প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সান্তা ক্লজকে শিশুরা এখন কতটুকু বিশ্বাস করে?

কামরুল আহসান : বড়দিনের আগের রাতে সান্তা ক্লজ আসবেন হরিণটানা গাড়িতে করে, বাচ্চাদের নানারকম উপহার দিবেন, দরজার সামনে চকোলেট রেখে যাবেন, এরকম বিশ্বাস এক সময় প্রায় রূপকথার গল্পের মতোই ছিল খ্রিস্টান শিশুদের মনে। কিন্তু, এখনো আসলে কতো ভাগ শিশু এ গল্পে বিশ্বাস করে। আধুনিক রঙিন পোশাক পরা সান্ত ক্লজকে তো তারা ভালো করেই চিনে, টিভিতে দেখে, বাচ্চাদের সাথে নেচে- গেয়ে তারা উৎসব করে।

১৯৭৮ সালে চালানো যুক্তরাষ্ট্রের এক জরিপে দেখা গেছে ৪ বছর বয়সের ৮৫ ভাগ শিশু, ৬ বছর বয়সের ৬৫ ভাগ শিশু এবং ৮ বছর বয়সের ২৫ ভাগ শিশু বিশ্বাস করে যে সান্তা ক্লজ সত্যিই আছেন। তিনি এ পৃথিবীর কোনো মানুষ না। তিনি যেন সত্যিই রূপকথার কোনো দেশ থেকে এসে আবির্ভূত হন। আশ্চর্য ব্যাপার, এতো বছর পরও, ২০১১ সালে আরেক জরিপ চালিয়ে দেয়া গেছে, সান্তার প্রতি রহস্যময় বিশ্বাসটা এখনো অনেক শিশুর মনে একইরকম রয়ে গেছে। ২০১১ সালের এক জরিপে দেখা যায়, ৫ বছর বয়সের নিচে ৮৩ শতাংশ শিশুরা এখনো বিশ্বাস করে সান্তা ক্লজরা সত্যিই আছেন। কোনো মানুষ সান্তা সাজে না। তারা সত্যিই অন্য কোনো দেশ থেকে আসেন। হয়তো স্বর্গ থেকে।

সাম্প্রতিক জরিপেও একই ফলাফল দেখা গেছে। ভার্জিনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞানী জর্জ ম্যাসন বলেছেন, আমরা সত্যিই বিস্মিত হয়েছি সান্তার প্রতি বাচ্চাদের এখনো একইরকম বিশ্বাস দেখে। চার থেকে পাঁচ বছরের শিশুদের মধ্যে ৮৫ ভাগই এখনো বিশ্বাস করে সান্তার সত্যিই অস্তিÍত্ব আছে। তবে আট বছরের পর থেকে তারা স্মার্ট হয়ে যায়, তাদের ভুল ভাঙতে শুরু করে। তারা বুঝতে পারে কোনো মানুষকেই আসলে সান্তা সাজানো হয়।

তবে বিশ্বাসটা যাই হোক, তাদের মনে আনন্দটা একই থাকে। একটু বড় বাচ্চারা বলেছে, তারা যখন বুঝতে পেরেছে সান্তা আসলে একজন মানুষ, তিনি শুধুমাত্র ওরকম সাজেন, তখন আরো মজা পেয়েছে। সান্তা তাদের সব সময়ই বন্ধু। বড়দিনের আগের রাতে সব শিশুই সান্তার উপহারের উপেক্ষায় থাকে, আর বড়রাও তাদের শিশুবেলার স্মৃতি মনে করে রোমন্থন হয়, ছোটদের তারা উৎসাহ দেয়। আর বড় দিন আসার আগে থেকেই বড়রা ছোট ছোট শিশুদের গল্প শুনাতে থাকে, ওই তো সান্তা আসছে হরিণটানা গাড়িতে করে, তোমার জন্য নিয়ে আসছে অনেক অনেক চকোলেট। সিএনএন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত