয়েছিল। পাকিস্তানতন্ত্রকে কায়েম করার জন্য যেসকল পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন ছিল, সেই সব পদক্ষেপই তারা নিয়েছিলেন। পাকিস্তানের পক্ষের মানুষদের তারা রাজনীতিতে পুনর্বাসন করেছেন। শুধু তাই নয়, দেশের মানুষ দেখেছে, বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের পরে ১১ হাজার যুদ্ধ বন্দিকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে বলা হয়েছিল, আপনারা যারা নাগরিকত্ব হারিয়েছেন, তারা আবেদন করলে নাগরিকত্ব ফিরে পাবেন। তাদের সকলকে নাগরিকত্ব ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। পাকিস্তানের নাগরিক গোলাম আজমকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে এনে, তাকে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছিল। তিনি পাকিস্তানের নাগরিক হয়ে বাংলাদেশের একটি রাজনৈতিক দলের প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এই কাজ কখন হয়েছিল ? কারা তাকে এই সুযোগ করে দিয়েছিল? সবাই জানে আজকের এই বিএনপি পাকিস্তানের দালালদের বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত করেছিল। সবচেয়ে বড় জঘন্য ব্যাপার হচ্ছে- ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে আমরা যে জাতীয় পতাকা অর্জন করেছি, বিএনপি যুদ্ধাপরাধিদের স্বাধীন বাংলাদেশে মন্ত্রি বানিয়ে গাড়িতে সেই জাতীয় পতাকা দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতাকে কলঙ্কিত করেছে। সর্বশেষ তাদের ২০ দলীয় জোটের প্রধান শরিক দল হচ্ছে যুদ্ধাপরাধী জামায়াতে ইসলামী। সেই সাথে জামায়াতের নেতাদের যুদ্ধাপরাধের অপরাধে যখন বিচার হয় তখন পাকিস্তানের পার্লামেন্টে নিন্দা প্রস্তাব করলে, বিএনপি তখন নিরব থাকে। সেই বিএনপি, যে বিএনপি পাকিস্তানকে ধারণ করে, ললন করে বেঁচে আছে। পাকিস্তানের টাকায় বাংলাদেশে রাজনীতি করে। সেই বিএনপি নেত্রী যদি বলে- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ পাকিস্তানি কায়দায় দেশ চালাচ্ছে, তাহলে তা দেশের মানুষকে হাসিয়েছে। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার কাথায় উত্তর দিতে চাই না। শুধু একটা কথাই মনে পড়ছে। ভূতের মুখে রাম রাম।

পরিচিতি : সিনিয়র সাংবাদিক
মতামত গ্রহণ : লিয়ন মীর
সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত