প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

উ: কোরিয়ার ওপর জাতিসঙ্ঘের নতুন নিষেধাজ্ঞা
ট্রাম্পের টুইট : যুদ্ধ নয় শান্তি চায় বিশ্ব

ডেস্ক রিপোর্ট : সর্বশেষ ব্যালিস্টিক পেণাস্ত্র পরীার জেরে উত্তর কোরিয়ার ওপর নতুন করে কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদ। শুক্রবার জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য রাষ্ট্রগুলো সর্বসম্মতভাবে যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি খসড়া প্রস্তাবটির পে ভোট দেয়। এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় জাতিসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রশংসা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

২৯ নভেম্বর সর্বশেষ পরীামূলক আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক পেণাস্ত্র উৎপেণ করেছিল উত্তর কোরিয়া। এটি ছিল দেশটির পরীতি সবচেয়ে দীর্ঘ পাল্লার ব্যালিস্টিক পেণাস্ত্র। এই পেণাস্ত্রটি যুক্তরাষ্ট্রের যেকোনো অংশে আঘাত হানতে সম বলে জানিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষজ্ঞরা। যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবটির পে নিরাপত্তা পরিষদের ১৫ সদস্য রাষ্ট্রের সবাই ভোট দেয়। উত্তর কোরিয়ার ঘনিষ্ঠ বাণিজ্যিক অংশীদার চীন ও রাশিয়াও প্রস্তাবটির পে ভোট দিয়েছে।

পাস হওয়া প্রস্তাবটিতে উত্তর কোরিয়ায় পরিশোধিত পেট্রোলিয়াম পণ্য ও অপরিশোধিত খনিজ তেল সরবরাহ ৯০ শতাংশ কমানোর পদপে নেয়া হয়েছে। শেষ মুহূর্তে প্রস্তাবটিতে একটি সংশোধনী এনে বিদেশে কাজ করা সব উত্তর কোরীয় নাগরিককে প্রাথমিকভাবে প্রস্তাব করা ১২ মাসের বদলে ২৪ মাসের মধ্যে দেশে ফেরত পাঠানোর কথা বলা হয়েছে।

প্রবাসী কর্মজীবীরা উত্তর কোরিয়ার বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের অন্যতম প্রধান উৎস। এসব নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি উত্তর কোরিয়ার বৈদ্যুতিক ও অন্যান্য যন্ত্রপাতিসহ পণ্য রফতানি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। নতুন করে এসব নিষেধাজ্ঞা আরোপের আগে থেকেই দেশটির ওপর বড় ধরনের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র, জাতিসঙ্ঘ ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।

উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক ও পেণাস্ত্র কর্মসূচি নিয়ে উত্তেজনা বেড়েই চলেছে। নিরাপত্তা পরিষদের নিষেধাজ্ঞা উপো করে দেশটি এসব কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে। পাশাপাশি পিয়ংইয়ং ও হোয়াইট হাউজের মধ্যে উসকানিমূলক বাদানুবাদে পরিস্থিতি বিস্ফোরক হয়ে উঠেছে। চলতি বছরের ৩ সেপ্টেম্বর উত্তর কোরিয়ার তাদের ষষ্ঠতম ও সবচেয়ে শক্তিশালী পারমাণবিক পরীা চালানোর পর দেশটির বিরুদ্ধে কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল নিরাপত্তা পরিষদ। এই নিষেধাজ্ঞাকে ‘গণহত্যার শামিল’ উল্লেখ করে ‘নিষ্ঠুর নিষেধাজ্ঞা’ তুলে নেয়ার দাবি করেছিল দেশটি।

যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিকেরা পরিষ্কার করে বলেছেন, উত্তর কোরিয়ার সমস্যার কূটনৈতিক সমাধান চান তারা; কিন্তু দেশটির নেতা কিম জং উনের ওপর চাপ বৃদ্ধি করতেই নতুন করে কঠোর ওই নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাব করেছেন। জাতিসঙ্ঘে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি বলেছেন, ‘এর মধ্য দিয়ে উত্তর কোরিয়াকে স্পষ্টত এ বার্তাই দেয়া হলো যে, এরপরও তারা বেপরোয়া আচরণ চালিয়ে গেলে আরো শাস্তি পাবে এবং (বিশ্ব থেকে) আরো বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে।’ নিরাপত্তা পরিষদের এই ভোটাভুটির বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানানোর জন্য জাতিসঙ্ঘে নিযুক্ত উত্তর কোরীয় মিশনকে অনুরোধ করা হলেও তাৎণিকভাবে তারা সাড়া দেয়নি।

এ দিকে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় জাতিসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রশংসা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘নিরাপত্তা পরিষদের ভোটাভুটি প্রমাণ করেছে, বিশ্ব শান্তি চায়, মৃত্যু নয়।’ ট্রাম্প টুইটে বলেন, ‘উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে আরো ব্যবস্থা নিতে নিরাপত্তা পরিষদ প্রস্তাবের পে ১৫-০ ভোট দিয়েছে। বিশ্ব শান্তি চায়, মৃত্যু নয়!’ নয়া দিগন্ত

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত