প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আওয়ামী লীগ-বিএনপিসহ এ শহর সবার

ডেস্ক রিপোর্ট : : ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন বলেছেন, ঢাকা শহর যেমন একজন আওয়ামী লীগ কর্মীর তেমনি বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ সবার; যারা রাজনীতি করেন না তাদেরও। এ শহর সবার। গতকাল রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির (বাপুস) বার্ষিক সাধারণ সভায় এসব কথা বলেন তিনি। সভার উদ্বোধন করেন এফবিসিসিআইর সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাপুস সভাপতি মো. আরিফ হোসেন। এ সময় সমিতির সহসভাপতি মো. সালাহউদ্দিন, সাবেক সহসভাপতি শ্যামল পাল, কামরুল হাসান শায়ক, ইঞ্জিনিয়ার মেহেদী হাসানসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সমিতির সহসভাপতি শরীফুল আলম ও সাবেক পরিচালক নেসার উদ্দিন আইয়ুব। সারা দেশের কয়েক হাজার লাইব্রেরিয়ান এ সভায় অংশ নেন।

বক্তব্যে সাঈদ খোকন আরও বলেন, আগে যথাসময়ে বই পেত না শিক্ষার্থীরা। এখন জানুয়ারির শুরুতে বই চলে যায় ছাত্রছাত্রীদের হাতে। বাপুসের এতে ভূমিকা রয়েছে। দলমতনির্বিশেষ সবার জন্য শহরের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন উল্লেখ করে মেয়র বলেন, আগে ১০ শতাংশ স্ট্রিট লাইট ছিল না। এখন ৯৯ শতাংশ স্ট্রিট লাইট সচল রয়েছে। ঢাকাবাসীর স্বার্থে বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড হাতে নিয়েছে সিটি করপোরেশন। ০৯৬১১০০০৯৯৯ নম্বরে কল করলে ডিএসসিসির ডাক্তার বাসায় গিয়ে চিকিৎসা দিয়ে বিনামূল্যে ওষুধ দিয়ে আসবেন। এফবিসিসিআইর সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ‘শিক্ষিত ও সৃজনশীল জাতি গঠনে ভূমিকা রাখছে পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি। দেশে মানসম্পন্ন শিক্ষকের অভাব রয়েছে। তাই শিক্ষাব্যবস্থায় অনেক রেফারেন্স বইয়ের প্রয়োজন রয়েছে। বাপুসের সঙ্গে অনেক শিল্প জড়িত। শিক্ষা আইনে সৃজনশীল অনুশীলনমূলক বই নিয়ে আমরা শিগগিরই শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনায় বসব।’

সভাপতির বক্তব্যে মো. আরিফ হোসেন বলেন, প্রস্তাবিত শিক্ষা আইনে সৃজনশীল অনুশীলনমূলক সহায়ক বই প্রকাশ ও বিক্রয় পরিপন্থী উল্লেখ করে যে ধারা-উপধারা আছে তা আইনে পরিণত হলে দেশের ২৮ হাজার বইয়ের দোকান বন্ধ হয়ে যাবে। ২৫ লাখ মানুষ বেকার হয়ে পড়বে। এসব শিল্পে ব্যক্তিগত ও ব্যাংক খাতের হাজার হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ রয়েছে; যা প্রস্তাবিত শিক্ষা আইন বাস্তবায়ন হলে বিপর্যয়ের মুখে পড়বে। সহায়ক বই বন্ধ হলে ছাত্রছাত্রীরা কোচিং ও প্রাইভেট টিউটরের ওপর নির্ভরশীল হবে। বাপুসের বার্ষিক সাধারণ সভায় বাংলাদেশ মুদ্রণ শিল্প সমিতি, জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতি, বাংলাদেশ মুদ্রক ও বিপণন সমিতি, বাংলাদেশ পুস্তক বাঁধাই মালিক সমিতি, কালি শিল্প সমিতি, বাংলাদেশ পেপার মিলস্ অ্যাসোসিয়েশনের নেতা, ওয়ার্ড কাউন্সিলর সারোয়ার হোসেন আলো, ওয়ারী থানা আওয়ামী লীগের চৌধুরী আশিকুর রহমান, আবুল হোসেনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশ প্রতিদিন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত