প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ব্যয়বহুল রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্প দেশকে ঝুঁকির মুখে ফেলবে : আনু মুহাম্মদ

রফিক আহমেদ : তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেছেন, জনগণকে অন্ধকারে রেখে পারমাণবিক যুগে প্রবেশের কথা বলে যে প্রকল্পের উদ্বোধন করা হলো এই ‘ব্যয়বহুল রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্প দেশকে ঝুঁকির মুখে ফেলবে’। শনিবার বেলা ১১টায় রাজধানীর মুক্তিভবনের প্রগতি সম্মেলন কক্ষে ‘রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প : সমাধান না বিপদ’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় তিনি একথা বলেন।

আনু মুহাম্মদ বলেন, প্রকল্পের স্থান নির্বাচন থেকে শুরু করে প্রকল্প পরিচালনা, পানির ব্যবহার, পারমাণবিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও পারমাণবিক দুর্ঘটনা এমনকি অর্থনৈতিক বিবেচনা থেকেও এই প্রকল্প দেশের স্বার্থ রক্ষা করবে না। তিনি বিদ্যুৎ উৎপাদনে জাতীয় কমিটি প্রস্তাবিত বিকল্প পথ বাস্তবায়নে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, সারাবিশ্ব যখন নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যবহার করে কম খরচে বিদ্যুৎ উৎপাদনের দিকে এগোচ্ছে, তখন বাংলাদেশে ১ লাখ ১৮ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে রূপপুর প্রকল্প কোনোভাবেই জনস্বার্থে হচ্ছে না। তিনি সরকারকে দেশের স্বার্থে রামপাল-রূপপুর প্রকল্প থেকে সরে আসার আহ্বান জানিয়ে বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদনে জাতীয় কমিটি প্রস্তাবিত পথে এগুলে কম খরচে পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ উৎপাদনও করা যাবে আবার দেশের স্বার্থ সংরক্ষণও হবে।

ডা. আব্দুল মতিন বলেন, রূপপুর প্রকল্পের পারমাণবিক বর্জ্য রাশিয়া নিয়ে যাবে বলে যে কথা বলা হচ্ছে সেটা সঠিক নয়। সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে দুর্ঘটনা ঘটবে না বলেও যেটা বলা হচ্ছে তা আন্তর্জাতিক পর্যায়ের বিশেষজ্ঞরা গ্রহণ করেন না। রাশিয়া তার অর্থনৈতিক বিবেচনা থেকে বাংলাদেশসহ অন্যান্য দেশে এ ধরনের পারমাণবিক প্রকল্প করার ব্যাপারে ঋণ দিচ্ছে। এতে তারা তাদের স্বার্থ দেখছে, অথচ আমরা আমাদের স্বার্থ দেখছি না।

জাতীয় কমিটি সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় লিখিত বক্তব্য উত্থাপন করেন আবুল হাসান রুবেল। রূপপুর প্রকল্পের বিভিন্ন দিকের মূল্যায়ন তুলে ধরেন প্রকৌশলী মওদুদুর রহমান। বক্তব্য রাখেন অর্থনীতিবিদ সুজিত চৌধুরী, রাজনীতিক রুহিন হোসেন প্রিন্স, সৈয়দ আবুল কালাম, ডা. ফজলুর রহমান, অধ্যাপক মোশাহিদা সুলতানা, মিজানুর রহমান, ইমরান হাবিব রুম্মন ও বিথী ঘোষ প্রমুখ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত