প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীদের শুভ বড়দিন
রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলীয় নেতা, খালেদা জিয়া ও এরশাদসহ রাজনীতিবিদদের শুভেচ্ছা

রফিক আহমেদ : খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শুভ বড়দিন সোমবার। এই দিনে খ্রিস্টধর্মের প্রবর্তক যিশুখ্রিস্ট বেথলেহেমে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। খ্রিস্টধর্মাবলম্বীরা বিশ্বাস করেন, সৃষ্টি-কর্তার মহিমা প্রচার এবং মানবজাতিকে সত্য ও ন্যায়ের পথে পরিচালিত করতে প্রভু যিশুর এই ধরায় আগমন ঘটেছিল। রোববার বড়দিন উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদসহ বিভিন্ন দলের রাজনৈতিক নেতারা পৃথক পৃথক বাণীতে শুভেচ্ছা জানান।

অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশের খ্রিস্টধর্মানুসারীরাও যথাযথ ধর্মীয় আচার, আনন্দ-উৎসব ও প্রার্থনার মধ্য দিয়ে দিনটি উদযাপন করছেন। আজ সোমবার সরকারি ছুটির দিন।

দিনটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খ্রিস্টধর্মাবলম্বীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বাণী দিয়েছেন। বাণীতে রাষ্ট্রপতি বলেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ বাংলাদেশ। আবহমানকাল ধরে এ দেশে সব ধর্মের মানুষ পারস্পরিক ভালোবাসা ও সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ। বিদ্যমান সম্প্রীতির এই সুমহান ঐতিহ্যকে আরো সুদৃঢ় করতে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে অবদান রাখতে হবে। প্রধানমন্ত্রী এ পুণ্যদিন উপলক্ষে খ্রিস্টান সম্প্রদায়সহ জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে সকলকে ঔদার্য এবং মানবতার মহান ব্রতে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের কল্যাণ ও উন্নয়নে এগিয়ে আসার উদাত্ত আহ্বান জানান। তিনি আশা করেন, বড়দিন দেশের খ্রিস্টান ও অন্যান্য সম্প্রদায়ের মধ্যকার বিরাজমান সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতিকে আরো সুদৃঢ় করবে।

বড়দিন উপলক্ষে এক বাণীতে জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ বলেন, বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক দেশ হিসেবেÑ সকল ধর্ম-বর্ণের সবাই সমান অধিকার নিয়ে মিলেমিশে বাস করছেন। আমাদের এই ঐতিহ্য চিরদিন অব্যাহত থাকবে।

বড়দিন উপলক্ষে বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। একই সঙ্গে তাদের সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করেছেন তিনি। দলের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বার্তায় বিএনপি প্রধান বলেন, সত্য, ন্যায় ও করুণার পথ প্রদর্শক মহান যীশুখ্রিস্ট এদিনে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। বিশ্বের সকল খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীর কাছে তাই এ দিনটি অত্যন্ত মহিমান্বিত ও মর্যাদাপূর্ণ। তিনি বলেন, সকল ধর্মের মর্মবাণী শান্তি ও মানবকল্যাণ। যুগে যুগে মহামানবগণ মানুষের সৎ পথে চলার দিশারী হয়েছিলেন।মানুষকে অনুপ্রাণিত করেছিলেন ন্যায় ও কল্যাণের পথে চলতে। মহান যীশুখ্রিস্টও একইভাবে তার অনুসারীদের সৎকর্ম ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় উদ্বুদ্ধ করে গেছেন।

বড়দিন উপলক্ষে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বী সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ দেশের খৃষ্টান নাগরিকদের প্রতি শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।

বড়দিন উপলক্ষে প্রদত্ত এক বাণীতে সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ বলেন, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্তের দেশ হিসেবেÑ সকল ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাই সমান অধিকার নিয়ে সহবস্থানে বিশ্বাস করি। আমাদের এই ঐতিহ্য চিরদিন অটুট থাকবে। তিনি এই বড়দিনে সকল খৃস্টান ভাই-বোনের অব্যাহত সুখ-শান্তি-সমৃদ্ধি কামনা করেন। রোববার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে পার্টির চেয়ারম্যানের প্রেস অ্যান্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভরায় এ কথা জানান।

বড়দিন উপলক্ষে বাংলাদেশ খ্রিস্টান এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট নির্মল রোজারিও এবং মহাসচিব হেমন্ত আই কোড়াইয়া রোববার এক যুক্ত বিবৃতিতে বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের লোকজনকে প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বড় দিন ধনী দরিদ্র নির্বিশেষে সকলের জন্য আনন্দ বার্তা বয়ে আসুক এই কামনা করেছেন নেতৃদ্বয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত