প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভয়ের জায়গা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে : মাহমুদুর রহমান মান্না

খন্দকার আলমগীর হোসাইন : ভয়ের জায়গা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে। জীবন তো একটাই। ধরে নিয়ে গিয়ে আমাকে ২৪ ঘণ্টা গুম করে রেখেছিল। সবাই মনে করেছিল, আমি আর ফিরবো না। যাই হোক ফিরে এসেছি। ভয় পেলে, লোভে পড়লে তো আর জাতির কোনো উন্নতি হবে না। বাঙালি জাতির নৈতিক ভিত্তি নষ্ট করে দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। মনে করি, এটা পারবে না। শেষ পর্যন্ত জাতি ঘুরে দাঁড়াবেই সুযোগ পেলে। সেটা খুব বেশিদিন হয়তো নেই। সে রকমই একটা বড় সুযোগ হয়তো আগামী নির্বাচন। সে সুযোগ হয়তোবা সরকার দিতে চাইবে না। ক্ষমতায় না থাকলে কত প্রশ্নের জবাব দিতে হবে, কত মামলা হবে, কত কী হবে। দেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আলাপকালে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না এইসব কথাই বলেন আমাদের অর্থনীতিকে।

তিনি আরও বলেন, আমরা সেই বাঙালি যারা ৫২, ৬৭ ও ৭১ সালে লড়াই করেছি। স্বৈরাচার বিরোধী লড়াই করেছি। সে বাঙালির চরিত্র হননের জন্য, তাদের কোমড় ভেঙে দেয়ার জন্য যে অপতৎপরতা, তা এই সরকারই করছে। দেশে একটা চামচামির কালচার চালু হয়েছে। আমি জেল থেকে বের হয়ে দেখি পুরো দেশ ভয়ের চাদরে ডাকা। কেউ সাহস করে কথা বলতেও পারছে না। আমার অনেক ভক্ত রয়েছে কিন্তু এখন কেউ আমার ফোন ধরতে সাহস পাচ্ছে না। দেখা করতে সাহস পাচ্ছে না। এই যে মেয়র আনিসুল হক, আমরা এক সাথে লেখাপড়া করেছি। আমার খুব ঘনিষ্ট বন্ধু ছিল। যদিও আমাকে জেলে পুরে যে নির্বাচন হয়েছে, সেখানে সে আওয়ামী লীগের সমর্থন নিয়ে নির্বাচিত হয়েছে। আমি দুই বছর জেল খেটে বের হওয়ার পর সে একবারও দেখা করতে আসেনি। কী রকম ভয় কাজ করেছে চিন্তা করতে পারেন? এই রকম অনেকের নাম আমি বলতে পারি। পরিচিত বলে আনিসের নাম বললাম।

অন্য এক প্রশ্নের উত্তরে এক সময়ের তুখোড় এই ছাত্রনেতা বলেন, বেগম জিয়া তো নিজের মুখে বলেছেন তিনি মাফ করে দিলাম। তিনি হয়তো কাউকে একটা ম্যাসেজ দিতে চেয়েছেন। তিনি মাফ করে দিবেন যে, অপরাধ কি শুধু তার সাথে ঘটেছে? যে পরিবারগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তারা তো মাফ করবে না। অবশ্য উনি সবার মাফের কথা বলেনওনি। উনি যেটা বলেছেন, তিনি রাজনীতিতে প্রতিহিংসা চরিতার্থ না করার কথা বলেছেন, এটা ভালো। কারণ যে জায়গাতে দেশ গেছে, ক্ষমতার পালাবদলের সাথে সাথে যারা ক্ষমতায় ছিলেন, তাদের বহু ধরনের প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে। বেগম জিয়া যদি বলেন, আমি প্রতিহিংসা চরিতার্থ করবো না সেটা খুবই ভালো। তারপরও কিন্তু আপনি একটা হিংসার রাজনীতির বীজ বপন করে গেছেন। এটা চারা হয়েছে, এটা বড় হয়ে গেলে, তখন আপনি কী করবেন?

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত